Categories
আন্দোলন সম্পর্কে

The Story of Movements and the Spread of the Gospel

The Story of Movements and the Spread of the Gospel

By Steve Addison –

Luke begins the book of Acts by telling us that what Jesus began to do and teach, he now continues to do through his disciples empowered by the Holy Spirit.

Luke’s story of the early church is the story of the dynamic Word of the gospel which grows, spreads, and multiplies, resulting in new disciples and new churches. We get to the end of Acts and yet the story doesn’t end. Paul is under house arrest awaiting trial; meanwhile the unstoppable Word continues to spread throughout the world. Luke’s meaning is clear: the story continues through his readers who have the Word, the Spirit and the mandate to make disciples and plant churches.

Throughout church history we see this pattern continue: the Word going out through ordinary people, disciples and churches multiplying. While the Roman Empire was collapsing, God was calling a young man named Patrick. He lived in Roman Britain but was kidnapped and sold into slavery by Irish raiders. Alone and desperate, he cried out to God who rescued him. He went on to form the Celtic missionary movement that was responsible for evangelizing and planting roughly 700 churches: throughout Ireland first and then much of Europe over the next several centuries.

Two hundred years after the Reformation, Protestants still had no plan or strategy to take the gospel to the ends of the earth. That was until God used a young Austrian nobleman to transform a bickering band of religious refugees. In 1722 Count Nikolaus Zinzendorf opened his estate to persecuted religious dissenters. Through his Christlike leadership and the power of the Holy Spirit, they were transformed into the first Protestant missionary movement, known as the Moravians.

Leonard Dober and David Nitschmann were the first missionaries sent out by the Moravians. They became the founders of the Christian movement among the slaves of the West Indies. For the next fifty years the Moravians worked alone, before any other Christian missionary arrived. By then the Moravians had baptized 13,000 converts and planted churches on the islands of St. Thomas, St. Croix, Jamaica, Antigua, Barbados, and St. Kitts.

Within twenty years Moravian missionaries were in the Arctic among the Inuit, in southern Africa, among the Native Americans of North America, and in Suriname, Ceylon, China, India, and Persia. In the next 150 years, over 2,000 Moravians volunteered to serve overseas. They went to the most remote, challenging, and neglected areas. This was something new in the expansion of Christianity: an entire Christian community—families as well as singles—devoted to world missions.

When the American War of Independence broke out in 1776, most English Methodist ministers returned home. They left behind six hundred members and a young English missionary named Francis Asbury who was a disciple of John Wesley. 

Asbury had left school before he turned twelve to become a blacksmith’s apprentice. His grasp of Wesley’s example, methods and teaching enabled him to adapt them to a new mission field while remaining true to the principles.

Methodism not only survived the Revolutionary War, it swept the land. Methodism under Asbury outstripped the strongest and most established denominations. In 1775 Methodists were only 2.5% of total church membership in America. By 1850 their share had risen to 34%. This was at a time when Methodist requirements for membership were far stricter than the other denominations. 

Methodism was a movement. They believed the gospel was a dynamic force out in the world bringing salvation. They believed that God was powerfully and personally present in the life of every disciple, including African Americans and women, not just the clergy. They also believed it was their duty and priority to reach lost people and to plant churches across the nation.

American Methodism benefited greatly from the pioneering work of John Wesley and the English Methodists. Freed from the constraints of traditional English society, Asbury discovered that the Methodist movement was even more at home in a world of opportunity and freedom. 

As the movement spread through the labors of young traveling preachers, Methodism stayed cohesive through a well-defined system of community. Methodists remained connected with each other through a rhythm of class meetings, love feasts, quarterly meetings and camp meetings. By 1811 there were 400-500 camp meetings held each year, with a total attendance of over one million.

When Asbury died in 1816 there were 200,000 Methodists. By 1850 there were one million Methodists led by 4,000 traveling preachers and 8,000 local preachers. The only organization more extensive was the U.S. government.

Eventually Methodism lost its passion and settled down to enjoy its achievements. In the process it gave birth to the Holiness movement. William Seymour was a holiness preacher with a desperate desire to know the power of God. He was the son of former slaves, a janitor and blind in one eye. God chose this unlikely man to spark a movement that began in 1906 in a disused Methodist building on Azusa Street.

The emotionally charged meetings ran all day and into the night. The meetings had no central coordination, and Seymour rarely preached. He taught the people to cry out to God for sanctification, the fullness of the Holy Spirit, and divine healing.

Immediately, missionaries fanned out from Azusa Street to the world. Within two years they had brought Pentecostalism to parts of Asia, South America, the Middle East, and Africa. They were poor, untrained, and unprepared. Many died on the field. Their sacrifices were rewarded; the Pentecostal/charismatic and related movements became the fastest growing and most globally diverse expression of worldwide Christianity.

At the current rate of growth, there will be one billion Pentecostals by 2025, most of them in Asia, Africa, and Latin America. Pentecostalism is the fastest expanding movement—religious, cultural, or political—ever. 

Jesus founded a missionary movement with a mandate to take the gospel and multiply disciples and churches everywhere. History is replete with examples of movements just like in the book of Acts; I have named only a few. Three essential elements are necessary for Jesus movements: his dynamic Word, the power of the Holy Spirit and disciples who obey what Jesus has commanded.

Steve Addison is the author of Pioneering Movements: Leadership That Multiplies Disciples and Churches www.movements.net.

Adapted from an article originally published in the Jan-Feb 2018 issue of Mission Frontiers, www.missionfrontiers.org, pages 29-31, and published on pages 169-173 of the book 24:14 – A Testimony to All Peoples, available from 24:14 or Amazon.

Categories
আন্দোলন সম্পর্কে

Focus-on-Fruit Brief Overview 2021

Focus-on-Fruit Brief Overview 2021

By Trevor Larsen –

I came to the Lord as I entered college, and grew spiritually during my college years. The Lord kept giving me roommates from different cultures, which piqued my interest in the world. I later became a math teacher and wrestling coach. I found that coaching really influenced my ministry. A coach asks the question: How do you help other people become as effective as possible at what they’re doing? What I’m doing now is helping local movement catalysts in my SE Asian context become as effective as possible, in church planting and leadership. After teaching and coaching, I went to seminary, where I ministered to many Cambodian, Vietnamese, and Laotian refugees who had just arrived after the Killing Fields, with stories of multiple millions killed. These refugees were placed in 10 cities in America, including the city where I attended seminary. 

I recruited and formed teams with 15 other seminarians, according to the language groups on which we were focusing. I found it was a good fit for me to also mobilize local Southeast Asians to disciple others. We were stunned by the fact that some of those we were training (who we thought of as receiving our ministry) actually turned around and started other churches – both in their city, and also in Cambodia, through their relatives. We began at that time to do multiple-generation thinking, which has continued up to this day. I was a pastor in California for seven years and then have been teaching in an Asian seminary since 1993 – for 28 years. I teach at the Doctoral and Masters’ level, in a set of 15 linked seminaries. That’s my visa reason for being in the country. But we moved into UPG work about 22 years ago, focusing on majority-religion UPGs. I developed an organization of local church planters who reach the UPGs of our country. It has become a bigger part of my life than the seminary teaching, though I continue to do both. 

Some may struggle to accept the unconventional church I talk about. Keep in mind: As a seminary professor, I’m strongly connected with conventional churches, and the denominational leaders here tell me about their challenges. When I first moved here, the conventional churches were very fruitful. But during this 20-year period, the conventional churches that had been very fruitful have declined in their fruitfulness, and they are getting more and more frustrated. Conditions changed in our context when fundamentalism increased in 2000, and conventional churches have been very slow to adapt their methods to new conditions. They are talking to me more and more about their frustrations. 

Conventional churches had not been fruitful among UPGs, so in 1998 we started quietly experimenting with four young seminary graduates, trying to develop a different model – aiming for better results in a UPG. The graph of fruit reported by this small ministry team kept increasing, while the conventional church leaders were telling me stories of how their fruitfulness kept declining. I found myself in quite an interesting juxtaposition of two worlds: two sets of people serving the Lord with different models and having very different results. That’s my background. I understand the stories of both kinds of ministry models: the conventional churches, and the “church without walls” our team was developing. 

To make a long story short, I started with local evangelists who I thought were good at evangelism among people of the majority religion. I then coached four full-time local evangelists who were developing our experiment. We decided we would only count people of the majority religion who were being reached, because we didn’t want to slide back into the easier-to-reach portions of the country. It took us three years to get to our first small group of five believers. Then it took us four more years of struggle to get to 22 groups, while we learned about what worked and what didn’t work. Most of those groups were first generation groups that our church planters led; the ministry had not yet become rooted with local leaders. It took another three years to get to 52 groups, while we were discovering other fruitful practices. Then in just two more years, the ministry had grown to 110 groups. At that time, we were stunned to find that believer groups were doubling more quickly, and surprised when we found our first third generation groups. It was starting to get rooted in local culture and local leaders!

I was counting these 110 groups on a plane to the U.S., to present a case study in a conference. I began crying on the plane, as I added up all the little handwritten notes I’d been given at the airport, when I realized we were picking up our doubling speed. The number of years it took us to double had decreased quite a bit from 2006 to 2008, as compared to what it had been before that. I started thinking, “Wow, if we can get to the third generation of groups, what’s keeping us from getting to the eighth generation? Can this become a continuously expandable system? What are the obstacles to continuous expansion?” 

From that first group in 2000, this movement has become thousands of groups, a family of movements. There are movements of 1,000 believers or more, in at least six generations of groups, in many different UPGs, and in many other countries, reached by movement catalysts from an Asian country. It’s amazing that I’m saying this, because my initial goal, my lifetime career goal, was 200 groups, which at the time seemed nearly impossible. I think the Lord gives you a number to begin with, at the limits of what you dare to imagine. And while pursuing that first smaller target, you can set up a system that is expandable. We use the term “scalable” to describe this: a system with fruitful-practice DNA which supports continuous expansion.

Categories
আন্দোলন সম্পর্কে

Ordinary People as Witnesses Making Disciples – Part 2

Ordinary People as Witnesses Making Disciples – Part 2

By Shodankeh Johnson, Victor John, and Aila Tasse –

The leader of a large movement in India shares these testimonies of God’s work through ordinary people.

The main leader in one area of our country, Abeer, has consistently reported that the Discovery Study approach is a great tool for growing people’s faith quickly. This is especially true for illiterate people, because each person can easily listen to the story on the speaker and discuss the questions.

Abeer has many generations of disciples that have reproduced from his ministry. One of the 5th generation leaders, Kanah, is 19 years old. He has already started Discovery Groups in three villages. One day, this young man went to G. Village, and was surprised to discover that a family there said they were followers of Jesus! Kanah visited the seven members of the family, including the 47-year-old mother, Rajee. During their conversation, Rajee said, “Yes, we know about Jesus, but we have no idea how we will ever grow in our faith because pastors do not come here.”

Kanah felt great sympathy for this family because his testimony was the same. When he first gave his allegiance to Christ, there had been no pastor to teach him in the ways of his new faith. Pastors would come to his village occasionally, just as one had visited this family, but the pastors would only come to preach for a while, collect an offering, and then leave. They had never committed themselves to regular visits or actual disciple-making of any kind. They had only been taught to preach, so that is what they had done. 

After listening to Rajee, Kanah said to her, “Auntie, I tell you truthfully, my story is just like yours. But one day, after I had been alone in my faith for a long time, I met a team who told me that while it was so good I had given my allegiance to Christ, I hadn’t been told the whole story. Not only are we to follow Jesus and be His disciple, but we’ve also been commanded to go and make disciples of all nations.” 

Rajee said, “We don’t have a Bible and we don’t know how to read. Kanah said, “Yes, I understand.  In my village there are also many people who cannot read, but this team gave me a speaker with Bible stories on it. If you listen to this speaker, you’ll hear God’s word and learn it, and as you discuss the questions on the speaker the truths will go deeper into your heart and life.”

Rajee asked if she could have such a speaker. Two days later, he returned to that village and gave the family a speaker. He explained: “After listening to these stories, it’s very important to discuss the five questions so you can grow in your faith without depending on someone to come from far away and teach you. 

Rajee’s family had waited a whole year for a pastor to return and teach them, but no one ever came. Then this young 19-year-old visited one day and gave them the tools they needed to grow in their faith. In ways like this, the Holy Spirit is working and this movement is growing. Kanah isn’t a pastor; he’s not had any Bible training. He’s not even a member of a big church. He’s just a simple guy from a village. And because he himself has followed this pattern for learning and growing in faith, he is able to share it with others. We praise God that even simple people are functioning as a royal priesthood – serving God and bring His salvation to others. 

What if, instead of relying upon sermons as our mode of instruction, we focused on discussing the Bible: everyone interacting over a passage in a small group and then obeying what they learned? Thousands of small churches in India today are doing exactly that. Here is a recent testimony of how this approach is helping followers of Jesus grow in their faith.

A woman named Diya lives in “K. Village,” which is far from any town. Residents there cannot travel or leave their village very often because it is so remote. This isolation really bothered them. They wondered how they would ever learn more about God. Once, they heard a man talk about Jesus, that He is great and able to do miracles. But in their isolation, they wondered if they would ever hear more about Him.

One day, several disciple makers met in the home of a church leader in that general area. The leader asked: “What do we do about people with whom we’ve been able to share a little bit about Jesus, but they need to know more? How can we follow up with people who live so far away that it’s hard for us to reach them?” This question touched JP, one of the disciple makers. 

He thought, “I have a bicycle. I could go visit with people who live in remote villages.” This is how JP ended up in Diya’s village. He met with her and her whole family and they talked about Jesus. He told them about Matthew 28, that we who are His disciples are commanded to go and make other disciples. He told her how she and her family could also obey Jesus’ commands and that as they applied Jesus’ instructions to their lives, their faith would grow. Diya and her whole family were so happy that someone from “the outside” had come all the way to their village to meet with them to talk about Jesus! 

JP gave them a speaker saying, “Sister, here is a simple way you can worship Jesus together in your home. I, too, am illiterate. I am not wise. I was never trained in an official pastor training program. But I have this speaker with many Bible stories on it.” JP told Diya how she and her family could use the speaker to study God’s Word. He left it with her, and worship to Jesus began in that village for the first time. 

One day, a neighbor family came to Diya’s house to join them in their Bible study. However as soon as they heard the voice start to narrate the Scripture, the 19-year-old daughter in the neighbor’s family began to cry out – truly wailing. Priya had a demon in her, and everyone was very afraid. 

What would happen? None of them were pastors. What were they supposed to do? What would the demon do? No one knew. So they all just kept listening to the story. The narration went on while Priya kept wailing and everyone else present was silently asking God to do a miracle. As the story ended, finally someone was brave enough to say, “Let’s pray!” So they all prayed for Priya and she was freed of the demon! And that’s not all. She also had been ill for a long time, and during that meeting, God not only freed her of the demon but also healed her illness. After witnessing these two miracles, both families declared that they wanted to be followers of Jesus! Priya’s family has now also started hosting a Bible study group in their own home. 

Diya and Priya have since visited 14 different villages for the purpose of spreading Jesus’ story! In those 14 villages, 28 Discovery Bible studies are taking place regularly. These groups are not yet spiritually mature. They are infants in the Lord, but the ladies have faith that many disciples will be made in those places. The main church leader in the area, the one who hosted the meeting that JP attended, has visited these groups himself and talked to them about growing mature in Christ.

This is the power of God’s Word and His Spirit, working where there are no seminaries or paid clergy. Just simple people hearing God’s words and putting them into practice, like the “wise man” Jesus described in Matt 7. Jesus said that anyone who hears His words and obeys is like a wise man who built his house on rock so that nothing moved it, not rain or even floods. How precious and wonderful to be taught this lesson by people who can’t even read! 

Our God is making clear that he can use all kinds of people to make disciples. He delights to show his amazing power through human weakness. As the Apostle Peter told the household of Cornelius: “I now realize how true it is that God does not show favoritism” (Acts 10:34 NIV). God delights to do extraordinary things through ordinary people. As we read the testimonies of these “ordinary” witnesses around the world, what might the Father want to say to us about our role as his witnesses? 

Shodankeh Johnson is the leader of New Harvest Ministries (NHM) in Sierra Leone. Through God’s favor, and a commitment to Disciple Making Movements, NHM has seen hundreds of simple churches planted, over 70 schools started, and many other access ministries initiated in Sierra Leone in the last 15 years. This includes churches among 15 Muslim people groups. They have also sent long-term workers to 14 countries in Africa, including eight countries in the Sahel and Maghreb. Shodankeh has done training, catalyzing prayer and disciple-making movements in Africa, Asia, Europe, and the United States. He has served as the President of the Evangelical Association of Sierra Leone and the African Director of New Generations. He is currently Director of prayer and Pioneer Ministries at New Generations.

Victor John, a native of north India, served as a pastor for 15 years before shifting to a holistic strategy aiming for a movement among Bhojpuri people. Since the early 1990’s he has played a catalytic role from its from inception to the large and growing Bhojpuri movement.

Aila Tasse is the founder and director of Lifeway Mission International (www.lifewaymi.org), a ministry that has worked among the unreached for more than 25 years. Aila trains and coaches DMM in Africa and around the world. He is part of the East Africa CPM Network and New Generations Regional Coordinator for East

(1) Excerpted from “Discovery Bible Studies Advancing God’s Kingdom,” in the May-June 2019 issue of Mission Frontiers; published on pages 174-184 of the book 24:14 – A Testimony to All Peoples, available from 24:14 or Amazon

(2) For security reasons, all personal names within these vignettes have been changed.

The five questions, as recorded in the mp3 audio DBS story sets, are: 

  1. In this whole story that you’ve heard, what one thing do you like the most?
  2. What do you learn from this story about God, about Jesus or about the Holy Spirit?
  3. What do you learn from this story about people, and about yourself?
  4. How should you apply this story to your life in the next few days? Is there a command to obey, an example to follow, or a sin to avoid?
  5. Truth is not to be hoarded. Someone shared truth with you that has benefitted your life. So, with whom will you share this story in the next week?
Categories
আন্দোলন সম্পর্কে

সাধারণ ব্যক্তি সাক্ষী হিসাবে শিষ্য নির্মাণ করছে – ভাগ ১

সাধারণ ব্যক্তি সাক্ষী হিসাবে শিষ্য নির্মাণ করছে – ভাগ ১

সোডানকে জনসন, ভিক্টর জন, এবং আইলা তাসে দ্বারা লিখিত –

সি পি এম-এর ওপর লেখা তার আগত প্রায় একটি পুস্তকের পান্ডুলিপিতে, সোডানকে জনসন সিয়েরা লিয়নে একটি আন্দোলনের কথা বলেছেনঃ

আমি বলতে চাই ঈশ্বর অসংখ্য সাধারন মানুষকে কিভাবে ব্যবহার করছেন। উদাহরণস্বরূপ, আমাদের কাছে অনেক অন্ধ মণ্ডলী-স্থাপক আছেন। আমরা তাদের শিষ্য নির্মাণ করি এবং শিক্ষা দিই। আমরা তাদের মধ্যে কিছুজনকে ব্রেইল শেখার জন্য অন্ধদের স্কুলে পাঠাই, যেন তাঁরা বাইবেল পড়তে পারেন। যদিও তারা পুরোপুরি অন্ধ, কিন্তু সেই সমস্ত স্ত্রী এবং পুরুষেরা প্রচুর মণ্ডলী স্থাপন করেছেন এবং বহু লোককে শিষ্য নির্মাণ করেছেন। এমনকি যে ব্যক্তিরা অন্ধ নন, তাদেরও শিষ্য নির্মাণ করতে ঈশ্বর তাঁদের প্রয়োগ করেছেন। তাঁরা ডিসকভারি গোষ্ঠীগুলির পরিচালনা করেন, যাদের মধ্যে কিছু সদস্যরা স্বাভাবিক দৃষ্টিপ্রাপ্ত।

আমরা আরো দেখেছি, যারা কখনও স্কুলে যান নি, সেই অশিক্ষিত লোকদের ঈশ্বর ব্যবহার করেন। যদি আপনি “ক” অক্ষরটি লেখেন, তারা অনেকে এটাও জানেন না যে এটি একটি অক্ষর “ক”। কিন্তু বছরের পর বছর ধরে, শিষ্যত্বের প্রক্রিয়ার জন্য, তাঁরা ধর্মশাস্ত্রের অংশ উল্লেখ করতে পারেন। তাঁরা ধর্মশাস্ত্রের ব্যাখ্যা করতে পারেন, এবং শিক্ষিত ব্যক্তিদেরও শিষ্য হিসাবে প্রশিক্ষণ দিতে পারেন, যদিও তাঁরা নিজেরা কখনও স্কুলে যাননি।

উদাহরণস্বরূপ, আমার মা অশিক্ষিত। কিন্তু তিনি যারা এখন উচ্চ শিক্ষিত পালক এবং মণ্ডলী-স্থাপক তাদের প্রশিক্ষিত করেছেন। আমার জানা সমস্ত মহিলাদের মধ্যে তিনিই সবচেয়ে বেশি মুসলিম মহিলাদের প্রভূতে এনেছেন। তিনি কখনো স্কুলে যাননি, কিন্তু তিনি দাঁড়িয়ে ধর্মশাস্ত্রের প্রচার করতে পারবেন। তিনি বলতে পারেন, “যোহন ৪:৭-৮ পদটি খুলুন” এবং যতক্ষণে আপনি সেই পদটি খুঁজে বের করবেন, তার আগেই তিনি ধর্মশাস্ত্রের সেই অংশের ব্যাখ্যা শুরু করে দিয়েছেন।

ঈশ্বরের “সাধারণ ব্যক্তিদের” ব্যবহার করার সাক্ষ্য, বিশ্বের অন্যান্য অংশে আন্দোলনের নেতাদের দ্বারা প্রতিধ্বনিত হচ্ছে। ভিক্টর জন, তার ভোজপুরী ব্রেকথ্রু  বইটিতে লিখেছেনঃ

ভোজপুরীদের মধ্যে, ঈশ্বর এখন গমনাগমন করছেন প্রত্যেকটি জাতের মধ্যে, এমনকি নীচু জাতের লোকেরা উঁচু জাতের লোকদের কাছে পৌঁছে যাচ্ছেন। বিভিন্ন জাতের থেকে আসা বিশ্বাসীরা হয়ত, একে অন্যের সাথে সামাজিক ভাবে খুব একটা মিশতে পারে না, কিন্তু তাঁদের উপাসনা সভাগুলি একসাথে হয় এবং তারা একত্রে প্রার্থনা করেন। আমাদের মধ্যে একজন নীচু জাতের ভদ্রমহিলা আছেন, যিনি গ্রামের নীচু জাতের সম্প্রদায়ের উপাসনা পরিচালনা করেন, তারপর গিয়ে গ্রামের উঁচুজাতের সম্প্রদায়ের উপাসনাও পরিচালনা করেন। যদিও তিনি নীচু জাত থেকে এসেছেন এবং একজন মহিলা (যা তাকে করেছে যেকোন গ্রামের একজন অসাধারণ নেতা), উঁচু জাত এবং নীচু জাত উভয় ক্ষেত্রেই ঈশ্বর তাকে কার্যকরীভাবে ব্যবহার করেছেন।

ভারতে আরেকটি বৃহৎ আন্দোলনের নেতা একস্থানে মিলিত হচ্ছেনঃ

যদি আপনাকে বলা হয় যে কেবলমাত্র ব্রাহ্মনরাই ব্রাহ্মনদের কাছে পৌঁছাতে পারবেন, তাহলে আপনাকে ভুল পথে চালনা করা হচ্ছে। যদি আপনাকে বলা হয় যে শিক্ষিতরাই শিক্ষিতদের কাছে পৌঁছাতে পারবেন, আপনাকে ভুল পথে চালনা করা হচ্ছে। ঈশ্বর এদের থেকে নগণ্যদের ব্যবহার করেন।

পূর্ব আফ্রিকার আন্দোলনগুলি থেকে, আইলা তাসে ঈশ্বরের কর্মে রত থাকার এই কাহিনীগুলি বলেছেনঃ

একজন মদ্যপ শিষ্যে পরিণত হয়েছেন

জারসো একটি প্রবাহের নেতা, যিনি পূর্ব আফ্রিকার অতি স্বল্প সুসমাচার প্রাপ্ত জনগোষ্ঠীর মধ্যে ২ বছরের মধ্যে ৬৩টি মণ্ডলী স্থাপন করেছিলেন। চার মাস আগে জারসো সেই জনগোষ্ঠীর নতুন খ্রীষ্টানুসারীদের বাপ্তিস্ম প্রদাণ করছিলেন। জিল্লো, যিনি খ্রীষ্টানুসারী ছিলেন না, দূর থেকে লক্ষ্য করছিলেন, যখন জারসো বাপ্তিস্ম দেবার কার্য পরিচালনা করছিলেন।

এক হাতে মদ নিয়ে, জিল্লো কার্য্যকলাপগুলি লক্ষ্য করলেন এবং বাপ্তিস্মের প্রারম্ভিক ক্রিয়াগুলি নিয়ে মজা করতে লাগলেন। বাপ্তিস্মের কার্য শুরু করবার আগে জারসো প্রভূ যীশুর বাপ্তিস্মের কাহিনীটি পড়লেন এবং সেই বিষয়ে বলতে লাগলেন। এখন প্রচারের জায়গা থেকে শ্রবনযোগ্য দূরত্ব থেকে, জিল্লো যা শুনেছিলেন, সেই বাক্যের মধ্যে মগ্ন হয়ে গেলেন। কাহিনীর শেষে, তিনি বুঝলেন তার প্রভূ যীশুকে অনুসরণ করা প্রয়োজন। সেই মুহুর্ত্তে তিনি মদ খাওয়া বন্ধ করার মনস্থ করলেন, এবং অর্ধেক খাওয়া মদের বোতলটি ছুঁড়ে ফেলে দিলেন।

তিনি সেই সন্ধ্যায় তাড়াতাড়ি বাড়ী ফিরলেন। তার স্ত্রী তাকে শান্ত এবং খালি হাতে দেখে আশ্চর্য্য হয়ে গেলেন, কারণ সাধারণত তিনি মদ্যপান করার জন্য কয়েকটি বোতল সঙ্গে করে আনতেন। তার স্ত্রী তাকে একটি মদের বোতল এনে দিতে চাইলেন, যা তিনি দিনের বেলায় তার জন্য কিনে এনেছিলেন। জিল্লো তাকে এই বলে চমকে দিলেন যে তিনি মদ খাওয়া ছেড়ে দিয়েছেন, এবং তার স্ত্রী যেন দোকানে বোতলটি ফিরিয়ে দিয়ে পয়সা ফেরৎ নিয়ে আসেন।

জিল্লো, যিনি পড়তে বা লিখতে জানতেন না, তার স্ত্রীকে বাড়ীতে রাখা বাইবেল নিয়ে আসতে এবং তার জন্য প্রভূ যীশুর কাহিনীটি পড়তে বললেন, যা জারসো বাপ্তিস্মের অনুষ্ঠানের সময়ে পড়েছিলেন। তার স্ত্রী বাইবেলটি আনলেন এবং যখন তিনি কাহিনীটি পড়া শেষ করলেন, জিল্লো তিনি জারসোর কাছে যা শুনেছিলেন তাকে বললেন।

সেই সন্ধ্যায়, জিল্লো এবং তার স্ত্রী প্রভূ যীশুকে অনুসরণ করার সিদ্ধান্ত নিলেন। পরের দিন, জিল্লো জারসোর সাথে যোগাযোগ করলেন, যিনি তাকে কিভাবে পারিবারিক ডিসকভারি বাইবেল স্টাডি করতে হয় শেখালেন। পরের দিন থেকেই, জিল্লো এবং তার স্ত্রী, তাদের সন্তানদের নিয়ে একসাথে প্রত্যেক সন্ধ্যায় ডিসকভারি বাইবেল স্টাডি করা শুরু করেলেন।

দুই সপ্তাহ পরে, জিল্লো, তার স্ত্রী এবং কিছু প্রতিবেশী, যারা তাঁদের ডিসকভারি বাইবেল গোষ্ঠীতে যোগ দিয়েছিলেন, বাপ্তিস্ম গ্রহণ করলেন। জিল্লো এবং তার স্ত্রী আরো আটটি ডিসকভারি গোষ্ঠী শুরু করার মাধ্যমে এই যাত্রা এগিয়ে নিয়ে চললেন। জিল্লো তার সাক্ষ্য এই বলে শেষ করলেন যে যদি বর্তমান ধারা চলতে থাকে, তাহলে সুসমাচারের মাধ্যমে সমগ্র জেলার রূপান্তর সম্ভব হবে।

একজন নতুন নিয়মের রাহাব

আমাদের মণ্ডলীস্থাপক, ওয়ারিও, ২ বছর আগে রাহাব নামে এক যুবতীর সাথে দেখা করেছিলেন। এই মহিলা অত্যন্ত সুন্দরী ছিলেন, এবং ওয়ারিও যখন প্রথম তার সাথে দেখা করেছিলেন, তিনি বাইবেলে তার সমনামের এক যৌন কর্মী ছিলেন।

ওয়ারিও তাকে বাইবেল থেকে রাহাব-এর কাহিনী এবং তার বিষয়ে ইব্রীয় ১১ অধ্যায়ে যেমন বলা আছে সেটাও বলতে লাগলেন। তিনি তাকে রাহাবের জীবন কিভাবে একজন যৌনকর্মীর জীবন থেকে বিশ্বাসী মহিলার জীবনে পরিণত হয়েছিল এবং কিভাবে তিনি প্রভূ যীশুর বংশ বৃত্তান্তের ধারায় প্রবেশ করেছিলেন তা বললেন।

রাহাব কোনদিন নিজের জন্য বাইবেল পড়েন নি। কিন্তু তিনি জানতেন যে বাইবেলে রাহাব নামে একটি মহিলার বিষয়ে লেখা আছে এবং তিনি একজন যৌনকর্মী ছিলেন। এটি তিনি যারা তার নাম জানতো এমন অনেক লোকের কাছ থেকে জেনেছিলেন।

কিন্তু যখন তিনি ওয়ারিওর কাছ থেকে রাহাবের সম্বন্ধে সম্পূর্ণ কাহিনীটি শুনলেন, তিনি প্রভাবিত হলেন এবং ওয়ারিওকে জিজ্ঞাসা করলেন যে তিনি বাইবেলের রাহাবের মত হতে পারেন কি না। ওয়ারিও বললেন “হ্যাঁ” এবং তার জন্য প্রার্থনা উৎসর্গ করলেন। সেই প্রক্রিয়ার পরিণামে তিনি অপদেবতার দাসত্ববন্ধন থেকে মুক্ত হলেন। তারপর তার জীবন নাটকীয়ভাবে পরিবর্তিত হল।

তিনি একজন অত্যন্ত বলিষ্ঠ খ্রীষ্টানুসারী এবং একজন শিষ্য নির্মাণকারিণীতে পরিণত হলেন। তিনি একজন খ্রীষ্টানুসারীকে বিয়ে করলেন এবং সেই দম্পতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ শিষ্য নির্মাণকারকে পরিণত হলেন। গত বছর ধরে তারা তাদের সম্প্রদায়ে ছয়টি নতুন মণ্ডলী প্রতিষ্ঠা করেছেন।

শোডানকে জনসন হলেন সিয়েরা লিওন-স্থিত নিউ হারভেস্ট মিনিস্ট্রীস (এন এইচ এম)-এর নেতা। ঈশ্বরের করুণায়, ও শিষ্য নির্মাণের আন্দোলনের প্রতি দায়বদ্ধতার জন্য, এন এইচ এম জাঁক জমকহীন শত শত মন্ডলীর প্রতিষ্ঠা, ৭০টিরও বেশী বিদ্যালয়ের স্থাপন, এবং অন্যান্য অনেক প্রবেশাধিকারের পরিচর্য্যা, যা সিয়েরা লিওনে বিগত ১৫ বছরে শুরু হতে দেখেছে। এর মধ্যে অন্তর্ভূক্ত ১৫টি মুসলমান জনগোষ্ঠীর মন্ডলী। তারা আফ্রিকার ১৪টি দেশে দীর্ঘমেয়াদী কর্মীদের পাঠিয়েছে, যার অন্তর্ভূক্ত সাহেল ও মাঘরেবের ৮টি দেশ। শোডানকেপ্রশিক্ষণ, আফ্রিকা, এশিয়া, ইউরোপ এবং আমেরিকায় প্রার্থনা এবং শিষ্য নির্মাণের অনুঘটন সম্পাদন করেছেন। তিনি সিয়েরা লিওনে ইভানজেলিকাল এশোশিয়েশান-এর অধ্যক্ষ ও নিউ জেনারেশনস-এর আফ্রিকান পরিচালক হিসাবে কাজ করেছেন। তিনি বর্তমানে নিউ জেনারেশনস-এর প্রার্থনা ও অগ্রগামী পরিচর্য্যা পরিচালনার দায়িত্বে আছেন।

ভিক্টর জন, উত্তর ভারতের একজন স্থানীয় বাসিন্দা, ভোজপুরী জনগেণর মধ্যে একটি আন্দোলনের লক্ষ্যে এক সার্বজনীন কৌশল স্থানান্তরণের পূর্বে ১৫ বছর একজন পাষ্টার হিসাবে পরিচর্য্যা করেছিলেন৷ ১৯৯০ এর দশকের গোড়ার দিকের সূচনা থেকে তিনি বৃহত্তর এবং ক্রমবর্ধমান ভোজপুরী আন্দোলনের এক অনুঘটকের ভূমিকা পালন করেছেন৷

আলিয়া তাসে লাইফওয়ে মিশন ইন্টারন্যাশনাল-এর প্রতিষ্ঠাতা (www.lifewaymi.org), একটি সংস্থা যারা প্রায় ২৫ বছরের উর্দ্ধে সুসমাচার অপ্রাপ্ত লোকদের মধ্যে পরিচর্য্যা কার্য করছে। আলিয়া আফ্রিকা এবং পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে নেতাদের প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকেন। তিনি পূর্ব আফ্রিকার সি পি এম নেটওয়ার্ক-এর একজন গুরুত্বপূর্ণ অংশ এবং মধ্য আফ্রিকার নিউ জেনারেশন-এর আঞ্চলিক সমন্বয়কারী।

(1) মিশন ফ্রন্টিয়ার্স-এর জানুয়ারী-ফেব্রুয়ারী ২০১৭ সালের প্রকাশনায়, ডঃ আলিয়া টাসে লিখিত, “ডিসাইপল মেকিং মুভমেন্টস ইন ইস্ট আফ্রিকা” থেকে উদ্ধৃত করা হয়েছে।

(2) সুরক্ষার কারণে, এই বিবরণীগুলির সমস্ত ব্যক্তিগত নামগুলি পরিবর্তন করা হয়েছে।

Categories
আন্দোলন সম্পর্কে

শিশু এবং যুবকঃ আন্দোলনগুলির হারানো টুকরো?

শিশু এবং যুবকঃ আন্দোলনগুলির হারানো টুকরো?

এক্সেল, বরিষ্ঠ সম্পাদক, জোসেফ ম্যের্স দ্বারা লিখিত –

এক্সেল-এর পৃষ্ঠা ১৪-১৮, এপ্রিল ২০২১ থেকে অনুমতিসহ সম্পাদিত এবং উদ্ধৃত

ঐতিহ্যবাহী মণ্ডলীর পরিবেশে শিশু পরিচর্য্যা এবং যুবক পরিচর্য্যার প্রচুর তথ্য রয়েছে। এবং শত শত ওয়েবপেজ, প্রবন্ধ এবং পুস্তক মণ্ডলী স্থাপণ আন্দোলনগুলি এবং শিষ্য নির্মাণকারী আন্দোলনগুলির বিষয়ে আলোচনা করে। কিন্তু সযত্নে অনুসন্ধান করার পর, আমি কেবলমাত্র দুটি প্রসঙ্গ পেয়েছি যা শিশু/যুবক এবং আন্দোলনগুলিকে বিবরণের যেকোন ডিগ্রীর সাথে সম্বোধন করে। প্রথমটি হলো জর্জ ও’কন্নোর-এর রিপ্রোডিউসিবল পাষ্টরল ট্রেইনিং: চার্চ প্লান্টিং গাইডলাইনস্ ফ্রম দ্য টিচিং অফ জর্জ প্যাটার্সন (পাসাডেনা, সিএঃ উইলিয়াম কেরী লাইব্রেরি, ২০০৬)। নির্দেশিকা ৩২ হলো “শিশুদেরও গুরুতর পরিচর্য্যা করতে দিন” (পৃষ্ঠা ১৪০-৯)। যদিও অগত্যা আন্দোলনের কথা ভেবে প্রণয়ন করা হয় নি, এই নির্দেশিকাটিতে উপস্থাপিত ধারণাগুলি প্রাসঙ্গিক এবং যথেষ্ট বিশদ বিশিষ্ট যা পাঠক সেগুলিকে বাস্তবায়নের আকাঙ্খা করতে পারে। একটি সারাংশ নিম্নে প্রদর্শিত। 

  • শিশুদের উপদেশ বা কাহিনীগুলি নিষ্ক্রিয়ভাবে শোনার পরিবর্তে শিশুদেরকে সক্রিয়ভাবে আরাধনায় অংশ গ্রহণ করতে দিন। উদাহরণস্বরূপ, আরাধনার সময়ে শিশুরা বড়দের জন্য বাইবেলের কাহিনীগুলি অভিনয় করতে পছন্দ করে। প্রাপ্তবয়স্ক সহ, বিভিন্ন বয়সের শিশুদের মিলিয়ে, উপদেশের নাটকীয়তা শ্রোতাদের উপর অধিক প্রভাব ফেলে।
  • সবসময় বয়সের দ্বারা শিশুদের এবং যুবকদের আলাদা করা তাদের সামাজিক বিকাশকে বিকল করে দেয়। শিশুরা প্রাপ্তবয়স্ক এবং বিভিন্ন বয়সের শিশুদের সাথে কার্য করে এবং খেলা করে বেশী উপকৃত হয়।
  • মণ্ডলী এবং অভিভাবকদের শিশু এবং যুবকদের প্রশিক্ষণ এবং শৃঙ্খলার জন্য একটি ব্যবহারিক, সম্পর্কযুক্ত পদ্ধতি প্রয়োগ করা উচিত।
  • খ্রীষ্টান অভিভাবক, বিশেষ করে পিতাদের, অনেকবেশী শিশুদের প্রশিক্ষণ করা উচিত, এবং মণ্ডলীগুলিকে আরও বেশী কার্যকলাপ করা প্রয়োজন যেখানে পরিবার অন্তর্ভুক্ত থাকে। 
  • শিশুরা সব সময় তাদের চেয়ে বয়স্কদের মনোযোগ আকাঙ্খা করে। বড় বাচ্চাদের শিষ্য ছোট শিশুরা এবং যুবকদের শিষ্য বড় বাচ্চারা, শিষ্যকারী এবং শিষ্য উভয়ই বৃদ্ধি পায়।
  • শিশুদের প্রভূর কার্যে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করতে দিন।
  • প্রতিটি শিশু যা দিতে চায় তা স্বীকার করুন।
  • শিশুরা সৃজনশীল হওয়ার জন্য সমৃদ্ধ থাকে। তাদের সৃজনশীলতার ফল (গান, কবিতা, নাটক, আঁকা) অন্য শিশুদের সাথে এবং, যথাযথভাবে, প্রাপ্তবয়স্কদের সাথে ভাগ করে নেওয়ার সুযোগ দিন।
  • শিশুরা অ-মৌখিক শিক্ষা থেকে ভালো শেখে। উদাহরণস্বরূপ, শিশুদেরকে তাদের ছোট বয়স থেকেই সঙ্গতির অংশ হিসাবে গ্রহণ করা তাদের মধ্যে মণ্ডলীর প্রতি ভালোবাসাকে জাগিয়ে তোলে এবং, সম্প্রসারণ দ্বারা, সত্যের জন্য এটি তাদের শিক্ষা দেয় এবং নমুণাস্বরূপ হয়।
  • বাক্য শেখান, যেভাবে পৌল শিখিয়েছিলেন। উত্তম বাইবেল প্রদর্শনী বিমূর্ত মতবাদ বোঝার জন্য একটি ভিত্তি স্থাপণ করে। সৃষ্টি, পতন, আব্রাহামের চুক্তি, বা ব্যবস্থা প্রদাণের মতো ঘটনাগুলির উপর একটি স্থূল বাইবেলের অনুচ্ছেদ থেকে শুরু করা প্রাপ্তবয়স্কদের সাথে সাথে শিশুদেরও আরও কঠিন সম্পর্কিত ধারণাগুলি বুঝতে সাহায্য করতে পারে।
  • যে পদ্ধতিতে আপনি সংযুক্তি এবং বোধগম্যতা বৃদ্ধির জন্য শাস্ত্রের কোন অনুচ্ছেদ উপস্থাপন করেন তা পরিবর্তন করুন। উদাহরণগুলির মধ্যে রয়েছে পড়া, নাটকীয়করণ, বস্তুগত পাঠগুলি প্রদাণ, এবং প্রশ্ন করা – এমনকি একই শিক্ষণ বা প্রচারিত অধিবেশনের মধ্যে থেকেও।

অন্যান্য সহায়ক সংস্থান হলো সি. অ্যান্ডার্সন-এর একটি একটি প্রবন্ধ, যার যথাযথভাবে শিরোনাম “ক্যান চিলড্রেন অ্যান্ড টিনেজার্স বি পার্ট অফ অ্য ডিএমএম (শিশু এবং কিশোররা কি ডিএমএম-এর অংশ হতে পারে)?” “ডিএমএম-এ পারিবারিক সমস্যার সমাধান করার নীতি” বিভাগে, তিনি ছয়টি বিষয় তুলে ধরেছেন যা অভিভাবক এবং অন্যান্য প্রাপ্তবয়স্করা শিশু এবং কিশোরদের শিষ্য এবং শিষ্যকারী হিসাবে গড়ে তুলতে সাহায্য করেঃ

  • আপনার মানসিকতাকে শিশুদের বিনোদন থেকে প্রশিক্ষণ দেওয়ার দিকে পরিবর্তন করুন।
  • শিশু এবং কিশোরদের শেখানো প্রয়োজন যে তারাও রাজকীয় পুরোহিত।
  • শিশু এবং কিশোরদের আন্দোলনের জন্য দর্শণ নিক্ষেপ করুন; তাদের এবং তাদের অভিভাবকদের কাছ থেকেও আদানপ্রদান করুন। (এই নীতির মধ্যেই তিনি পরামর্শ দেন, “একটি আন্দোলন শুরু করার জন্য ঈশ্বর তাদের মাধ্যমে কি করতে পারেন, তাদের তা দেখতে সাহায্য করুন এবং এর জন্য তাদেরকে আপনার সাথে প্রার্থনা করতে আমন্ত্রণ করুন।”)
  • অধিক শিশু এবং কিশোরদের প্রত্যাশা করুন। তারা প্রতিকূলতায় উঠে দাঁড়াবে।
  • সবসময় শিশুদের তাদের নিজস্ব গোষ্ঠীতে আলাদা করবেন না।
  • অভিভাবককে তাদের সন্তানদের খ্রীষ্টের প্রতি আনুগত্য এবং শিষ্যের সংখ্যাবৃদ্ধির জন্য প্রশিক্ষণ দেওয়ার দায়িত্ব বুঝতে সাহায্য করুন।

যদিও এই নীতিগুলি “কিভাবে”-এর চেয়ে “কী”-এর সমস্যাগুলিকে সম্বোধন করে, কিন্তু তারা সে বিষয়ে গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করার জন্য একটি ভালো প্রারম্ভিক বিন্দু প্রদাণ করে, যেখানে যুবক এবং শিশুরা আন্দোলনে সক্রিয় অংশগ্রহণকারী, এমনকি নেতা হতে পারে। 

অ্যান্ডার্সন তার প্রবন্ধটি, একটি সতর্কবার্তার সাথে শেষ করলেন যে, যে কেউ ছোটদের শিষ্য করতে চায় তাদের তেমন হৃদয় করতে হবেঃ

খুবই কম মণ্ডলীগুলিই কিশোরদের প্রকৃতপক্ষে শিষ্য নির্মাণকারী রূপে প্রত্যাশা করে। তাদের আত্মীক উপহারগুলি কোন উল্লেখ্যযোগ্য উপায়ে প্রয়োগ করার জন্য তাদের চ্যালেঞ্জ করা হয় না। যদি আমরা পশ্চিমে আন্দোলনগুলি হতে দেখতে চাই তাহলে এই দৃষ্টান্তটি পরিবর্তন করার জন্য আমাদের কার্য করতে হবে। আপনারা যারা আফ্রিকা বা এশিয়া থেকে রয়েছেন, এটি এমন একটি স্থান যেখানে আপনার শিশুদের শিষ্য নির্মাণকারী এক অকার্যকর পশ্চিমা মণ্ডলীর নমুণা গ্রহণ এড়ানো উচিত!

যুবকরা আমাদের মণ্ডলী এবং আন্দোলনের ভবিষ্যৎ। কিন্তু আমরা এটাও স্বীকার করি যে আমরা কেবল আমাদের বিপদেই তাদেরকে ভবিষ্যতেরূপে ভাবি। নিশ্চয়ই ঈশ্বর কিভাবে আন্দোলনের মধ্যে শিশু এবং যুবকদের ভিতরে, মধ্যে এবং মাধ্যমে কার্য করেছেন, তার আরও বহু কাহিনীগুলি বলার জন্য অপেক্ষারত, যদি কেবল আমরা তা করার জন্য সময় এবং প্রচেষ্টা গ্রহণ করি।

সেই লক্ষ্যে, আমি আপনাকে একটি প্রতিকূলতা দিতে চাই। আপনার নিজস্ব পরিচর্য্যাগুলিতে দেখুন। যারা আপনার আন্দোলনগুলির অংশ তাদের সাথে কথা বলুন। আপনার সহকর্মীরা যারা অন্যান্য আন্দোলনগুলির সাথে জড়িত তাদের জিজ্ঞেস করুন। শিশু এবং যুবকদের কাছে পৌঁছাতে, শিষ্য, প্রশিক্ষণ, এবং নেতা গড়ে তুলতে ঈশ্বর কি করছেন? এটি কিভাবে হচ্ছে? এটি কি তাঁর গৌরব এবং দেহের গঠন উভয়ের জন্য প্রচার যোগ্য নয় (আপনি যা শিখেছেন তা অন্যদের মাধ্যমে গ্রহণ এবং তা প্রয়োগ করছেন)?

যদি আপনিও তাই মনে করেন, আমাকে [email protected]–এ একটি ইমেল পাঠান। ঈশ্বর ইচ্ছুক, আমরা সুদূর ভবিষ্যতে “শিশু এবং আন্দোলনগুলি”-র উপর এক অনুবর্তী সমস্যা উৎপন্ন করতে পারি।

(1) https://www.dmmsfrontiermissions.com/children-teenagers-dmm/

(2) তথায়।

Categories
আন্দোলন সম্পর্কে

প্রার্থনা এবং আত্মীক যুদ্ধ

প্রার্থনা এবং আত্মীক যুদ্ধ

অত্যন্ত প্রস্তাবিত পুস্তক থেকে অনুমতি নিয়ে উদ্ধৃত

দ্য কিংডম অনলিস্ড: কিভাবে প্রভূ যীশুর প্রথম শতাব্দীর রাজ্যের মূল্যবোধ হাজার হাজার সংস্কৃতির মধ্যে রূপান্তর ঘটাচ্ছে এবং জেরী ট্রাউসডেল ও গ্লেন সানশাইন-এর দ্বারা তাঁর মণ্ডলীকে জাগিয়ে তুলছে৷

(কিন্ডল অবস্থান ২৩৯৯-২৪৬৯, “প্রচুর পরিমাণ প্রার্থনা” অধ্যায় ৯ থেকে)

শিষ্য নির্মাণকারী আন্দোলনগুলি কোন অনুষ্ঠান নয়, কোন কৌশল বা কোন পাঠ্যক্রমও নয়৷ সহজভাবে এটি একটি ঈশ্বরের আন্দোলন৷ তাঁর ব্যতীত, কিছুই নেই৷ সেই কারণেই শিষ্য নির্মাণকারী আন্দোলনগুলি সম্পর্কিত সমস্ত আলোচলা প্রার্থনা এবং উপবাসের সাথে শুরু হয়৷ আমাদের সার্বভৌম ঈশ্বর আবেগপ্রবণ হয়ে হারিয়ে যাওয়াদের তাঁর কাছে নিয়ে আসার জন্য অনুধাবন করছেন৷ প্রার্থনা এবং উপবাস আমাদেরকে তাঁর সাথে একত্রিত হতে অনুমতি প্রদাণ করে৷ যদি আমরা নিজেদের ক্ষমতা এবং নিজেদের সংস্থান অনুযায়ী অগ্রগমন করি তাহলে কোনও ফলাফল হবে না৷ ঈশ্বর বলেন, “আমাকে জিজ্ঞাসা করো, আর আমি জাতিগণকে তোমার অধিকার করব, পৃথিবীর শেষ প্রান্ত তোমার অধীনস্থ হবে।” এছাড়াও “তোমরা যেখানে যেখানে পা রাখবে, সেই সেই স্থান আমি তোমাদের দেব, যেমন আমি মোশির কাছে প্রতিজ্ঞা করেছিলাম… যেকোন সাফল্যতাপ্রাপ্ত মণ্ডলী স্থাপণ এবং শিষ্য নির্মানের পিছলে অনেক বেশী প্রার্থনা এবং অনেক বেশী উপবাস, অনেকগুলি জনুপাত, অনেক বেশী চোখের জল এবং অনেক বেশী ঈশ্বরের সম্মুখে কান্না থাকে৷ এখানেই বিজয় প্রাপ্ত হয় এবং যখন আপনি ক্ষেত্রে যান আপনি পরিনাম দেখতে পান৷

—ইউনৌসা জাও, এঙ্গেজ! আফ্রিকা ভিডিও সিরিজ

প্রার্থনা এবং আত্মীক যুদ্ধ

প্রার্থনা আত্মীক যুদ্ধের একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান যা আমরা প্রতিদিনই সম্মুখীন হই৷ কখনো এমন মনে হয়, যেই মুহূর্ত থেকে আমরা আমাদের চোখ খুলি এবং সংবাদ দেখার জন্য ফোন হাতে নিই রাতে শুতে যাওয়ার মুহূর্ত পর্যন্ত্য, সন্ধ্যেবেলার প্রার্থনার আগে সিনেমা দেখার জন্য সন্ধান করা, আমরা পাপের সাথে প্লাবিত— আত্মীক যুদ্ধ এতটাই সাধারণ যে আমরা কেবল এটিকে উপেক্ষা করতে পারি না, এমনকি আমরা এটিকে খুব কমই লক্ষ্য করি৷ উপরন্তু, গ্লোবাল নর্থের মণ্ডলী প্রায়ই পৈশাচিক ক্রিয়াকলাপের বাস্তবতাকে উপেক্ষা করে, কিন্তু গ্লোবাল সাউথের মণ্ডলীগুলি তা করতে পারে না৷

এক ব্যক্তি যাকে আমরা গোন্ডা বলি তিনি মধ্য আফ্রিকার দেশে একজন মণ্ডলী স্থাপক৷ তিনি ঈশ্বরকে মধ্য আফ্রিকায় অলৌকিক ফলাফল নিয়ে আসতে দেখেছেন, এবং তিনি কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে থেকে উদ্ধার পেয়েছেন এবং সমৃদ্ধ হয়েছেন৷ তিনি আমাদের বলেছিলেন যে তার কাছে চারটি নীতি রয়েছে যা তার পরিচর্য্যাকে আকার দিতে সাহায্য করেছেঃ ১) তার জন্য, সমস্তকিছুই নির্ভর করে প্রার্থনা, এবং ঈশ্বরের আওয়াজ শোনার উপর; ২) তিনি শান্তির ব্যক্তির সন্ধান করেন; ৩) যখন তিনি তাদের খুঁজে পান, তিনি ডিসকভারি বাইবেল স্টাডিসগুলির অনুঘটন করেন; ৪) এবং তিনি তার শিষ্যদের, অন্যান্য নেতাদের, ও নতুন মণ্ডলীদের প্রশিক্ষণ এবং পরামর্শ দেন যাতে তারা সকলেই নিজেদের পুনরুৎপাদন করে৷

গোন্ডা হান্তে নামের একটি শহরের কথা শুনে ছিল৷ এটি একটি মোটামুটিভাবে বন্ধ সম্প্রদায় ছিল যা পৈশাচিক উদ্দেশ্যে হত্যা এবং মনুষ্য রক্ত ও শরীরের অঙ্গগুলি অন্যান্য দেশগুলিতে রপ্তানীর জন্য এক ভয়াবহ ব্যবসায় জড়িত ছিল৷ শহরটি কোন অপরিচিতকে খুব ভালোভাবে সহ্য করতো না৷ এবং গোন্ডার গবেষণায় বলা হয়েছে যে কিছু লোকেরা সেই সম্প্রদায়ের যাত্রায় বেচেঁ ফেরেনি৷

সুতরাং গোন্ডা এই শহরের পক্ষ হয়ে ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করতে শুরু করলেন৷ তিনি ঈশ্বরের রাজ্যকে এই শহরে নিয়ে আসার ঝুঁকিটি জানতেন, কিন্তু ঈশ্বর তাকে এই প্রচেষ্টায় উৎসাহিত করেছিলেন, তাই একমাত্র করণীয় কার্যটি ছিল প্রার্থনা এবং বাধ্যতা— এবং আরও কিছু গবেষণা করা৷

তিনি শিখে ছিলেন যে, সম্প্রদায়ের প্রধান পূর্বপুরুষদের প্রতিমা পুজোয় অনেক বেশী গভীর ছিলেন যা তাকে একদল হাতির মাঝখানে প্রবেশ করার অলৌকিক ক্ষমতা দেয়, তারপরে তার সাহায্যকারীদের ডেকে আনে৷ লোকেরা তাকে এবং তার রহস্যময় ক্ষমতাকে ভয় করতো৷

গোন্ডা পথ নির্দেশের জন্য প্রার্থনা করেন এবং অপেক্ষা করেন৷

খুব শীঘ্রই, একজন খ্রীষ্টান মহিলার সাথে তার দেখা হয় যিনি হান্তে শহরেই থাকতেন৷ যেই মুহুর্তে তিনি সেই মহিলার সাথে সাক্ষাৎ করেন, তিনি অনুভব করেছিলেন যে, এটিই হলো প্রক্রিয়া শুরু করার প্রভূর স্পষ্ট আহ্বান৷ সেই মহিলা সেখানে সুসমাচারের সংযুক্তি দেখতে চেয়েছিল, কিন্তু তিনি চিন্তিত ছিলেন যে তার সম্প্রদায়ে অনেক বেশী চ্যালেঞ্জ৷ গোন্ডা সাত কিলোমিটার দুরে একটি গ্রামের সাথে প্রথমে শুরু করার একটি পরিকল্পনার সাথে এসেছিলেন৷ তিনি বিচার করলেন এটি একটি মঞ্চস্থ স্থান হতে পারে, হান্তে-র যথেষ্ট কাছে এলাকাটিকে উপলব্ধি করতে এবং চারিদিকে প্রার্থনা চলনের জন্যও৷

পরিশেষে, এক শনিবার দুপুরে, তিনি দুইজন যুবক শিষ্যদের যাদের তিনি প্রশিক্ষণ এবং পরামর্শ দিতেন সাথে নিয়ে “মঞ্চস্থ” গ্রামে, রাত কাটানোর প্রত্যাশা নিয়ে যাত্রা করলেন৷ কিন্তু পথে এক প্রাক্তন পাষ্টারের সাথে তাদের সাক্ষাৎ হয়, এবং যখন তিনি তাদের উদ্দেশ্য জানতে পারলেন, তখন তিনি তাদের সরাসরি হান্তে, লক্ষ্য নির্ধারিত গ্রামে নিয়ে যাওয়ার জন্য জোর দিলেন৷ গোন্ডা বুঝতে পেরেছিল যে সেই পাষ্টার একজন শান্তির ব্যক্তি যিনি গ্রামবাসীদের সাথে তাদের পরিচয় করাতে পারে, তাই তিনি পরিকল্পনার পরিবর্তন করতে সম্মত হন৷

যখন ক্লান্ত পুরুষেরা হান্তে-তে প্রবেশ করলো তখন অন্ধকার ঘনিয়ে এসেছিল— এবং এটি একেবারে নিরাপদ বোধ হচ্ছিল না৷ কিন্তু এটি তাদের সাহায্যের আশ্বাস দিচ্ছিল যে ইতিমধ্যেই গ্রামে পরিচিত কেউ তাদের সাথে আছে, বিশেষ করে যখন পাষ্টার বললেন যে তার বন্ধুরা কাহিনীকার ছিল যারা সৃষ্টিকর্তা ঈশ্বরের কাহিনী বলতো৷

ইতিমধ্যেই রাত ১০:০০টা হয়ে গিয়েছিল, কিন্তু যেই লোকেরা অপরিচিতদের সমূহকে প্রবেশ করানোর জন্য প্রথমে জমায়েত হয়েছিল, এখন তারা তাদের কাহিনী শোনানোর জন্য জোর দেয়; তারপরই তারা নির্ণয় নিবে যে তারা সেখানে থাকতে পারবে কি না৷ বাসিন্দারা আগুন জ্বালায় এবং সেই লোকেরা বাইবেলের কাহিনী কলতে শুরু করে, সৃষ্টির সাথে শুরু করে এবং পুরানো নিয়মের মহান বর্ণনার মধ্য দিয়ে এবং সুসমাচারগুলির মধ্য হয়ে, সর্বোপরি লোকেদের বুঝতে সময় দিয়েছিল যে যদি এটি সত্য হয় তাহলে এর অর্থ কি হতে পারে৷ এমনকি কখনো কখনো গোন্ডা আরাধনার গান গাইতো এবং লোকেরা নাচতে শুরু করতো৷ এবং এমন ভাবেই কয়েক ঘন্টা চলে৷ প্রায় ভোর দু’টার সময় লোকেরা আগুন নিভাতে শুরু করে— কিন্তু ঘুমানোর জন্য নয়৷ তারা ছুটে গিয়ে তাদের পরিবারদের উঠানোর জন্য যাতে তারা এসে তাদের অদ্ভুত কাহিনীগুলি শোনে৷

অবশেষে, প্রায় ১৫০জন লোক আগুনের চারপাশে জড়ো হয়ে বাইবেলের ঐতিহাসিক কাহিনীগুলি শুনছিল৷ গোন্ডা কখনোই আশা করেনি যে লোকেরা গল্প শোনার জন্য সারা রাত জেগে থাকবে, কিন্তু তিনি এবং তার শিষ্যরা এই বিস্ময়কর উন্নয়নের জন্য শিহরিত ছিলেন৷

পরে, লোকেরা প্রতিবেদন করেছিল যে তারা মৃত্যুর ভয়ের কারণে সারারাত জেগেছিলেন, এবং পরমেশ্বরের এই কাহিনীগুলি তাদের হৃদয়ে অনুরণিত হয়েছিল৷ সমূহের মধ্যে কিছু পরিবার ছিল যাদের পূর্বপুরুষেরা জঘন্য কার্য করেছিল এবং তাদের মধ্যে অনেকে এখনও এইসব করছে৷ তারা অভিশপ্ত এবং ভীত অনুভব করছিল, কিন্তু তারা কাহিনীগুলি প্রতি আগ্রহী ছিল— প্রায় যেন কাহিনীগুলি তাদের আশা এবং পরিত্রাণের প্রথম জীবনরেখা ছিল যা তারা কখনও পায় নি৷ যখনও এমন মনে হতো যেন গল্প শেষ হতে পারে, এই পরিবারগুলি জোর দিত যাতে পুরুষেরা কাহিনী বলা চালিয়ে যান৷

রাতে, এক হাতি শিকারী (যিনি গ্রামের প্রধানও ছিলেন) অসুস্থ হয়ে পড়েন৷ তিনি এক স্থানীয় চৈতন্যবাদী পুরোহিতের কাছে গিয়েছিলেন কিন্তু সেখানে প্রধানের জন্য কোনো রকম সাহায্য ছিল না৷ তিনি জানতেন শহরে কিছু চলছিল কিন্তু সেই বিষয়ে যাচাই করার জন্য তিনি অত্যন্ত দুর্বল ছিলেন৷ শিষ্য নির্মাণকারীদের শহরের প্রধানের অসুস্থ্যতার কথা বলা হয় এবং তারা জানত যে তাদের গিয়ে প্রধানের জন্য প্রার্থনা করা উচিৎ, যাতে তিনি জানতে পারেন যে তার প্রতিমা পুজোর চেয়ে মহান শক্তি বিদ্যমান৷ ঈশ্বরের অনুগ্রহে, তার পাশে শিষ্য নির্মাণকারীদের দ্বারা, তিনি এক তাৎক্ষনিক সুস্থতা অনুভব করলেন, এবং ভোরের কাহিনী বলার সময় উপস্থিত থাকার জন্য মনস্থ করলেন৷ 

বাইবেলের কাহিনী বলা ভোরবেলা বা দুপুরেও শেষ হয় নি— এটি দুপুর তিনটে পর্যন্ত্য চলেছিল— সতেরো ঘন্টা বাইবেলের কাহিনী বলা সৃষ্টি থেকে শুরু করে প্রভূ যীশুর স্বর্গারোহন পর্যন্ত্য৷ সেই পুরো সময় ধরে, শিষ্য নির্মাণকারীদের দলটি বিস্মিত হয়েছিলেন যে লোকেরা বিরতিহীন ঐতিহাসিক বাইবেল অধ্যয়নের জন্য এতো বেশী সময় এবং শক্তি দিতে আগ্রহী ছিল৷ 

সংলাপ এবং ডিসকভারি বাইবেল অধ্যয়ণ দুই সপ্তাহ ধরে চলে, যার পরে, সেই প্রধান এই সম্প্রদায়ের প্রথম খ্রীষ্টিয় অনুসারী হন৷ তিনি শহরের এক সমাবেশ ডেকে, তার প্রতিমা পুজোসহ অনেক পাপ স্বীকার করেন, তার সমস্ত গুপ্ত যন্ত্র বের করেছিলেন এবং বাপ্তিস্ম নেওয়ার আগে সমস্তকিছু ধ্বংস করে দিয়েছিল৷ তারপরেই আরো চল্লিশ জন বাপ্তিস্ম গ্রহণ করে, এবং সেই গ্রামে একটি মণ্ডলীর জন্ম হয়৷ অবশেষে, ২৮০জন লোকেরা বাপ্তিস্ম গ্রহণ করেছিল৷ তারপর সেই প্রধান অঞ্চলের অন্যান্য গ্রামে যাত্রা করে তাদের প্রেমময় সৃষ্টিকর্তা ঈশ্বর যিনি আরোগ্যতা দেন, ক্ষমা করেন, এবং মানুষের হৃদয় পরিবর্তন করেন৷ আশ্চর্যজনকভাবে, প্রতিটি সাক্ষাতের সাথে, আরো নতুন মণ্ডলী স্থাপত হচ্ছিল৷

গোন্ডা প্রতিবেদন দিয়েছিল যে, নতুন শহরে, লোকেরা কেন খ্রীষ্ট অনুসারী হয়েছিল তার ব্যাখ্যা করতে শুরু করে, সহজভাবে কথিত, “আমরা সৃষ্টিকর্তা ঈশ্বরের সন্ধান পেয়েছি যিনি অতি শক্তিশালী!” শহরের মধ্যে, খ্রীষ্ট অনুসারী অনবরত বৃদ্ধি পেতে থাকে এবং আরো বেশী প্রার্থনার উত্তর এবং প্রভূ যীশুর প্রেমের প্রমাণে সমৃদ্ধ হতে থাকে৷ কয়েক মাস পরে, এক বিদ্রোহী যুদ্ধের কারণে সমস্ত গ্রামবাসী, যাদের মধ্যে অনেকেই খ্রীষ্ট অনুসারী হয়েছিল, নিরাপত্তার জন্য অন্য বড় শহরে স্থানান্তরিত হতে হয়৷

একটি উল্লেখ্যযোগ্য বিশদ ছাড়া, কাহিনীটি এখানেই শেষ হয়৷ যে শহরে দলটি আসলে এক মঞ্চস্থ এলাকা হিসাবে ব্যবহার করতে চেয়েছিল, সেখানে একটি বড় মন্দির ছিল যা সেই শহরের দেবীকে উৎসর্গ করা হয়েছিল— এক নৃশংস উপস্থিতি যে, বাসিন্দারা বিশ্বাস করতো, মন্দিরের কাছে এলে সময় পর্যায়ক্রমে লোকেরা মারা যেত৷ সেই পাষ্টার যার সাথে সমূহের পথে দেখা হয়েছিল, যেই পুরুষটি  হান্তে-তে প্রথম প্রবেশ করার জন্য তাদের শান্তির ব্যক্তি হয়েছিলেন— সেই পাষ্টার ঈশ্বর এই অঞ্চলে যা করেছিলেন তার দ্বারা উজ্জীবিত হয়েছিলেন, এবং তিনি তিন দিন উপবাস ও প্রার্থনায় সময় কাটিয়েছিলেন৷ তারপর, এক সোমবার সকাল আট-টায়, তিনি “মঞ্চস্থ এলাকা” শহরের কেন্দ্রে হেঁটে যান— এবং তিনি ব্যক্তিগতভাবে মন্দিরটি পুড়িয়ে দেন৷ অধিকাংশ বাসিন্দারা নিশ্চিত ছিলেন যে তিনি হয়তো মারা যাবেন, কিন্তু তিনি জীবিত ছিলেন৷

সেই ঘটনার জন্য ধন্যবাদ, ঈশ্বরের ক্ষমতার দ্বারা হান্তের নিরন্তর প্রার্থনার মাধ্যমে, দেবীর উপাসনা হ্রাস পাওয়া মাত্র, খ্রীষ্ট অনুসারীদের মধ্য গতিবেগ বৃদ্ধি পেয়েছিল৷ 

 

শয়তানের রাজ্যের ধ্বংস

এই কাহিনীটি ব্যাখ্যা করে যে প্রভূ যীশুর পরিচর্য্যা কোন নতুন দর্শন বা ধর্ম প্রদান করে না; এটি শয়তানের রাজ্য ধ্বংস করার জন্য ছিল৷ প্রভূ যীশু ফরীশীদের সাথে তাঁর একটি সংলাপ এই কথাগুলি দিয়ে সমাপ্ত করেছিলেনঃ “আবার, কীভাবে কেউ কোনো শক্তিশালী ব্যক্তির গৃহে প্রবেশ করে তার ধনসম্পত্তি লুট করতে পারে, যতক্ষণ না সেই শক্তিশালী ব্যক্তিকে বেঁধে ফেলে? কেবলমাত্র তখনই সে তার গৃহ লুট করতে পারবে” (মথি ১২:২৯)৷ এটি প্রভূ যীশুর অভিপ্রায় ছিল শয়তান এবং তার চাটুকারদের ধ্বংস করা, এবং রাজ্যের লোকেরা যেন অন্যদের অন্ধকার থেকে উদ্ধার করে ঈশ্বরের রাজ্যের জনসংখ্যা বৃদ্ধি করে৷

Categories
আন্দোলন সম্পর্কে

সংখ্যাবৃদ্ধিকারী আন্দোলনগুলি – আরম্ভ এবং ক্রুশ পরাগায়ন, ভাগ ২

সংখ্যাবৃদ্ধিকারী আন্দোলনগুলি – আরম্ভ এবং ক্রুশ পরাগায়ন, ভাগ ২

বেন্নী দ্বারা লিখিত –

গ্লোবাল অ্যাসেম্বলি অফ পাষ্টার্স ফর ফিনিশিং দ্য টাস্ক এর জন্য একটি ভিডিও থেকে গৃহিত

এই ব্লগের প্রথম ভাগে, আমি বলেছিলাম তিনটি পর্যায় এবং চাবিকাঠিগুলি যা প্রভূ আমাদের আন্দোলনগুলির মধ্যে সংখ্যাবৃদ্ধির চক্রকে উৎসাহিত করার জন্য ব্যবহার করেছিলেন৷ এই পোস্টে, আমি বলতে চাই…

আন্দোলন সংখ্যাবৃদ্ধিতে সমর্থনকারী তিনটি কারণ

কোন কারণগুলি আন্দোলনের সংখ্যাবৃদ্ধিতে সমর্থণ করে? আমি তিনটি কারণ উল্লেখ করবোঃ নিদর্শণ, সম্ভাব্য এবং নেতাদের দল৷ প্রথমটি, নিদর্শণ৷ সাধারণ নিদর্শণ৷ নিদর্শণ যা শেখানো হয়েছে এবং বারংবার পুনরাবৃত্তি হয়েছে৷ নিদর্শণ যেগুলি পরবর্তী প্রজন্মের বিশ্বাসীদের দ্বারাও অনুকরণ করা হয়৷ ঈশ্বরের বাক্যে, আমরা প্রায়ই দেখি যে প্রভূ যীশু একটি নমুণা সৃষ্টি করেছেন যা তিনি পুনরাবৃত্তি করেন, তারপর সেই একই ভাবে তাঁর শিষ্যদেরও শেখান৷ পৌল, প্রভূ যীশুর এক প্রেরিত বলেছিলেনঃ “আমার আদর্শ অনুকরণ করো, যেমন আমি খ্রীষ্টের আদর্শ অনুকরণ করি।” আন্দোলনের নেতাদের তাদের পরিচর্য্যা কার্যকররূপে করার জন্য স্পষ্ট নিদর্শনের প্রয়োজন৷ তাদের নিদর্শনের প্রয়োজন তারা নেতাদের পরবর্তী প্রজন্মে স্থানান্তরিত করতে পারেন৷ নিদর্শণ একটি আন্দোলনকে সঠিক পথে টিকে থাকতে সাহায্য করে৷ এটি বাইবেল থেকে শিক্ষার বিশুদ্ধতা বজায় রাখার জন্য বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ৷ 

আমরা গবেষণা করে নিদর্শণ আবিষ্কার করি, তারপর সীমিত সময়ের জন্য বিভিন্ন প্রসঙ্গে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করি৷ তারপর আমরা নিদর্শনের কার্যকারিতাকে মূল্যায়ণ করি৷ আমরা লোকেদের এমন নিদর্শনে প্রশিক্ষণ প্রদান করি যা উপকার প্রমাণিত, যাতে তারা অন্যান্য এলাকায় ব্যবহৃত হতে পারে৷

একটি অতি সাহায্যকারী নিদর্শণ হলো ফল গতিপথ অনুসরণ (যাকে আমরা “ডিম ব্যবস্থাপনা” বলি কারণ চার্টের বৃত্তগুলি ডিমের মতো দেখতে)৷ আমরা নেতাদের কিভাবে তাদের ফলের গতিপথ অনুসরণ করতে হবে তার প্রশিক্ষণ প্রদাণ করিঃ তাদের ফলের তথ্য এটি আদর্শ বিন্যাসে লেখার জন্য৷ প্রত্যেক ত্রৈমাসিকে আমরা নেতাদের কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহ করিঃ সাম্প্রতিক প্রজন্মের নেতাদের থেকে সর্বোচ্চ প্রজন্ম পর্যন্ত্য৷ আমরা এই নেতাদের আদর্শ তথ্যের মধ্যে কয়েকটি সূচক বিশ্লেষণ করতে প্রশিক্ষণ এবং পরামর্শ প্রদাণ করি৷ এটি তাদের নেতৃত্বকে উন্নত করতে সাহায্য করে৷

সংখ্যাবৃদ্ধিকারী আন্দোলনগুলির দ্বিতীয় কারণটি হলো সম্ভাব্য আন্দোলনের নেতাদের মুখোমুখি হওয়া প্রতিকূলতাগুলির মধ্যে একটি হলো লোকেদের সবচেয়ে সম্ভাবনাময় ব্যক্তির সন্ধান এবং তাদের উৎপাদনশীল ও কার্যকর হওয়ার জন্য বিকাশ করা৷ এই কারণে আমাদের শান্তির ব্যক্তির সন্ধানে আগ্রাসী হতে হবে, যারা তাদের সামাজিক যোগাযোগগুলিতে প্রবেশাধিকার দিতে পারে৷ এবং একটি আন্দোলনে প্রয়োজনীয় নেতৃত্বের ভুমিকা পূরণের জন্য সম্ভাবনাময় ব্যক্তির সন্ধানে আমাদের আগ্রাসী হতে হবে৷ আমি আন্দোলনে কমপক্ষে ১২টি ভিন্ন ভূমিকাগুলির আবিষ্কার করেছিঃ 

১) নেতারা যারা তাদের উপর অর্পিত নেতৃত্বের দায়িত্ব পালন করেন৷

২) বিভিন্ন পেশা এবং সামাজিক অবস্থা থেকে আগত প্রেরিত প্রতিনিধি, যারা নতুন এলাকাগুলিতে আন্দোলনের ডিএনএ বহন করে এবং আন্দোলনগুলি শুরু করে৷ 

৩) এমন গবেষকেরা যারা গবেষণা করে এবং তারা যা আবিষ্কার করেছে তা বিশ্লেষণ করেন৷

৪) পরামর্শদাতা এবং বিজ্ঞ পরামর্শদাতারা যারা অন্যদের সাথে তাদের সমস্যার উত্তর খুঁজতে সাহায্য করার জন্য তাদের সাথে আসেন৷

৫) সুবিধাভোগীরা যারা বিভিন্ন সম্প্রদায়ের উন্নয়নের কার্যক্রমগুলিতে সমন্বয় সাধন করেন৷

৬) আত্মীক শিক্ষকেরা যারা ঈশ্বরের বাক্যকে প্রেম করেন এবং এর আত্মীক নীতিগুলি আবিষ্কার এবং প্রচার করেন৷ তারা অন্যদেরকে তাদের জীবন বাক্যানুসারে যাপন করতে আহ্বান করেন৷

৭) প্রশিক্ষক যারা অন্যদেরকে তাদের দক্ষতা উন্নত করতে সাহায্য করেন৷

৮) প্রশাসক যারা বিভিন্ন ধরনের প্রশাসনিক কার্য পরিচালনা করেন৷

৯) মিডিয়া নির্মাতারা যারা মিডিয়ার বিষয়বস্তু তৈরীতে কল্পনাপ্রবণ, সৃজনশীল, এবং উদ্ভাবনী৷

১০) দাতা যারা আর্থিক সহায়তা বা অন্যান্য ধরনের সংস্থান সরবরাহ করেন৷

১১) মধ্যস্থকারীরা যারা প্রার্থনায় সময় এবং মনোযোগ উৎসর্গ করেন৷

১২) অনুঘটকেরা যারা বিভিন্ন নেটওয়ার্কের মধ্যে লোকেদের সংযুক্ত করেন৷

আমি প্রেরিত প্রতিনিধিত্বকারীর ভূমিকার বিশেষ ব্যাখ্যা করতে চাই৷ এই প্রেরিত বরদান বিশিষ্ট একজন ব্যক্তি কোন আন্দোলনকে অন্য কোন সুসমাচার অপ্রাপ্ত জনগোষ্ঠীর মধ্যে প্রসারিত করতে পারে৷ তারা মিশ্র-সাংস্কৃতিকভাবে বসবাস করতে পারে, আন্দোলনের ডিএনএ-কে বুঝতে পারে, এবং একটি নতুন সাংস্কৃতিক প্রেক্ষাপটে আন্দোলনের গতিবিদ্যাকে প্রয়োগ করতে পারে৷

আপনার আত্মীক পরিচর্য্যায় সমর্থনকারী বিভিন্ন বহুমুখী সাম্প্রদায়িক উন্নয়নমূলক অনুষ্ঠানগুলি প্রয়োগ করার ক্ষেত্রেও আপনাকে আগ্রাসী হতে হবে৷ আপনি কি এমন ব্যক্তি খুঁজে পেয়েছেন যে আপনার আন্দোলনের মধ্যে এই ধরনের ভূমিকাগুলি পূরণ করতে পারে? তাদেরকে সর্বাধিক করার জন্য আপনি কি করবেন? যারা এই ভূমিকাগুলি পালন করবে তাদের সাথে কাজ করে কি লাভ হবে?

সংখ্যাবৃদ্ধিকারী আন্দোলনের তৃতীয় কারণটি হলো নেতাদের দল৷ আন্দোলন অগ্রগতির মেরুদণ্ড হলো একাধিক দলে নেতৃত্বের সম্ভাবনাকে সর্বাধিক করা৷ শুরু থেকেই আপনার নেতাদের একত্রে বয়ন করার জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করা, তাহলে তাদের মধ্যে এক শক্তিশালী ভ্রাতৃত্বের বন্ধন গড়ে তোলা৷ ভ্রাতৃত্বের বন্ধন প্রথম প্রজন্ম থেকে তৃতীয় প্রজন্মের নেতাদের সাথে শুরু হয় প্রত্যেক গুচ্ছের (১০ বা ১৫টি গোষ্ঠী) একটি নেতার গোষ্ঠী গঠনের জন্য৷ এরপরে প্রতিটি ক্ষুদ্র অঞ্চলে (৩ বা একাধিক গুচ্ছগুলি) নেতাদের গোষ্ঠী গঠনের জন্য গুচ্ছের নেতাদের মধ্যে একটি ভ্রাতৃত্বের বন্ধন গড়ে তোলা হয়৷ যেহেতু আন্দোলন ভৌগলিকভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং ফলের পরিমাণ বাড়ছে, আপনাকে একটি বিস্তৃত অঞ্চলে (৩ বা ততোধিক ছোট অঞ্চলে) এক নেতাদের গোষ্ঠীর মধ্যে শীর্ষস্থানীয় নেতাদর গঠন করতে হবে৷ প্রথমে হয়তো আপনার নেতাদের বৈঠকগুলিতে স্পষ্ট কর্মসূচী নাও থাকতে পারে, কিন্তু অবশেষে নেতাদের অবশ্যই প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে সচেতন হতে হবে যা প্রতিটি বৈঠকে অবশ্যই সমাধান করতে হবে৷

নেতাদের গোষ্ঠীর কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছেঃ 

  • প্রার্থনা
  • সাতটি প্রশ্ন প্রয়োগ করে, ঈশ্বরের বাক্যের অধ্যয়ণ
  • পরিচর্য্যা উন্নয়ণ এবং তাদের সম্মুখিত প্রতিকূলতাগুলি বিষয়ক কাহিনীগুলি বলা
  • তারা যেই পরীক্ষা-নিরীক্ষাগুলির চেষ্টা করছে এবং তাদের ফলাফল সম্পর্কে উপস্থাপনা প্রদাণ
  • একত্রে কৌশলগত পরিকল্পনা
  • নেতাদের কোন বর্তমান প্রতিকূলতাকে সম্বোধনে সাহায্য করতে প্রশিক্ষণ চক্রের প্রয়োগ 
  • আপনি যা উদযাপন করতে পারেন তা উদযাপন করা৷
  • যেই নেতারা দুঃসংবাদ শুনিয়েছে তাদের প্রতি সহানুভুতি প্রদাণ৷
  • নেতাদের বৈঠকের শেষে তাদেরকে একটি প্রতিকূলতা প্রদান করুন৷ (উদাহরণস্বরূপ, পরবর্তী তিন মাসে তিনটি নতুন এলাকায় মাটি ভাঙার চেষ্টা করুন৷)

গুচ্ছ, ছোট অঞ্চল, এবং বিস্তৃত অঞ্চল পর্যায়ে নিয়মিতভাবে নির্ধারিত নেতাদের গোষ্ঠীর বৈঠকগুলি গ্রীনহাউসে পরিণত হওয়া উচিৎ৷ একটি আন্দোলনের উপর নেতাদের গোষ্ঠীর গ্রীনহাউসটি অন্যান্য সুসমাচার অপ্রাপ্ত জনগোষ্ঠীর (বা এমনকি অন্য কোন দেশে) মধ্যে নতুন আন্দোলনগুলি জন্ম দেওয়ার সম্ভাবনার সাথে আন্দোলনের ডিএনএ-কে স্থাপণ করে৷ নেতাদের বৈঠক নেতাদেরকে একে অপরকে তীক্ষ্ণ এবং ক্ষমতায়ণ করতে সাহায্য করে৷ নেতাদের গোষ্ঠী আপনার নেতাদের ক্ষমতা বৃদ্ধি এবং বিকাশের স্থান হয়ে ওঠে৷

 

আপনার পরিচর্য্যায় অন্যদের সাথে আলোচনার জন্য প্রশ্ন

নিদর্শণঃ

১) ভালো নিদর্শণ আবিষ্কার করতে আপনি কোন সমস্যার সম্মুখীন হন?

২) স্থানীয় নেতারা কি পরবর্তী প্রজন্মের মধ্যে ভালো নিদর্শণগুলি প্রতিলিপি করে?

৩) আপনার পরিচর্য্যার কোন নিদর্শণগুলির সবচেয়ে কার্যকর এবং ফলপ্রসূ?

৪) স্থানীয় নেতাদের এখনও কোন ধরনের নিদর্শণের প্রয়োজন?

 

আপনার নেতৃত্ত্ব দলের সম্ভাব্যঃ

৫) আপনার বলয় ১-এ কে আছে (আপনি যে শীর্ষ নেতাদের উপর নির্ভর করেন)? আপনি কিভাবে আপনার বলয় ১-এর নেতাদের সর্বোচ্চ করবেন?

৬) উল্লেখিত বারোটি ভূমিকার মধ্যে, কোন ভূমিকাটি আপনার বলয় ১-এর নেতাদের দ্বারা করা হচ্ছে? কোন ভূমিকাটি তাদের দ্বারা করা হচ্ছে না? এই ভূমিকাগুলি পালনকারীদের সন্ধান করতে আপনি কি করবেন?

 

নেতাদের দলঃ 

৭) কোন নেতৃত্বের নমুণা আপনার পরিচর্য্যার মতো অধিক শোনাচ্ছে?

  1. কেন্দ্রীভূত নেতৃত্বঃ এক বা একাধিক শীর্ষ নেতারা অধিকাংশ পরিচর্য্যার জন্য দায়ী৷
  2. প্রচারিত নেতৃত্বঃ একজন শীর্ষ নেতা এক সীমিত সংখ্যক ব্যক্তি এবং সমস্যার জন্য দায়ী৷ তিন বা ততোধিক নেতারা নেতৃত্বের দলে দায়িত্বগুলি ভাগ করে নেয়৷ একাধিক নেতৃত্ব দলগুলি ভিন্ন এলাকা এবং প্রজন্মগুলির উপর থাকে৷

৮) কিভাবে এই দুটি ভিন্ন নমুণাগুলি যেভাবে নেতৃত্ব হয় তাকে প্রভাবিত করে? কিভাবে আন্দোলনের সম্প্রসারণ প্রত্যেক নমুণার দ্বারা প্রভাবিত হয়?

৯) কোন উপায়ে নেতাদের দলগুলি গ্রীনহাউস হিসেবে কার্য করে যা আন্দোলনের ডিএনএ-কে নতুন সুসমাচার অপ্রাপ্ত জনগোষ্ঠীর মধ্যে স্থানান্তর করে?

Categories
আন্দোলন সম্পর্কে

সংখ্যাবৃদ্ধিকারী আন্দোলনগুলি – আরম্ভ এবং ক্রুশ পরাগায়ন, ভাগ ১

সংখ্যাবৃদ্ধিকারী আন্দোলনগুলি – আরম্ভ এবং ক্রুশ পরাগায়ন, ভাগ ১

বেন্নী দ্বারা লিখিত –

আমি জানাতে চাই কিভাবে একটি আন্দোলন এক সুসসমাচার অপ্রাপ্ত জনগোষ্ঠীর মধ্যে নিজের সংখ্যাবৃদ্ধি করেছিল, এবং কিভাবে সেই আন্দোলন, স্থানীয় বিশ্বাসীদের নেতৃত্বে, আরও কতকগুলি অন্যান্য সুসমাচার অপ্রাপ্ত লোকেদের মধ্যে সংখ্যাবৃদ্ধি করে৷ প্রায় নয় বছর আগে, আমি এক সুসমাচার অপ্রাপ্ত জনগোষ্ঠীর মধ্যে গবেষণা এবং প্রার্থনা গমনের জন্য যাত্রা করেছিলাম৷ যখন আমি প্রথমবার এই গোষ্ঠীর সাথে সাক্ষাৎ করি, তাদের মধ্যে কোন রকম বিশ্বাসী, কোন রকম কর্মী ছিল না৷ তিন বছর পর, আমি একটি রেস্তোরাঁয় এক মধ্যবয়স্ক জেলের সাথে দেখা করি৷ তিনি একটি বিষয়ে কথা তুললেন যা ছিল এক স্থানীয় ওঝার দ্বারা দুষ্ট আত্মার শক্তি এবং কালা জাদুর প্রয়োগ৷ বেশ কিছু অস্বাভাবিক মৃত্যুর পর থেকে অনেকেই ভয়াক্রান্ত ছিল৷ আমি তার কাহিনীটি মন দিয়ে শুনি, তারপর আমি বললামঃ “আমাদের সকলকে আসেপাশে এক রক্ষকের প্রয়োজন, যিনি আমাদের নিরাপদ এবং শান্তিতে জীবন ব্যতীত করতে সাহায্য করতে পারেন৷”

তিনি উত্তর দিলে, “ওহ হ্যাঁ! আমি অবশ্যই সেই বক্তব্যের সাথে একমত!”

তারপর আমি তাকে জিজ্ঞেস করিঃ “আপনি যদি মনে করেন যে এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, তাহলে আপনার কি আপত্তি করবেন আমরা যদি আমাদের আলোচনাটি পরে আপনার বাড়িতে চালিয়ে যাই? আপনার অন্য কোনো বন্ধু আছে যারা এই বিষয়ে আগ্রহী, যারা হয়তো আমি যখন আসবো তখন একত্রে এই বিষয়ে কথা বলতে চাইবে?

তিনি উত্তর দিলেন, “নিশ্চই! অনুগ্রহ করে আমার বাড়িতে আসুন৷”

সুতরাং আমরা অন্য দিন তার বাড়িতে সাক্ষাৎ করার দিন নিশ্চিত করি৷ আমি তার বাড়িতে দুই দিন ছিলাম, এবং তার বাড়িতে আলোচনা করতে আসার জন্য তার কাছে আরো চারজন ব্যক্তি ছিল৷ তারা সেই এলাকায় বসবাসকারী বিভিন্ন জাতিগত গোষ্ঠী থেকে ছিল৷ আমরা এক শক্তিশালী রক্ষক হিসাবে ঈশ্বরের বিষয়বস্তুর সাথে, আমাদের শুরু করা আলোচনা অব্যাহত রাখি৷ আলোচনায় নির্দেশনার জন্য সাতটি প্রশ্ন ব্যবহার করে, আমরা গীতসংহিতা থেকে অধ্যয়ণ করি৷ প্রথম বৈঠক থেকে তাদের উপসংহারটি ছিল যে দুষ্টাত্মা এবং কালো জাদুর প্রত্যেক আক্রমন থেকে ঈশ্বর জয়লাভ করতে সক্ষম৷ এবং ঈশ্বর যে কোন ব্যক্তিকে রক্ষা এবং নিরাপত্তার অনুভুতি প্রদান করতে সক্ষম৷

পরের দিন, আমাদের দ্বিতীয় বৈঠকে, আমরা বিষয়বস্তুর অধ্যয়ন করলামঃ “ঈশ্বরই চূড়ান্ত আশীর্বাদের উৎস৷” আমরা ভাববাদীদের দেওয়া এই আশীর্বাদের কাহিনীটির পরীক্ষা করেছিলাম৷ তারা উপসংহারে এসেছিল যে ঈশ্বর চান সকল মানুষ যে চূড়ান্ত আশির্বাদ লাভ করেঃ এই জীবনের জন্য এবং অন্তিম বিচারে পরিত্রাণ লাভ৷ যখন আমাকে সেই শহর থেকে ফিরে আসতে হয়েছিল, আমি আমাদের আলোচনা দীর্ঘ-দুরত্বে অব্যাহত রাখার প্রতিশ্রুতি করেছিলাম৷ আমি সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে তাদের সাথে উপাদান বন্টন করতে থাকি৷ 

আমার উত্থাপিত বিষয়টি ছিল “ঈশ্বর পাপীদের প্রেম করেন৷” তারা একত্রে সম্মতির দ্বারা এই আলোচনার প্রতি প্রতিক্রিয়া জানালেন যে ঈশ্বর অনুগ্রহের দ্বারা পরিত্রাণ, এবং মসীহ যীশুর কৃত কার্যের মাধ্যমে প্রকৃত ক্ষমা উপলব্ধ করে দিয়েছেন৷ তাদের আলোচনা সমাপ্ত করার পর, তারা তৎক্ষনাৎ যা শিখেছিলেন তা বলতে শুরু করলেনঃ তদের পরিবার, তাদের বন্ধু-বান্ধব, এবং তাদের প্রতিবেশীদের সাথে৷ এছাড়াও তারা সাতটি প্রশ্নগুলি প্রয়োগ করে আরো অনেক বেশী ছোট ছোট আনুষ্ঠানিক আবিষ্কারী গোষ্ঠীগুলি গঠন করতে শুরু করে৷

দীর্ঘ কাহিনী সংক্ষিপ্তসারঃ দুই বছর পর, তারা আমাকে কথা পাঠিয়েছিল যে ইতিমধ্যেই তারা প্রজন্মের গোষ্ঠীতে পৌঁছে গেছে৷ এছাড়াও তারা তৃতীয় এবং চতুর্থ প্রজন্মের আবিষ্কারী গোষ্ঠীর সংখ্যাবৃদ্ধির সাথে দুইটি অন্য সুসমাচার অপ্রাপ্ত জনগোষ্ঠীর মধ্যে পৌঁছে গেছে৷ 

সংখ্যাবৃদ্ধিকে সমর্থনকারী তিনটি পর্যায়

আমরা কিভাবে কোন আন্দোলনে সংখ্যাবৃদ্ধির চক্রকে উৎসাহিত করবো? আমার অভিজ্ঞতায়, সংখ্যাবৃদ্ধির চক্রকে তিনটি পর্যায় সমর্থন করে৷ প্রথমটি হলো সুসমাচার অপ্রাপ্তদের কাছে পৌঁছানো৷ দ্বিতীয়টি হল আবিষ্কারী গোষ্ঠী যা  আন্দোলনগুলির সংখ্যাবৃদ্ধিকে উৎসাহিত করে৷ তৃতীয়টি হলো ক্ষমতায়ণ যা একাধিক নেতাদের দলগুলিতে নেতৃত্বকে সর্বোচ্চ করে৷ 

প্রথম পর্যায়ঃ সুসমাচার অপ্রাপ্তদের কাছে পৌঁছানো

সুসমাচার অপ্রাপ্তদের কাছে পৌঁছানোর প্রথম চাবিকাঠিটি হল সর্বেক্ষণ ভ্রমণ৷ আমি নতুন ক্ষেত্র উন্মুক্ত করতে আসক্ত৷ যেমন আমি আমার কাহিনীতে আগে উল্লেখ করেছি, আমি এক সুসমাচার অপ্রাপ্ত ব্যক্তির সাথে দেখা করেছিলাম, যিনি আমার কাছে সম্পূর্ণরূপে অপরিচিত৷ তারা এক ভিন্ন ভাষায় কথা বলে, ভিন্ন ঐতিহ্যের অনুসরণ করে, এবং ভিন্ন ধরনের খাবার খায়৷ কয়েকটি অনুশীলন এই ধরনের প্রচারের ক্ষেত্রে ফলপ্রসূ প্রমাণিত হয়েছে৷ প্রথমত সুসমাচার অপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের জন্য প্রার্থনা এবং পরিদর্শন করা৷ এর জন্য আমাদের প্রার্থনা দলের পাশাপাশি ব্যক্তিগত প্রার্থনার প্রয়োজন৷ আমি এক গবেষণা প্রকল্প করতে এক স্বল্প-মেয়াদী দলের জন্য পরিকল্পনা করেছি৷ স্বল্প-মেয়াদী সর্বেক্ষণ ভ্রমণে, আমি এলাকার মধ্যে প্রথম ফল সন্ধান করার সুযোগও গ্রহণ করি৷ আন্দোলনের বৃদ্ধি হয় যখন আমরা স্থানীয় প্রেরিত প্রতিনিধিদের খুঁজে পাই যারা একই প্রক্রিয়ার পুনরাবৃত্তি করেঃ প্রার্থনা, গবেষণা, এবং প্রথম ফলের সন্ধানের জন্য স্বল্প-মেয়াদী ভ্রমণ৷

সুসমাচার অপ্রাপ্তদের কাছে পৌঁছানোর দ্বিতীয় চাবিকাঠিটি হল রূপান্তরণ সংলাপ৷ এটি ফুটবল খেলার বলটি পিছনে এবং সামনে ছোড়ার মতো৷ এটি একটি সামান্য চর্চা থেকে বলকে এক আত্মীক চর্চার লক্ষ্যে নিয়ে যাওয়ার এক মিথষ্ক্রিয় প্রক্রিয়া৷ তারপর আমরা আবিষ্কারী গোষ্ঠীতে অন্যান্য ব্যক্তিদের যোগ করতে পারি এবং মসীহ যীশুর সাথে তাদের পরিচয় করিয়ে দিতে পারি৷ আমরা একটি বিষয় দিয়ে শুরু করি যা প্রচুর স্থানীয় ব্যক্তিদের দ্বারা চর্চা করা হয়৷ স্থানীয় লোকেদের ভাবনার ধরনের বিষয়ে শেখা আমাদেরকে তাদের চাহিদা পূরণ করতে এবং ঈশ্বরের বাক্যের আলোকে তাদের দৃষ্টান্তকে পরিবর্তন করতে সাহায্য করবে৷

সুসমাচার অপ্রাপ্তদের কাছে পৌঁছানোর তৃতীয় চাবিকাঠিটি হল ব্যক্তিগতর পরিবর্তে গোষ্ঠীগতভাবে মনোযোগ দেওয়া৷ ব্যক্তিগতভাবে পৌঁছানোর চেয়ে গোষ্ঠীগতভাবে পৌঁছানো অনেক বেশী কার্যকর৷ যখন আমরা ব্যক্তিগতভাবে মনোযোগ প্রদান করি, আমরা কেবলই একজন ব্যক্তিকে প্রভাবিত করি৷ এটি আমাদের ক্লান্ত করতে এবং খুবই অদক্ষ হবে৷ গোষ্ঠীগতভাবে মনোনিবেশে বহু সুবিধে রয়েছে৷ প্রতিটি ব্যক্তির বেড়ে ওঠার জন্য বিশ্বাসীদের একটি সম্প্রদায়ের প্রয়োজন৷ ছোট গোষ্ঠীগুলি সুসমাচার অপ্রাপ্ত জনগোষ্ঠীর বৃদ্ধিকে ত্বরান্বিত করে৷ গোষ্ঠীগুলি অন্য গোষ্ঠীগুলির জন্ম দেয়৷ এবং গোষ্ঠীগুলির সংস্থান ফুরিয়ে যাবে নাঃ মানব সংস্থান, আর্থিক সংস্থান, বা কৌশল এবং ধারণা৷

দ্বিতীয় পর্যায়ঃ সহজতর গোষ্ঠী আবিষ্কার

আন্দোলন সংখ্যাবৃদ্ধিকারী চক্রের দ্বিতীয় পর্যায়টি হলো গোষ্ঠী আবিষ্কার যা আন্দোলনগুলির সংখ্যাবৃদ্ধিকে উৎসাহিত করে৷ কোন নমুণা সহজতর এক ছোট গোষ্ঠিকে গ্রীনহাউসের মতো হতে সাহায্য করতে পারে যা আত্মীক বৃদ্ধির সৃষ্টি এবং স্বাস্থ্যের উন্নতি করে? এবং এটি সুসমাচার অপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের সহ, নতুন অঞ্চলে প্রসারিত করতে সাহায্য করে? আমি এই গ্রীনহাউস হিসাবে সাতটি প্রশ্নকে আবিষ্কারী বাইবেল চর্চার নমুণাকে ব্যবহার করি৷ এটি এক অতি সাধারণ পদ্ধতি যা যে কারোর প্রতি প্রয়োগ করা যেতে পারে৷ এটি শেখার প্রত্যেকের কাছে স্পষ্ট করে দেয় যে প্রক্রিয়াটির সাতটি অংশ রয়েছে৷ সুতরাং পূর্ববর্তী প্রজন্মের নেতারা সহজেই প্রক্রিয়াটিকে পরবর্তী প্রজন্মে স্থানান্তর করতে পারেন৷

সাতটি প্রশ্ন হলোঃ 

১) আপনি কিসের জন্য কৃতজ্ঞ?

২) আপনি কোন প্রতিকূলতার সম্মুক্ষীন?

এই দুইটি প্রশ্ন গোষ্ঠীর সদস্যদের সম্পর্কের বন্ধনকে গভীর করতে সাহায্য করে৷

উত্তরণটি একসাথে পড়ুন৷

৩) এই উত্তরণ থেকে আপনি ঈশ্বর বিষয়ে কি শিখলেন?

৪) এই উত্তরণ থেকে আপনি প্রভূ যীশু (ইসা) বিষয়ে কি শিখলেন?

৫) এই উত্তরণ থেকে আপনি লোকেদের বিষয়ে কি শিখলেন?

এই তিনটি প্র্রশ্ন গোষ্ঠীর প্রত্যেককে বুঝতে সাহায্য করবে যে ঈশ্বরের বাক্য তাদের আত্মীক বৃদ্ধির কেন্দ্রতে অবস্থিত; কোন শিক্ষক বা কোন গোষ্ঠীর নেতার মধ্যে নয়৷ তারা প্রবর্তন প্রক্রিয়া প্রয়োগ করে এক গোষ্ঠী হিসেবে একত্রে শাস্ত্র অধ্যয়ন করেন৷ তারপর প্রত্যেকেই শাস্ত্র পাঠে যা আবিষ্কার করেছে তা বলার সুযোগ পায়৷

৬) এই উত্তরণ থেকে আপনি যা শিখেছেন তা থেকে আপনি এই সপ্তাহে কি করবেন? এই উত্তরণ থেকে আমরা যা শিখেছি তা প্রয়োগ করে আমাদের গোষ্ঠী একত্রে কি করবে?

এই প্রশ্নগুলি গোষ্ঠীর প্রত্যেককে বুঝতে সাহায্য করে যে তাদের বাক্যের কর্মী হতে হবে৷ তাদের এক বিশ্বাসী সম্প্রদায়ের অংশ হয়েও বাঁচতে শিখতে হবে৷

৭) এই উত্তরণ থেকে আপনি যা শিখেছেন এই সপ্তাহে আপনি কার সাথে প্রচার করবেন?

এই প্রশ্নটি তাদের অন্যদেরকে শিষ্য করতে সাহায্য করবে৷ তারা যা শিখেছে তৎক্ষনাৎ প্রচার করতে শুরু করবে এবং স্বাভাবিকভাবেই বিভিন্ন এলাকায় নতুন গোষ্ঠী গঠণ করতে শুরু করবে৷

তৃতীয় পর্যায়ঃ দলের নেতৃবৃন্দকে ক্ষমতায়ণ করা

আন্দোলনে সংখ্যাবৃদ্ধির চক্রের তৃতীয় পর্যায়টি হলো ক্ষমতায়ণ যা একাধিক নেতৃবৃন্দের দলকে সর্বোচ্চ করে৷ 

আমি প্রায়ই দর্শনের স্থানান্তর এবং ক্ষেত্রের পরামর্শদাতাদের প্রশিক্ষণের জন্য স্লোগান ব্যবহার করি৷ আমার পরিচর্য্যায়, আমার বহু নেতৃবৃন্দ, প্রশিক্ষক, এবং বিশ্বাসীরা রয়েছে যারা উচ্চ মর্যাদা বিশিষ্ট পটভূমি থেকে নন; অনেকের কাছে ভালো শিক্ষাও নেই৷ সহজ স্লোগান তাদের দ্রুত বুঝতে এবং তারা যা দেখেছে ও শুনেছে তাতে প্রয়োগ করতে সাহায্য করে৷ আমরা দলগুলিতে নেতাদের বহুত্ব বিকাশের জন্য স্লোগান ব্যবহার করা হয়৷

আমরা প্রভূ যীশুর কাছ থেকে শিখেছি যে তিনি নেতৃবৃন্দের ক্ষুদ্র গোষ্ঠীকে বেছে নিতেন৷ তারপর তিনি তাদের মধ্য থেকে তিন জনের একটি মূল দল নির্বাচন করতেন৷ যেহেতু আমরা সুসমাচার অপ্রাপ্ত লোকেদের মধ্যে কার্য করি, আমাদের মহান শিক্ষকের দ্বারা যেমন নমুণা করা হয়েছিল আমরাও তেমনই নমুণা করার জন্য চেষ্টা করি, যেভাবে তিনি নেতাদের নির্বাচন করতেন এবং গড়ে তুলতেন৷ আমরা লক্ষ্য করি যেন নেতাদের বহুত্ব আন্দোলনের মধ্যে সুস্থ্য নেতৃত্ব প্রদাণ করে৷ নেতৃত্বের বহুত্বতা বিভিন্ন নেতাদের সাথে একত্রে সমস্যার সমাধান করা সম্ভব করে তোলে৷ নেতৃবৃন্দের গোষ্ঠীগুলি আমাদের তাদের সাথে একত্রে কৌশলগত পরিকল্পনা করতে সময় প্রদান করে৷ যদি কেউ মারা যায় বা স্থানান্তর করে বা নিপীড়নের কারণে স্থানান্তর করে তাহলে নেতৃত্বের বহুত্বতা আমাদের কোন নেতাকে হারানোর জন্যেও প্রস্তুত হতে সাহায্য করে৷ এইভাবে, কোন একটি নেতাকে হারিয়েও আন্দোলন পঙ্গু হয়ে পড়ে না৷ 

পরিশেষে, আমরা বহু-স্তরীয় নেতা ক্ষমতায়ণ করি৷ আমাদের সতর্ক থাকতে হবে যে বিভিন্ন স্তরের নেতাদের বিভিন্ন ধরনের প্রতিকূলতার সম্মুক্ষীন হতে হবে৷ পূর্ববর্তী প্রজন্মের নেতাদের তাদের পরবর্তী প্রজন্মের নেতাদের তুলনায় অনেক বেশী ভার বহন করে৷ কিভাবে আমরা প্রতিটি স্তরের নেতাদের ক্ষমতায়ণ এবং প্রশিক্ষণ প্রাদান করি, যাতে তারা সর্বাধিক ক্ষমতায় সেবা করতে পারে? তারা ৫০জন, ১০০, ৫০০, বা ১০০০জনকেই নেতৃত্ব প্রদাণ করুক না কেন, আমরা কিভাবে তাদেরকে আন্দোলনের পরিচালনা এবং তাদের দায়িত্বগুলি পালন করতে সাহায্য করতে পারি? নেতৃত্বের এই স্তরগুলির প্রত্যেকটি অনন্য জটিলতা এবং প্রতিকূলতা নিয়ে আসে যাকে তাদের সম্মুক্ষীন হতে হবে এবং উপযুক্ত সমাধানও বের করতে হবে৷ এটি বহু-স্তরীয় ক্ষমতায়নের গুরুত্বকে তুলে ধরে, সুতরাং প্রতিটি স্তরের নেতারা আন্দোলনে একসঙ্গে কার্য করার ফলে সর্বাধিক কার্যকারিতা অর্জন করেছে৷

এই কয়েকটি পর্যায় এবং চাবিকাঠিগুলি প্রভূ আমাদের আন্দোলনগুলির মধ্যে সংখ্যাবৃদ্ধির চক্রকে উৎসাহিত করার জন্য ব্যবহার করেছিলেন৷ আমি আশা করি প্রভূ আপনাকে যেই পরিচর্য্যাটি অর্পণ করেছেন তাতে সেগুলি আপনার জন্য সাহায্যকারী হবে৷ ভাগ ২-এ, আমি আন্দোলন সংখ্যাবৃদ্ধিতে সমর্থনকারী তিনটি কারণ নিয়ে বলবো৷

 

আপনার পরিচর্য্যায় অন্যদের সাথে আলোচনার জন্য প্রশ্ন 

১) আপনার পরিচর্য্যার দলে(গুলিতে) ঈশ্বর কাকে নতুন ক্ষেত্র উন্মুক্ত করার জন্য প্রয়োগ করেছেন?

২) আপনি কিভাবে স্থানীয় প্রেরিত প্রতিনিধির সন্ধান করছেন?

৩) আপনি কিভাবে রূপান্তর সংলাপ করছেন?

৪) আপনি কিভাবে ব্যক্তিগতর পরিবর্তে গোষ্ঠীর কাছে পৌঁছাচ্ছেন?

৫) আপনি কি আবিষ্কারী বাইবেল আলোচনার জন্য সাতটি প্রশ্ন প্রয়োগ করেছেন? কি ভালো চলছে? প্রতিকূলতাগুলি কি কি?

৬) নেতাদের দল গঠিত হচ্ছে কি?

Categories
আন্দোলন সম্পর্কে

ঈশ্বর কিভাবে সাধারন বিষয়গুলিকে বৃদ্ধি করছেন এবং বহুগুণে বৃদ্ধি দান করছেন

ঈশ্বর কিভাবে সাধারন বিষয়গুলিকে বৃদ্ধি করছেন এবং বহুগুণে বৃদ্ধি দান করছেন

লি উড দ্বারা লিখিত –

২০১৩ সালের মার্চ মাসে আমি একটি শিষ্যত্ব প্রশিক্ষণের শিবিরে যোগদান করি যার ব্যবস্থাপনায় ছিলেন কার্টিস সার্জেন্ট। এই শিবিরের লক্ষ্য ছিল ঈশ্বরের আজ্ঞাবহ হওয়া এবং অন্যদের প্রশিক্ষণ প্রদান করা কিভাবে তারা শিষ্য নির্মাণকরতে পারে , এবং সহজ গৃহ

মণ্ডলীর সংখ্যা দ্রুত বৃদ্ধি লাভ করে। আমি অত্যন্ত ইচ্ছুক হৃদয়ে এই শিষ্যত্বের প্রশিক্ষণে যোগদান করি। আমি উপলব্ধি করেছিলাম যে কেন আমাদের শিষ্য হিসাবে আহ্বান করা হয়েছে – যেন এই জগত জানতে পারে – কিন্তু কিভাবে তা সম্ভব সেই বিষয়ে নিশ্চিত ছিলাম না। প্রশিক্ষণের সময়ে, আমরা শিখেছিলাম যে কেন এবং কিভাবে অন্যদের শিষ্য হিসাবে প্রস্তুত করা হল ঈশ্বরের প্রতি এবং অন্যদের প্রতি নিজেদের প্রেম প্রদর্শন করা।

নিজের কাহিনী অন্যদের বলা, ঈশ্বরের কাহিনী বলা এবং দল গঠন করা এবং তাদেরকে সেই এই কাজ করতে প্রশিক্ষণ দেওয়াঃ আমি এই নীতিগুলি ব্যবহার করার জন্য আগ্রহী হয়ে অপেক্ষা করছিলাম। কাজ শুরু করার সাথে সাথে, আমরা প্রথম বছরেই প্রায় ৬৩টি দল গঠন করি এবং তাদেরকেও সেই একই কাজ করতে প্রশিক্ষণ দিতে থাকি। কিছু কিছু দল ১৪ প্রজন্ম পর্যন্ত পৌঁছে যায়। প্রথম দুই বছরে প্রায় কয়েকশ দল গঠন হয় কিন্তু আমরা সেগুলির সঠিক যত্ন নিতে পারছিলাম না, সেই দলগুলি দীর্ঘস্থায়ী হচ্ছিল না অথবা বৃদ্ধি লাভ করছিল না যেভাবে বৃদ্ধি পাওয়া উচিত ছিল। আমরা নতুন দল গঠন করতে এতটাই ব্যস্ত ছিলাম যে আমরা সেই নীতিগুলি প্রয়োগ করতে ব্যর্থ হচ্ছিলাম।

ধন্যবাদের বিষয় হল কার্টিস আমাদের উপরে আশা ছেড়ে দেন নি। তিনি ক্রমাগত আমাদের শিক্ষা দিচ্ছিলেন, প্রয়োজনীয় নীতিগুলির উপরে গুরুত্ব দিতে উৎসাহিত করছিলেনঃ

১) নিজের পরিচর্য্যা কাজের গভীরতার প্রতি যত্ন প্রদান করা। ঈশ্বর বৃদ্ধি দান করবেন।

২) তাদের প্রতি গভীর মনোযোগ দেওয়া যারা আজ্ঞাবহ হবার জন্য প্রস্তুত।

৩) যা করা উচিত করে যাওয়া এবং আপনি দ্রুত বৃদ্ধি পেতে থাকবেন।

৪) সহজ বিষয়গুলি বৃদ্ধি পাবে। সহজ বিষয়গুলি বহুগুনে বৃদ্ধি পাবে।

৫) আজ্ঞাবহ থাকা এবং অন্যদের প্রশিক্ষণ দান করা।

আমাদের কাজ উদ্ধার করার জন্য যা করা প্রয়োজন আমরা তা করতে শুরু করি।আমরা তাদের প্রতি কাজ করতে থাকি যারা নিজেদের আহ্বানের প্রতি স্পষ্টভাবে আজ্ঞাবহ ছিল।

(এটি প্রথমে না করাই ছিল আমাদের প্রাথমিক ব্যর্থতার অন্যতম কারণ)। আমরা টাম্পা’র কিছু কঠিন স্থানে উদ্দেশ্যমূলকভাবে প্রার্থনার যাত্রা করতে থাকি, যেন শান্তির পুরুষ খুঁজে পাই – লোকেরা খ্রীষ্টকে গ্রহণ করার জন্য প্রস্তুত হয় এবং তাদের পরিচিত লোকদের মধ্যে সুসমাচার প্রচার করতে থাকে – হারিয়ে যাওয়া লোকদের কাছে ও অন্তিম লোকদের কাছে। যখন আমরা আরো অভিজ্ঞতা প্রাপ্ত হই, আমরা প্রথমে স্থানীয় লোকদের এবং পরে বিশ্বব্যাপী লোকদের প্রশিক্ষণ দিতে শুরু করি। স্বাস্থ্যবান দলগুলি দ্রুত বৃদ্ধি পেতে থাকে। এই আন্দোলন ফ্লোরিডার অন্যান্য শহরে এবং চারটি অন্যান্য রাজ্যে ছড়িয়ে পড়ে। আমাদের প্রাক্তন কিছু শিষ্যদের সাহায্যে এই আন্দোলন আরো দশটি দেশে ছড়িয়ে পড়ে। আমরা সম্পূর্ণ সংগঠনপূর্ণ বিকেন্দ্রিত আন্দোলন থেকে আগামী দুই বছরের মধ্যে সুসমাচার অপ্রাপ্ত এবং অনিযুক্ত লোকদের মধ্যে মিশনারীদের প্রেরণ করতে শুরু করি।

অন্যান্য নেটওয়ার্কের সাথে অংশীদারীত্বের মাধ্যমে, আমরা আরো ৭০টি দেশে প্রশিক্ষকদের প্রেরণ করতে শুরু করি যেখানে আন্দোলন স্বয়ংক্রিয় ভাবে বৃদ্ধি পেতে থাকে এবং স্থানীয় লোকেরা সেই অঞ্চলের লোকদের কাছে পৌঁছাতে থাকে। অতিরিক্তভাবে অন্যান্য শহরের লোকেরা আমাদের উদীয়মান প্রশিক্ষণের মাধ্যমে শহরাঞ্চলে উদীয়মান

শুরু করে, সি পি এম নীতি ব্যবহারের মাধ্যমে যা সম্পূর্ণ সম্প্রদায়কে পরিবর্তন করতে পারে।

এই সমস্ত কিছু সম্ভব হয় কারণ আমরা নিজেদের ব্যক্তিগত কাহিনী লোকদের বলছিলাম যে ঈশ্বর কিভাবে আমাদের জীবনকে পরিবর্তন করেছেন, তাদেরকে যীশুর কাহিনী (সুসমাচার) শুনিয়েছিলাম এবং কিছু সহজ নীতি অনুসরণ করেছিলামঃ কিছু মানুষদের উপরে গভীরভাবে খেয়াল রাখা, পদ্ধতিকে সহজ রাখা, কার্য্যের মাধ্যমে শিক্ষা লাভ করা, এবং ফলাফলের জন্য ঈশ্বরের উপরে নির্ভরশীল থাকা। 

কিভাবে? ঈশ্বরের প্রতি প্রেম, অন্যদের প্রতি প্রেম এবং শিষ্য তৈরি করা যারা অন্যদের শিষ্য বানাতে পারে। সহজ বিষয়গুলি বৃদ্ধি পায়। সহজ বিষয়গুলি বহুগুনে বৃদ্ধি পায়। 

লি উড একজন অনাথ, কুট্টিত, নেশাগ্রস্ত একজন যুবক যিনি ২৩ বছর বয়সে যীশুকে নিজের জীবনে গ্রহণ করেছিলেন, এবং তার জীবন সম্পূর্ণভাবে পরিবর্তিত হয়েছিল। তার ক্ষোভপূর্ণ শক্তি তার চারপাশের সমস্ত লোকদের পক্ষে সংক্রামক। তার হৃদয়ের আবেগ হল খ্রীষ্টের জন্য অন্যদের শিষ্য করা যতক্ষন না সমগ্র বিশ্ব জানতে পারে।

মিশন ফ্রন্টিয়ার্স-এর জানুয়ারী-ফেব্রুয়ারী ২০১৮ সালের প্রকাশনায়, মূলতঃ একটি প্রবন্ধ থেকে সংকলিত, http://www.missionfrontiers.org পৃষ্ঠা ২২, এই উপাদানটি ২৪:১৪ বই-এর পৃষ্ঠা ১৩৬-১৩৮-তে উল্লেখিত হয় – সমস্ত লোকেদের পক্ষে একটি সাক্ষ্য, ২৪:১৪ থেকে বা অ্যামাজন-এ উপলব্ধ৷

Categories
আন্দোলন সম্পর্কে

রাজার সৌন্দর্য প্রত্যক্ষ করার জন্য কি মূল্য প্রদান করতে হয়?

রাজার সৌন্দর্য প্রত্যক্ষ করার জন্য কি মূল্য প্রদান করতে হয়?

ডঃ পাম আর্লান্ড এবং ডঃ মেরী হো –

ঈশ্বরের রাজ্যের যে সুসমাচার সমগ্র পৃথিবীতে প্রচারিত হচ্ছে তা সমস্ত বিশ্বাসীর আশা এবং ইচ্ছা এবং ইহাএটিই মথি ২৪ অধ্যায়ের প্রধান বিষয়বস্তু। বাস্তবিক, মথি ২৪ অধ্যায় এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের উত্তর আমাদের কাছে প্রদান করে যে প্রশ্ন ঈশ্বরের লোকেরা পৃথিবীজগৎ উৎপত্তির সময় থেকে জিজ্ঞাসা করে আসছেঃ ঈশ্বরের নামকেসমগ্র জাতির মধ্যে, যেখান থেকে সূর্য্য উদয় হয় সেখান থেকে সূর্য অস্ত যাওয়ার স্থান পর্যন্তছড়িয়ে দিতে কি মূল্য প্রদান করতে হবে? (মালাখি ১:১১) কোন প্রজন্ম যা শেষ সময়ে মথি ২৪:১৪ পদকে সম্পূর্ণ করবে?

 

সত্যিই, আমরা খুবই ভাগ্যবান প্রজাতি যারা বলতে পারি যে এমন কোন সময় বলয় নেই যে সময়ে প্রভূ যীশুর আরাধনা চলছে না। যদিও, প্রত্যেক সময় বলয়ে এমন কিছু অন্ধকারময়্ স্থান আছে যেখানে কেউ ঈশ্বরকে জানে না এবং আরাধনা করে না অবাঞ্ছনীয়।

যদিও আমরা মথি ২৪:১৪ পদ পছন্দ করি, কিন্তু আমরা অনেক সময়ে আমরা অবশিষ্ট অধ্যায়টিকে এড়িয়ে যাই।এটি হল শেষ সময়ে অনেক প্রাকৃতিক দুর্যোগ এবং চিহ্ন দেখা দেবে যখন ঈশ্বর নিজেকে সমগ্র জগতের লোকেদের সামনে গৌরবান্বিত করবেন। উদাহরণস্বরূপঃ

  • সমগ্র পৃথিবীতে যুদ্ধ হবে (৬-৭  পদ)
  • দুর্ভিক্ষ এবং ভূমিকম্প হবে (৮ পদ)
  • ক্লেশ, নির্যাতন এবং বিশ্বাসীকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হবে (৯ পদ)
  • সমগ্র জাতি একে অপরের প্রতি হিংসা প্রদর্শন করবে (৯ পদ)
  • অনেকে নিজের বিশ্বাসকে পরিত্যাগ করবে (১০ পদ)
  • মিথ্যা ভাববাদী উৎপন্ন হবে (১১, ২২-৬ পদ)
  • দুষ্টতা বৃদ্ধি পাবে (১২ পদ)
  • একে অপরের প্রতি প্রেম শিথিল হবে (১২ পদ)
  • আইনব্যবস্থা অরাজকতায় পরিণত হবে (১২ পদ)

যীশুপ্রভূ যীশু ইহাএটি স্পষ্টই ব্যক্ত করেছেন যে তাঁর রাজ্যের আগমন সুবিন্যস্ত, সহজ অথবা সুসজ্জিত হবে না। যদিও, এই একই অংশে, তিনি আমাদের অর্থাৎ বিশ্বাসীদের জন্য পাঁচটি “প্রকৃত চরিত্রের দৃঢ়তা” বজায় রাখতে বলেছেন যেন আমরা শেষ সময়সময়ে দৃঢ় হয়ে দাঁড়াতে পারি (১৩ পদ)।

১. যীশুপ্রভূ যীশু আমাদেরবলেছেন আমরা যেন চলমান এবং ক্ষিপ্রগতি সম্পন্ন হইহতে বলেছেন। তিনি নির্দেশ করে বলেছেন যে আমরা যেন মুহূর্তের সংবাদে পালিয়ে যাবার জন্য সামর্থ্য হই (১৬পদ)। এই রাজ্যের অগ্রগতি আমাদের সুরক্ষিত করে রাখবে। সেই কারণে, আমাদের এই ধরনের আকস্মিক সুযোগের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে, এবং নিজেদের জীবনের পরিকল্পনা এবং প্রধান বিষয়গুলিকে দ্রুত পরিবর্তন করতে শিখতে হবে। আমাদের এই বর্তমান যাযাবর হয়ে জীবনযাপন করার একটি সুবিধা আছে। এই শতাব্দীতে এত অধিক সংখ্যক মুসলিম খ্রীষ্টকে গ্রহণ করেছে যা আগে কখনও সম্ভব হয় নি। যারা এই যাযাবর সঙ্কটের প্রতি কার্যকারী তারা প্রত্যক্ষ করেছে যে অনেক মুসলিম মানুষ খ্রীষ্টকে গ্রহণ করেছে। কিন্তু অনেককেই এই সুযোগ ব্যবহার করার জন্য নিজেদের প্রাত্যহিক কাজ থেকে অব্যাহতি নিতে হয়েছে। ভবিষ্যতে হয়ত আরো এই ধরনের সুযোগ আসবে, এবং আমাদের প্রত্যেককে ঈশ্বরের পদক্ষেপের সাথে পরিবর্তিত হবার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। বাস্তবিক, অনেক সময় ইহাএটি প্রতীয়মান হয় যে এই প্রাকৃতিক দুর্যোগগুলিও ঈশ্বরের রাজ্য বৃদ্ধি করার জন্য অভূতপূর্ব সুযোগ নিয়ে আসে, কিন্তু ইহাএটি তখনই সম্ভব যখন ঈশ্বরের লোকেরা চলমান এবং ক্ষিপ্রগতি সম্পন্ন হবে।

২. যীশুপ্রভূ যীশু আমাদের বলেছেন আমাদেরকে পলায়ন করতে হবে কিন্তু আমরা তাঁর থেকে করুণা যাচ্ঞা করতে পারি যে কোন সংকটপূর্ণ অবস্থার মধ্যেও (২০ পদ)। আমাদেরকে অনবরত প্রার্থনাকারী হতে হবে। ইহাএটি এমন প্রার্থনা নয় যা কয়েক মিনিটের মধ্যেই সমাপ্ত হয়ে যায়।অথবা এমন প্রার্থনা নয় যেখানে আমরা ঈশ্বরকে কার্যকারী হবার জন্য ভিক্ষা চাই। আমাদেরকে একজন যোদ্ধা রাজার সন্তান-সন্ততি হিসাবে ঈশ্বরকে পাশে নিয়ে যুদ্ধে লিপ্ত থাকতে হবে (ইফিষীয় ৬) সেই সমস্ত শত্রুদের বিরুদ্ধে যারা দৃশ্যমান নয় কিন্তু তাদের কার্যকলাপ অনুভব করা যায়। ইহাএটি এমন ধরনের প্রার্থনা যা একদিকে কঠিন এবং আনন্দে পরিপূর্ণ।

৩. যীশুপ্রভূ যীশু আমাদের সতর্ক থাকতে বলেছেন (৪২ পদ)। ইহাএর অর্থ সতর্ক থাকার কৌশল ঈশ্বর ব্যবহার করছেন। আমাদেরকে সতর্ক করা হয়েছে যেন আমরা ভাক্ত ভাববাদীদের থেকে সাবধান থাকি। আমরা কিভাবে প্রকৃত ভাববাদী এবং ভাক্ত ভাববাদীদের চিহ্নিত করতে পারি? রাজার হৃদয় জানার মাধ্যমে আমরা ইহাএটি বুঝতে পারি। তিনি আমাদের হৃদয়, মন, আত্মা এবং সামর্থ্য অধিগ্রহন করেন। এবং, তিনি যখন ইহাএটি করেন, আমাদের শক্তি প্রদান করা হয়, সাহসী হোন, হন, জগত থেকে পৃথক জীবন যাপন করুন, যারা ভালোবাসা পায় না তাদের প্রেম করুন, শত্রুকে প্রেম করুন এবং ক্লেশ সহ্য করুন। এই ১ম করিন্থীয় ১৩ অধ্যায়ের প্রেম হল, “অসহনশীল নয়, কিন্তু নীরবতার বশ্যতা স্বীকার করে, একটি সক্রিয়, ধনাত্মক সহিষ্ণু প্রেম। ইহাএটি একটি যোদ্ধার সহ্য ক্ষমতা যে, প্রবল যুদ্ধের মধ্যেও অটল ও অশঙ্কিত ”

৪. যীশুপ্রভূ যীশু আমাদের উত্তম নির্ভরযোগ্য দাস হতে বলেছেন (৪৫ পদ), যেন আমরা তাদের খাদ্য সরবরাহ করতে পারি যারা খাদ্যের অভাবে আছে। এই অংশে যে খাদ্যের বিষয়ে বলা হয়েছে, সেটি আক্ষরিক অর্থে খাদ্য হলেও, ইহাএটি একটি উপমা। সাধারন দুর্ভিক্ষের থেকে পৃথক, যেখানে আমরা ত্রানত্রাণ হিসাবে খাদ্যকে অভাবগ্রস্ত মানুষের কাছে পৌঁছিয়ে দিই, আমরা অনেক সময় এইসমস্ত ক্ষেত্রে আমাদের কর্মচারীদের প্রেরণ করে থাকি যাদের উচিত আত্মিক দুর্ভিক্ষ দূর করার প্রচেষ্টা করা যেখানে আত্মিক উৎসগুলি নিয়ে যাওয়ার সুযোগ আছে। এই উপমা আমাদের বুঝতে সাহায্য করে কেন আমরা পৃথিবীর উপেক্ষিত মানুষদের অধিক প্রাধান্য দিই। আমাদের কার্যকারী ব্যক্তিরা প্রকৃতভাবে সেই সমস্ত স্থানে কাজ করছে কিনা যেখানে অধিক আত্মিক সাহায্যের প্রয়োজন আছে। এর জন্য আমাদের সৎ এবং নির্মম হতে হবে।

৫. যীশুপ্রভূ যীশু আমাদের বলেছেন যেন আমরা জাগতিক জিনিসের প্রতি আসক্ত না থাকি। তিনি নির্দেশ দিয়েছেন যেন আমরা নিজেদের দ্রব্যাদি লাভ করার জন্য ফিরে না যাই (১৭-১৮ পদ)। আমাদেরকে আমাদের প্রতিবেশীদের থেকে পৃথক জীবন যাপন করতে হবে। আমরা আমাদের নিজেদের মাংসিক অভিলাষঅভিলাষা যেমন চিত্ত বিনোদন, সমত্তিসম্পত্তি এবং সৌন্দর্য্যের জন্য জীবন যাপন না করিনা (রোমীয় ৮:৫)। পরিবর্তে, আমাদেরকে খ্রীষ্ট রাজার সৌন্দর্য্যের জন্য জীবন যাপন করতে হবে। ইহাএর অর্থ আমাদেরকে নিজেদের সুখের জন্য স্বল্পসময় ব্যয় করতে হবে, এবং অন্যদের উন্নতি কল্পে কঠিন পরিশ্রম করতে হবে, নিজেদের সময় এবং অর্থ ব্যয় করতে হবে, এবং একটি অদৃশ্য গৌরবের জন্য আমাদের জীবন যাপন করতে হবে।

আমাদের রাজার সৌন্দর্য্যের জন্য জীবন যাপন করতে অনেক বলিদান করতে হবে – বৃহৎ বলিদান, বলিদান যা আমাদের ক্লেশ দেবে। যদিও, এই বলিদানের বিষয়ে, মালাখি ১:১১ পদ বলে, প্রত্যেক স্থানে তাঁহার নামের উদ্দেশে ধূপদাহ ও শুচি নৈবেদ্য উৎসৃষ্ট হইতেছে; কেননা জাতিগণের মধ্যে তাঁহার নাম মহৎ হবে, এবং সেই সমস্ত কিছুর পিছনে রয়েছে বলিদান। কোন বলিদানই বৃহৎ নয়হবে না যদি ইহাএটি জাতিগণের মধ্যে ঈশ্বরের নামকে গৌরবান্বিত করে।

মেরী হো অল্‌ নেশন্‌ ফ্যামিলি-র একজন আন্তর্জাতিক কার্যনির্বাহক নেতা, এই অল্‌ নেশন্‌ ফ্যামিলি শিষ্য তৈরি করে, নেতাদের প্রশিক্ষিত করে, এবং মণ্ডলী স্থাপনের আন্দোলনকে পৃথিবীর উপেক্ষিত এবং অবহেলিত এলাকাগুলিতে ছড়িয়ে দেবার প্রচেষ্টা করে। মেরী জন্ম গ্রহণ করেছিলেন তাইওয়ান-এ এবং প্রথম যীশুর কথা শুনেছিলেন সুইজারল্যান্ডের মিশনারীদের থেকে যেখানে তিনি বড় হয়েছেন। তাঁর স্বামী জন-এর পরিবার প্রভুকে গ্রহণ করে হাড্‌সন টেলার্‌ সেবাকাজের মধ্যে থেকে। সেকারণে জন এবং মেরী দুজনেই উত্‌সাহী ছিলেন যীশু সমগ্র মানুষদের দ্বারা আরাধ্য হন।

পাম আর্লান্ড অল্‌ নেশন্‌ ফ্যামিলি-র বিশ্বব্যাপী প্রশিক্ষণ এবং গবেষনাকারীদের একজন নেতা। পাম মধ্য এশিয়ার একটি দেশে বহু বছর কাজ করেছেন যেখানে তার আগে কখনও সুসমাচার পৌছায়নি। সেই মানুষদের শিষ্য বানানোর জন্য এবং মণ্ডলী স্থাপনের জন্য, তিনি অনেক ভাষা শিখেছেন এবং একজন বাইবেল অনুবাদক হিসাবে কাজ করেছেন। তাঁর আকাঙ্ক্ষা তিনি ঈশ্বরের একজন আরাধনাকারী যোদ্ধা হতে চান।

মিশন ফ্রন্টিয়ার্স-এর জানুয়ারী-ফেব্রুয়ারী ২০১৮ সালের প্রকাশনায়, মূলতঃ একটি প্রবন্ধ থেকে সংকলিত, http://www.missionfrontiers.org পৃষ্ঠা ৪২-৫৩, এই উপাদানটি ২৪:১৪ পুস্তকের পৃষ্ঠা ৩০৭-৩১০-এ সম্পাদিত হয় – সমস্ত লোকেদের পক্ষে একটি সাক্ষ্য, ২৪:১৪ থেকে বা অ্যামাজন-এ উপলব্ধ৷

লিওন মরিস্‌, ১ করিন্থীয়। লেইসেস্টারঃ ইন্টার-ভার্সিটি প্রেস, ১৯৮৮, ১৮২.

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Categories
আন্দোলন সম্পর্কে

একটি মাধ্যম পরিবর্তনঃ মণ্ডলী স্থাপন থেকে শিষ্য তৈরির আন্দোলন – ভাগ ২

একটি মাধ্যম পরিবর্তনঃ মণ্ডলী স্থাপন থেকে শিষ্য তৈরির আন্দোলন – ভাগ ২

আলিয়া টাসে দ্বারা লিখিত –

ভাগ ২-এ আমরা ঈশ্বর কিভাবে আমাদের লাইফওয়ে মিশনকে একটি নতুন দৃষ্টান্ত মিশনে স্থানান্তরণে পরিচালিত করেছিলেন তা আলোচনা করেছিলাম। এখানে আমরা আমাদের কিছু চ্যালেঞ্জগুলি, ফল, এবং এবং আমাদের টিকিয়ে রাখা এবং সেই ফল আনয়নকারী চাবিকাঠিগুলির বিষয়ে আলোচনা করবো।

পরিবর্তনের পথে আগত চ্যালেঞ্জসমূহ

আমাদের এই পদ্ধতি পরিবর্তনে প্রত্যেকেই যে সহমত ছিল এমন নয়। কিছু মানুষের চিন্তা ছিল যে আমরা যা করতে চলেছি তা অগভীর ছিল, কারণ এই পদ্ধতিতে মণ্ডলী-গৃহ অথবা মন্ডলীমণ্ডলীর অনুষ্ঠানের উপরে গুরুত্ব প্রদান করা হয়নি। কিছু ঐতিহাসিক মন্ডলীমণ্ডলীর লোকেরা বলেছিল যে আমরা মন্ডলীমণ্ডলীকে একটি প্রতিষ্ঠান হিসাবে গুরুত্ব প্রদান করি নি। কিছু বাইবেল সেমিনারির নেতারা বলেছিলেন যে আমরা বহু বছর ধরে সংরক্ষিত মন্ডলীমণ্ডলীর প্রথাগুলির বিরুদ্ধাচরণ করছি। শহরাঞ্চলে যারা কাজ করছিল, তাদের মনে হয়েছিল যে এই পদ্ধতি কখনই শহরাঞ্চলে কার্য্যকরী হওয়া সম্ভব নয়।

আমরা ইতিমধ্যেই ডেভিড ওয়াটসনের হস্তী মণ্ডলী বনাম খরগোশ মন্ডলীমণ্ডলীর ব্যাখ্যা শিখেছিলাম, যে উদাহরণকে কিছু লোক প্রথাগত মন্ডলীমণ্ডলীর ক্ষেত্রে অত্যন্ত সমালোচনামূলক হিসাবে ব্যক্ত করেছিল। কিছু লোক আমাদের দোষারোপ করে বলে যে আমরা এই পদ্ধতি আমেরিকা থেকে শিখেছি এবং ইহাএটি আফ্রিকাতে কার্যকরী করা কখনই সম্ভব নয়। এবং আমাদের কিছু সহকর্মীরাও নিজেদের পরিবর্তন করতে রাজী ছিল না; তারা ইতিমধ্যেই যা করছিল সেটাই তাদের পচ্ছন্দ ছিল। তারা বলেছিল, “লাইফওয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে, এবং আমরা স্বদেশীয়। ঈশ্বর আমাদের সাহায্য করেছেন সমস্ত রকম চ্যালেঞ্জের মুখোমুখী হতে। আমরা কেন নিজদের দিক পরিবর্তন করব?” কিছু অন্যান্য সহকর্মীরা ভীত হয়েছিল, হয়ত তারা এর ফলে কিছু হারিয়ে ফেলবে। তারা চিন্তা করছিল যে তারা এমন একটি বিষয় শুরু করতে চলেছে যা তারা পচ্ছন্দ করে না।

সেই সময়ে আমাকে অত্যন্ত ধৈর্য্যের সাথে অপেক্ষা করতে হয়েছিল কারণ অন্যান্যরা এই বিষয়টিকে সেইভাবে উপলব্ধি করতে পারছিল না যেভাবে আমি দেখেছিলাম। আমি ইতিমধ্যেই এই বিষয়ে ডেভিড ওয়াটসনের বিরুদ্ধে এই সমস্ত বিষয় নিয়ে তর্ক-বিতর্ক করেছিলাম। আমি ডেভ হান্টের প্রতি ইতিমধ্যেই ক্রুদ্ধ হয়েছিলাম যখন তিনি আমাদের সি পি এম নীতিগুলি বাস্তবে ব্যবহার করার জন্য পরামর্শ দিচ্ছিলেন। অন্যান্যরা তখনও চিন্তা করছিল যে কেন আমি এই পরিবর্তনের সঙ্গে সহমত হয়ে এগিয়ে যাচ্ছি। আমাদের সংস্থার একজন প্রধান নেতা এই নতুন মডেলের প্রতি নিজের দৃঢ় বিরোধীতা প্রকাশ করে। সে বুঝতে পারেনি যে কেন আমাদের এই পরিবর্তন প্রয়োজন ছিল।

২০০৫ সালে যখন আমরা সি পি এম নীতিগুলির প্রতি নিজেদের পরিবর্তন করতে শুরু করি, সেই সময়ে প্রায় ৪৮ জন মিশনারী, পূর্ব আফ্রিকার দেশগুলিতে কর্মরত ছিলেন। তাদের মধ্যে প্রায় ২৪ জন পূর্ন সময়ের মণ্ডলী-স্থাপক হিসাবে কাজ করছিলেন; অন্যেরা বার্তিকভাবে মণ্ডলী স্থাপনের কাজের মাধ্যমে ঈশ্বরের সেবা করছিলেন। ২০০৭ সালে, যখন আমরা পরিবর্তন করছিলাম, একটি খ্রীষ্টীয় সম্প্রদায় আসে এবং আমাদের ১৩ জন সহকর্মীকে তাদের সঙ্গে যুক্ত করে, এমন একটি অঞ্চল থেকে তাদের নেওয়া হয় যেখানে দ্রুত গতিতে মণ্ডলী স্থাপনের কাজ চলছিল। তারা তাদেরকে উত্তম অর্থ এবং পদমর্যাদা প্রদান করে। আমরা দুজন গুরুত্বপূর্ণ নেতাকে হারাই, যা আমার জন্য অত্যন্ত দুঃখজনক ছিল। ইহাএটি অত্যন্ত হতাশাজনক ছিল যে বিগত দুই বছর ধরে সেই অঞ্চলে যেভাবে ফলদায়ক কাজ চলছিল, তা স্থগিত হয়ে যায়। ২০০৮-২০১০ সাল ছিল অত্যন্ত নিরাশাজনক কারণ এই পরিবর্তনের সময়ে আমরা আমাদের বিশেষ কিছু সহকর্মীদের হারিয়ে ফেলি।

 

পরিবর্তনের পরের ফল

যখন থেকে আমরা সি পি এম (ডি এম এম)-এ পরিবর্তিত হয়েছি, সেই সময় থেকে আমরা নিজেদের কার্য্যের তুলনায় ঈশ্বরের রাজ্যের প্রতি অধিক লক্ষ্য করতে শুরু করেছি। আমরা আমাদের নাম অথবা ‘আমাদের কাজ’ (আমাদের দর্শন, আমাদের পরিচর্য্যা ইত্যাদি) হিসাবে আর চিন্তা করতাম না। ইহাএটি ঈশ্বরের রাজ্য এবং তাঁর কাজ। আমরা যখন অনুঘটক হিসাবে কাজ করতে শুরু করি, আমরা নিজেদের প্রয়োজন থেকে সরে গিয়ে ঈশ্বরের রাজ্যকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার প্রচেষ্টা শুরু করি। ঈশ্বর বিগত কয়েক বছরে আশ্চর্যজনক বৃদ্ধি প্রদান করেছেন। কেনিয়াতে আমাদের পরিচর্য্যা কাজের শুরু করে, এখন আমরা পূর্ব আফ্রিকার প্রায় ১১টি দেশে ডি এম এম শুরু করতে পেরেছি।

২০০৫ থেকে, পূর্ব আফ্রিকায় প্রায় ৯০০০ মন্ডলীমণ্ডলী স্থাপন করা হয়েছে। এই দেশগুলির মধ্যে একটিতে, এই আন্দোলন ১৬টি ধাপে উন্নীত হয়েছে যেখানে একটি মন্ডলীমণ্ডলী থেকে শুরু করে ১৬টি প্রজন্ম পর্যন্ত মন্ডলীমণ্ডলী স্থাপিত হয়েছে। আরেকটি দেশে, মন্ডলীমণ্ডলী স্থাপনের কাজ ৬, ৭ এবং ৯টি পরিচর্য্যার প্রজন্ম পর্যন্ত বিস্তৃত হয়েছে। ঈশ্বর আমাদের সাহায্য করেছেন এই অঞ্চলের প্রায় ৯০টি ভিন্ন গোষ্ঠী এবং ৯টি শহরাঞ্চলের দলের কাছে পৌঁছে যেতে। আমরা ঈশ্বরের প্রতি সশ্রদ্ধায় দেখেছি কিভাবে হাজার হাজার মণ্ডলী স্থাপিত হয়েছে এবং লক্ষ লক্ষ মানুষ যীশু খ্রীষ্টকে অনুসরণ করতে শুরু করেছিল।

আমাদের দর্শনের সমস্ত গোষ্টীগুলির কাছে আমরা সুসমাচার প্রচার করি এবং আরো অন্যান্য গোষ্ঠীদের মধ্যেও প্রচার করি। যোশুয়া প্রজেক্ট অনুযায়ী আমরা এখন প্রায় ৩০০ ভিন্ন জনগোষ্ঠীর কাছে পৌঁছানোর জন্য আলোচনা শুরু করেছি। আমরা প্রত্যেকটি দেশে, প্রত্যেক দিন কর্মরতঃ প্রার্থনা করছি এবং খুঁজছি তাদের এখনও যাদের কাছে ঈশ্বরের বাক্য পৌঁছাতে পারেনি।

ডি এম এম কেবলমাত্র আমাদের অনেকগুলি পন্থার মধ্যে একটি পন্থা নয়। আমাদের সমস্ত কাজের মধ্যে সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল ডি এম এম। সেবার কাজ, নেতৃত্বের প্রশিক্ষণ, অথবা মন্ডলীমণ্ডলীর পরিচর্য্যা কাজ, প্রত্যেকটির কেন্দ্রবিন্দু হল ডি এম এম। যদি কোন কাজ আমাদেরকে ডি এম এম-এর প্রতি পরিচালিত না করে, তাহলে আমরা সেই কাজ করা বন্ধ করে দিই।

নতুন লোকদের কাছে এবং নতুন স্থানে পৌঁছানোর সাথে সাথে আমাদের আরেকটি প্রধান লক্ষ্য হল পূর্ব-বিদ্যমান স্থানগুলিকে বাঁচিয়ে রাখাআমরা অনবরত নতুন স্থানে কাজ শুরু করছি, বৃদ্ধি করছি এবং আন্দোলনকে বাঁচিয়ে রাখার প্রচেষ্টায় রত আছি। একটি নতুন স্থানে পরিচর্য্যা কাজ শুরু করার পূর্বে, আমরা সেই স্থান সম্পর্কে গবেষনা করি এবং প্রার্থনাসহ সেই অঞ্চলে পদাচরণ করি, এবং ঈশ্বরের কাছে যাচ্ঞা করি যেন তিনি নতুন দ্বার খুলে দেন। আমাদের কাজকে বজায় রাখার জন্য, আমরা প্রত্যেক চার মাসে ডি এম এম-এর কৌশলগুলি সম্পর্কে আলোচনা করি।

যে মূল বিষয়গুলি আমাদের বাঁচিয়ে রেখেছে এবং ফল উৎপন্ন করেছে

১. প্রার্থনা চিরকাল আমার প্রধান শক্তির উৎস।

২. সর্বদা ঈশ্বরের বাক্যের আধারে জীবন যাপন করা। যদি ইহাএটি ঈশ্বরের বাক্যের উপরে ভিত্তি করে গড়ে ওঠে, তাহলে ইহাকেএকে বজায় রাখার জন্য আমাদের কিছুই করার নেই।

৩. নেতাদের উন্নীত করা। ঈশ্বর আমাকে এই বিষয়ে অত্যন্ত সাহায্য করেছেন এবং এই বিষয়টিকে স্পষ্ট করেছেনঃ ইহাএটি কেবলমাত্র আমার কাজ নয়।

৪. সর্বদা আমার লক্ষ্য ছিল যেন আমাদের পরিচর্য্যা কাজ স্বদেশীয় ভাবে পরিচালিত হয়। যদি তারা ইহাকেএকে নিজেদের মনে করে, তাহলে আমার খরচ কমে যাবে, কারণ ইহাএটি তাদের কাজ।

৫. নেটওয়ার্ক তৈরি করা এবং সেই সমস্ত লোকদের সহযোগী হয়ে কাজ করা যারা একই কাজ করছে। যদি ঈশ্বর আমাদের শিষ্য তৈরি করতে সাহায্য করেন, সেটাই যথেষ্ট, কার নামে বা কার পরিচর্য্যা কাজে শিষ্য হচ্ছে সেটা গুরুত্বপূর্ণ নয়। আমরা সেই বিষয়ে চিন্তিত নই। আমরা যেখানেই সুযোগ পাই সেখানেই লাফিয়ে পড়ে শিষ্য তৈরির কাজে লিপ্ত হই। কারণ সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল যীশু যে দায়িত্ব আমাদের প্রদান করেছেন, সেটিকে সম্পূর্ণ করা।

আমরা দেখেছি ঈশ্বর অন্যান্য লোকদের এবং দলকেও ব্যবহার করছেন, এবং আনন্দের সঙ্গে তাদের সহযোগী হয়ে একত্রে কাজ করি। খ্রীষ্টের দেহ হিসাবে আমাদের একত্রে কাজ করা উচিত, অন্যদের থেকে শেখা উচিত এবং আমরা যা শিখেছি সেগুলিকে অন্যদের শেখানো উচিত। আমরা ঈশ্বরকে ধন্যবাদ দিই যেভাবে তিনি আমাদের পরিচালনা করেছেন এবং সুসমাচার অপ্রাপ্ত লোকদের মধ্যে তাঁর রাজ্য বিস্তারের জন্য শিষ্য তৈরির আন্দোলনকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন।

ডঃ আলিয়া টাসে লাইফওয়ে মিশন ইন্টারন্যাশনাল-এর প্রতিষ্ঠাতা (www.lifewaymi.org), একটি সংস্থা যারা প্রায় ২৫ বছর ধরে সুসমাচার অপ্রাপ্ত লোকদের মধ্যে পরিচর্য্যা কাজ করছে। আলিয়া আফ্রিকা এবং পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে নেতাদের প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকেন। তিনি পূর্ব আফ্রিকার সি পি এম নেটওয়ার্ক-এর একজন গুরুত্বপূর্ণ অংশ এবং মধ্য আফ্রিকার নিউ জেনারেশন-এর আঞ্চলিক সমন্বয়কারী।

 এটি মূলতঃ ২৪:১৪ বই-এর ২৭৮-২৮৩পৃষ্ঠায় প্রকাশিত হয়েছিল – সমস্ত লোকদের পক্ষে একটি সাক্ষ্য, ২৪:১৪ থেকে বা অ্যামাজন-এ উপলব্ধ৷

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Categories
আন্দোলন সম্পর্কে

An Agency Transition: From Church Planting to Disciple Making Movements – Part 1

An Agency Transition: From Church Planting to Disciple Making Movements – Part 1

By Aila Tasse –

In August 1989 I began ministering among some Muslim groups in Northern Kenya, and in 1992 I started doing outreach into a wider area. In 1994-98 I started researching unreached people groups (UPGs), and LifeWay Mission became organized as an indigenous mission agency in 1996. 

Around that time our group grew significantly. We had people joining who could speak the local languages of a large number of the tribes we wanted to reach. We also had members of unreached people groups reaching out and serving as part of our ministry. So I established a small mission school, and started teaching them. I was going to seminary so I made my own training for them out of what I was learning. We trained the young people and sent them back to their areas. They were the ones on the front lines, reaching out to people and leading the churches. 

A big turning point came in 1998, when I started implementing my larger vision. I gave assignments to the local people I was training. I said, “The best thing will be if we find people from the local community.” So they would go out for a month, start reaching out to people, and find key leaders within that month. When they came back they brought those leaders to our training center. We trained those key leaders for two months then sent them as would-be leaders for the strategy. The workers who had originally connected with them remained as coaches. I didn’t exactly learn these things; I was making things up as we went along. We were seeing things happen, but didn’t have material to learn from. So most of our ministry and programs came out of needs I saw in the field. I was teaching a lot of what later turned into CPM.

Considering a New Paradigm

Between 2002 and 2005 I started hearing about Church Planting Movements. But at that point I hadn’t come into contact with training involving other African CPM leaders. Our mission had touched all the unreached people groups in our focus region, but we didn’t have anything like a movement. I had written a dissertation on church planting and read all kinds of books on the subject, including David Garrison’s book Church Planting Movements. But a big challenge to my thinking came in 2005. 

I met a West African brother who was starting a training, and the main trainer was David Watson. That was when I started to really grapple with the idea of a movement. But I had a difficult time with what David Watson was saying.  He was telling me, “You need to do this and that,” based on what worked in India among Hindus. 

I said, “You’ve never been a Muslim. I am a Muslim background believer and I already have experience and fruit working among African Muslims. Things may not happen the same way in this context.” My big obstacle was that I wanted to defend my own work. I felt successful in planting churches among Muslims. So I pushed back. 

But the most important thing for me was, “How will I finish the task among these people groups if not through something like a CPM?” God had told me “Multiply yourself into the lives of many people.” And he expanded my vision from just the tribes in my home area, to a vision for reaching all of East Africa. I didn’t know what that would look like, but I knew God had spoken to me about it. That began my serious journey into movements. I felt the task was more important than the method. I wanted whatever would help do the task in shortest time, in a biblical way that glorified God. I felt ready for something radical – like the man who sold everything to buy the field containing hidden treasure. At all cost, I wanted to do the best thing for God’s glory among the unreached.

Around 2005 I started speaking about CPM and organizing for reaching UPGs. I had a passion for frontier mission, and I wanted to plant more churches. I had already been doing a lot of things that could be called the DNA of CPM, and the 2005 training gave me more tools and connections.

At the beginning, I wasn’t focused. But over the next few years I started implementing CPM principles and doing trainings with Dave Hunt. He played a big role by coaching me and answering my questions. He gave me a lot of encouragement in my journey. Without knowing much, I invested my energy in applying CPM principles instead of arguing about it, and it began bearing fruit. I found most of the CPM principles in the Bible. We began experiencing CPM and training and sending people. As I continued learning about movements, the strategy became very clear to me. And the movement start taking off at the beginning of 2007.

One major shift happened when I started looking at church differently, asking: “What is a church?” I had previously wanted church to be just a certain way, which was not very reproducible. Now I became serious about applying a simpler pattern of church, which was much more reproducible.

Two other key factors revolutionized my thinking:

  1. helping people discover truth (instead of someone telling it to them) and 
  2. obedience as a normal pattern of discipleship.

I saw the radical difference these could make toward ministry that would rapidly multiply. 

Paradigm Shift in LifeWay Mission

As this shift happened in my own mind, I didn’t push anyone in LifeWay to move toward CPM. I focused on one big question: “How can we finish the remaining task? We’ve seen some churches started, but will our current methods reach our goal? Has God called us to a certain method or to finish our task – the Great Commission?” I believe God can use any method he wants. We need to pay attention and see what method(s) he is using to seriously move us toward the goal. Jesus commanded us: “Make disciples, and teach them to obey.” That’s the heart of the Great Commission. It’s what makes the Great Commission Great. Unless we really make disciples, we can’t call the Great Commission Great. So whatever method we use, it has to be very effective at making disciples who obey. 

I started casting vision to my coworkers. I started leading from the front, demonstrating things and changing things slowly. I started showing them practices and principles, rather than forcing them. I wanted them to buy into vision rather than my putting pressure on them. I gave them my example by starting groups that multiplied. I opened the Scriptures and started showing them the biblical principles. As obedience became our lifestyle, that helped my people understand. It became clear to us that this was the way to go. I didn’t apply organizational pressure or exercise authority to bring the change. It wasn’t a top-down process. Some of our workers learned very early and started applying CPM principles; others were slower. For those moving more slowly, we said “Let’s move graciously and gradually.”

That process started in 2005 and continued for a couple of years. In October 2007 we made a complete change as an organization. We clarified that our goal was not just reaching the unreached, but catalyzing Kingdom movements. Lifeway Mission had started with a vision of Kingdom growth in Northern Kenya. The key thing was engaging unreached groups and reaching them with the gospel. 

Now it became clear that our work was not just engaging the UPGs with the gospel, but facilitating and catalyzing Kingdom movements among them. Our focus is still reaching UPGs, but now we’re doing that through DMM (Disciple Making Movements – the term we now use most commonly, to stress that our focus is making disciples). October 2007 was a turning point for all our teams. We changed our mission statement, our details of partnership, our networking and collaborations. 

We now explicitly aim to make disciples who multiply and become churches that multiply. A Disciple Making Movement helps us finish the task Jesus has given us. We don’t focus on a method. But if DMM helps us reach our goal, we don’t need to argue. We’re aiming for Kingdom movements among UPGs, to finish our portion of the Great Commission in the region God has entrusted to us. In 2007 we used the term “CPM.” And the key to CPM is making disciples. So since that time we have emphasized making disciples – bringing the Muslim peoples of East Africa to become obedient disciples of Jesus.

In part 2 we will share some challenges in the transition, fruit since the transition, and keys that have sustained us and brought fruit.

Dr. Aila Tasse is the founder and director of Lifeway Mission International (www.lifewaymi.org), a ministry that has worked among the unreached for more than 25 years. Aila trains and coaches DMM in Africa and around the world. He is part of the East Africa CPM Network and New Generations Regional Coordinator for East Africa.

This was originally published in 24:14 – A Testimony to All Peoples, available from 24:14 or Amazon, pages 278-283.

Categories
আন্দোলন সম্পর্কে

২৪:১৪ – অবশেষে যুদ্ধের সমাপ্তি

২৪:১৪ – অবশেষে যুদ্ধের সমাপ্তি

স্ট্যান পার্কস্ এবং স্টিভ স্মিথ

একটি নবায়িত যুদ্ধ গত ৩০ বছরের অধিক সময় ধরে শান্তভাবে চলতে থাকে। প্রথমে, এটি সম্পূর্ণভাবে কয়েকজন “স্বাধীনতা সংগ্রামী”-দের দ্বারা শান্ত বিদ্রোহের আকারে আরম্ভ হয়েছিল যারা কোটি কোটি মানুষ সুসমাচারের বাক্য শ্রবণ না করে জীবিত থাকে এবং মৃত্যু বরণ করে তা দেখতে অনিচ্ছুক। এরা মৌলবাদী, কখনই মেনে নিতে পারে না যে লোকেরা “এই জগতের অধিপতির” বন্ধনে থেকে মৃত্যুবরণ করে, এবং এদের অনেকেই প্রভূ যীশুর দ্বারা বন্দীদেরকে মুক্ত করার জন্য নিজেদের জীবন বলিদান করেছেন।

 

এটি কোন জাগতিক যুদ্ধের মহাসম্মেলনের পুনরাগমন নয় যা প্রভূ যীশুর নামে আসছে। এই রাজ্য প্রত্যক্ষ করা যাবে, যেমন  প্রভূ যীশু ঘোষনা করেছেনঃ 

“আমার রাজ্য এ জগতের নয়। যদি আমার রাজ্য এই জগতের হত, তবে

আমার অনুচরেরা প্রাণপন করিত, যেন আমি যিহূদীদের হস্তে সমর্পিত না হই।

কিন্তু আমার রাজ্য ত এখানকার নয়।” (যোহন ১৮:৩৬)

 

এটি এক মানুষের আত্মার যুদ্ধ। এই সেনারা বিশ্বাস করে যে আত্মার আন্দোলনের বৃদ্ধির ন্যায় শিষ্যত্ব, মণ্ডলী, নেতৃবৃন্দ এবং আন্দোলন আত্মীক আন্দোলনে বহুগুণে বৃদ্ধি পেতে সক্ষম, যেভাবে তারা প্রারম্ভিক মণ্ডলীতে করেছিল। তারা এটি বিশ্বাস করে যে খ্রীষ্টের আদেশ এখনও সম-পরিমাণ ক্ষমতা এবং আত্মার শক্তি বহন করে যা ২০০০ বছর পূর্বে ছিল।

 

আজকের যুগেও পুনরায় মণ্ডলী স্থাপনের আন্দোলনগুলি (CPMs) ছড়িয়ে পড়ছে যেভাবে প্রেরিতদের কার্যবিবরণীর সময়ে এবং ইতিহাসের বিভিন্ন সময়ে ঘটেছে। এটি কোন নূতন ঘটনা নয় কিন্তু পুরাতন। তারা বাইবেলের প্রাথমিক শিষ্যত্বকে পোষন করে যে প্রভূ যীশুর সমস্ত প্রকারের শিষ্যেরা অনুকরণ করতে পারে, ১) প্রভূ যীশুর অনুসারীগণ ২) মনুষ্যধারীগণ (মার্ক ১:১৭)। প্রত্যেক মহাদেশে, যেখানে এক সময় বলা হত যে, “মণ্ডলী স্থাপনের আন্দোলন এখানে কার্যকারী করা সম্ভব নয়,” সেখানেই এই আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ছে।

 

বাইবেলের নীতিগুলি সমস্ত ব্যবহারিক, পুনরুৎপাদনকারী আদর্শগুলি আন্দোলনগুলিতে এবং ভিন্ন সংস্কৃতির অঞ্চলগুলিতে ব্যবহৃত হয়েছে। ঈশ্বরের দাসেরা এমন উপায়ে হারিয়ে যাওয়া লোকদের উদ্ধার করছেন, শিষ্যদের তৈরি করছেন, স্বাস্থ্যবান মণ্ডলী স্থাপন করছেন এবং ঈশ্বরীয়  নেতাদের বিকাশ করছেন, যেন তারা প্রজন্মের পর প্রজন্ম নিজেদের সংখ্যা বৃদ্ধি পেতে পারে এবং সার্বিকভাবে নিজেদের সম্প্রদায়কে পরিবর্তন করতে পারেন।

 

ঐতিহাসিক ভাবে কেবলমাত্র এই আন্দোলনগুলিকেই আমরা একমাত্র উপায় হিসাবে দেখতে পাই যেখানে ঈশ্বরের রাজ্য লোকসংখ্যা বৃদ্ধির অনুপাতের অধিক বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাদের ছাড়া, কোন উত্তম সেবাকাজের প্রচেষ্টাও নিজেদের জমি হারায়।

 

এই নবায়িত প্রচেষ্টার স্রোত অগ্রে এগিয়ে চলেছে এবং এটি একটি অদম্য শক্তি। এই বিদ্রোহ কোন খামখেয়ালী নয়। প্রায় ২০ বছরের অধিক সময় ধরে এই পুনরুৎপাদনকারী মণ্ডলীগুলির সাথে, ১৯৯০ সাল থেকে শুরু করে ২০২০ সালের মে মাস পর্যন্ত প্রায় ১৩৬০ টির-ও অধিক আন্দোলনগুলির সংখ্যাবৃদ্ধি হয়েছে, যার প্রতিবেদন আমরা প্রত্যেক মাসে পাই। প্রত্যেকটি আন্দোলনের বৃদ্ধির পিছনে রয়েছে মহান সহিষ্ণুতা এবং ত্যাগ।

 

এই মিশন — প্রত্যেকটি সুসমাচার অপ্রাপ্ত মানুষ এবং প্রত্যেকটি স্থানে ঈশ্বরের বাক্য নিয়ে যাবার জন্য — বহু ধরনের বাস্তবিক নির্যাতনের সম্মুখীন হয়েছে। এটি প্রভূ যীশুর নাম অন্ত পর্যন্ত প্রত্যেকটি স্থানে প্রভাব বিস্তার করছে তা দেখতে পাওয়ার একটি সংগ্রাম, যেন সমস্ত লোকেরা তাঁর আরাধনা করে। এই মিশন সমস্ত ধরনের মূল্য প্রদান করতে সক্ষম, এবং এটি মূল্য প্রদানের  যোগ্যও! তিনি এটির যোগ্য।

 

বর্তমান যুগের প্রায় ৩০ বছরের আন্দোলনের পুনরুত্থানের দ্বারা, একটি বিশ্বব্যাপী জোট গঠিত হয়েছে, এটি কোন প্রেক্ষাগৃহে আলোচনা সভা থেকে উদ্ভব হয়নি, কিন্তু এটি সেই সমস্ত নেতাদের দ্বারা সংগঠিত হয়েছে যারা এই আন্দোলনের লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য সর্বদা সচেষ্ট আছেনঃ

আর সর্বজাতির কাছে নিকটে সাক্ষ্য দিবার নিমিত্ত রাজ্যের এই সুসমাচার সমুদয় জগতে

প্রচার করা যাইবে; আর তখন শেষ উপস্থিত হইবে। – (মথি ২৪:১৪) 

 

যখন ঈশ্বর প্রত্যেক ভাষা, জাতি, উপজাতি এবং দেশের লোকদের অগণিত সংখ্যায় নিজের রাজ্যে নিয়ে আসছেন, তখন আমরা বলিঃ “প্রভু যীশু, এস!” (প্রকাশিত বাক্য ২২:২০)। আমরা ক্রন্দন করিঃ

 

তোমার রাজ্য আসুক! (আন্দোলন)

 

কোন স্থান পরিত্যক্ত নেই! (সবাই সুসমাচার প্রাপ্ত)

 

যা পূর্বে শুরু হয়েছিল তা শেষ হয়েছে! (আমাদের পূর্বের দাসদের সম্মান প্রদান)

 

প্রার্থনার মাধ্যমে, আমরা এক জোট হিসেবে অনুভব করেছি যে ঈশ্বর আমাদের একটি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে এই কাজ সম্পূর্ণ করতে আদেশ করেছেনঃ আমাদের লক্ষ্য এই যে ২০২৫ সালের ৩১শে ডিসেম্বরের মধ্যে প্রত্যেক সুসমাচার অপ্রাপ্ত স্থানে এবং লোকদের মাঝে একটি প্রভাবশালী রাজ্যের আন্দোলনের (মণ্ডলী স্থাপনের আন্দোলন) মাধ্যমে সুসমাচার প্রদান করা।

 

আমরা এই মহান মিশনকে সম্পাদন করার জন্য বৃহত্তর রাজ্যের সহযোগীতায় সমস্ত ধরনের সংস্থাগত এবং সম্প্রদায়গত ব্র্যান্ডগুলিকে গৌন রূপে বিবেচনা করেছি। আমাদের উন্মুক্তভাবে যেকোন মানুষকে সদস্য এবং স্বেচ্ছাসেবক সৈন্যবাহিনী বানানোর জন্য যে পদটি অনুপ্রাণিত করে তা হলঃ ২৪:১৪।

 

আমরা পাশ্চাত্য-কেন্দ্রিক কর্মোদ্যোগ নই। আমরা দক্ষিণ এশিয়ার গৃহমণ্ডলীর আন্দোলন, ১০/৪০ জানালার মুসলিম লোকদের আন্দোলন, মিশনারী প্রেরক সংস্থা, আধুনিক অঞ্চলে মণ্ডলী স্থাপনের নেটওয়ার্ক, প্রতিষ্ঠিত মণ্ডলী এবং আরো অনেকের সমন্বয়ে গঠিত একটি উদ্যোগ (এই সংস্করণে বিবিধ সাক্ষ্যসমূহগুলি দেখুন)। 

 

আমরা সেই অনুঘটনকারী, সংখ্যাবৃদ্ধিকারী এবং মণ্ডলী স্থাপণ আন্দোলনগুলির সমর্থনকারীদের বিশ্বব্যাপী সুসমাচার অপ্রাপ্ত ব্যক্তি এবং স্থানকে জরুরীভাবে সংযুক্ত করার জন্য একটি সহযোগী সম্প্রদায়৷

 

খ্রীষ্টেতে ভ্রাতা বোনদের সাথে ত্যাগ স্বীকার করতে, সমস্ত লোকের প্রতি সাক্ষী হিসেবে গোটা বিশ্বজুড়ে সুসমাচার ঘোষিত হতে দেখার জন্য আমরা এক যুদ্ধকালীন মানসিকতার জন্য আহ্বানের দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়েছি (এই articleটি দেখুন)।

 

এই বিপ্লব কি অন্যান্য শত শত পরিকল্পনা থেকে ভিন্ন যা বিগত শতাব্দীগুলিতে উদ্ভূত হয়েছে?  আমরা বিশ্বাস করি হ্যাঁ (এই articleটি দেখুন)৷ আমরা এমন একটি সম্পর্কের সম্প্রদায় যা স্বয়ং আন্দোলনের তৃণমূল থেকে এসেছিল, একই দর্শনের দ্বারা বিমুগ্ধ হয় এবং এটি সংঘটিত করতে একত্রে কাজ করতে ইচ্ছুক৷ এই ২৪:১৪-এর দর্শন ঐতিহাসিক এবং বর্তমান প্রচেষ্টার চরম কার্যকারিতা সম্পূর্ণভাবে এর সংযুক্তিকরণের লক্ষ্যে পৌঁছাতে সাহায্য করে।

 

একটি অন্তিম প্রজন্ম থাকবে। এটি সমগ্র বিশ্বে ঈশ্বরের রাজ্যের বৃদ্ধির মাধ্যমে পরিচিত হবে, এবং বিশ্বব্যাপী সমস্ত বিরোধীতার মুখোমুখী হয়েও এগিয়ে যাবে। মথি ২৪ অধ্যায়ে প্রভূ যীশু যে বিষয়ে বর্ণনা দিয়েছেন তা দেখে আমাদের প্রজন্ম অদ্ভুত মনোভাব পোষন করে।

 

আমরা ২,০০০ বছরের একটি এক আত্মীক যুদ্ধের সমাপ্তি দেখতে পারি। শত্রুর পরাজয় দৃষ্টিগোচর হয়। দিগন্তেএমন কোন স্থান পরিত্যক্ত নেই যেখানে যীশুর নাম উচ্চারিত হচ্ছে না হয় (রোমীয় ১৫:২৩)। ঈশ্বর আমাদের মথি ২৪:১৪-কে পূর্ণকারী সেই প্রজন্ম হওয়ার জন্য মূল্য প্রদান এবং গভীর ত্যাগ স্বীকার করতে বলছেন৷ আপনি কি প্রস্তুত?

মিশন ফ্রন্টিয়ার্স-এর জানুয়ারী-ফেব্রুয়ারী ২০১৮ সালের প্রকাশনায়, মূলতঃ একটি প্রবন্ধ থেকে সংকলিত, http://www.missionfrontiers.org পৃষ্ঠা ৭-১২, এই উপাদানটি ২৪:১৪ – সমস্ত লোকেদের পক্ষে একটি সাক্ষ্য বই-এর পৃষ্ঠা ১৭৪-১৮১-তে বিস্তারিত এবং সম্পাদিত হয়, ২৪:১৪ থেকে বা অ্যামাজন-এ উপলব্ধ৷

মিশন ফ্রন্টিয়ারসএর জানুয়ারী-ফেব্রুয়ারি ২০১৮ সংখ্যায় প্রকাশিত একটি নিবন্ধ থেকে সম্পাদিত এবং ঘনীভূত, www.missionfrontiers.org,

পৃষ্ঠা ৭-১২, সম্প্রসারিত এবং প্রকাশিত হয়েছে ২৪:১৪ বইয়ের ১৭৪-১৮১ পৃষ্ঠায় – সমস্ত মানুষের কাছে সাক্ষ্য, ২৪:১৪

বা আমাজন

থেকে উপলব্ধ।

Categories
আন্দোলন সম্পর্কে

প্রভূ যীশুর আবৃত নীতি এবং কৌশলসমূহঃ স্থানান্তরযোগ্যতা এবং পুনরুৎপাদনযোগ্যতা

প্রভূ যীশুর আবৃত নীতি এবং কৌশলসমূহঃ স্থানান্তরযোগ্যতা এবং পুনরুৎপাদনযোগ্যতা

– সোডানকে জনসন দ্বারা লিখিত 

আমি পশ্চিম আফ্রিকার সিয়েরা লিওনে ভিত্তিক, নিউ হারভেস্ট গ্লোবল মিনিস্ট্রিজ-এর দলনেতা। আমি নতুন প্রজন্মগুলির সাথেও যুক্ত, এবং আমি যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থিত, নতুন প্রজন্মগুলির জন্য বিশ্বব্যাপী প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকি। আমি পুরো প্রাপ্তবয়স্ক জীবন ডি এম এম কর্মের এবং মণ্ডলী স্থাপণে জড়িত ছিলাম, আমি এই সুযোগ এবং অভিজ্ঞতার জন্য প্রভূর প্রতি কৃতজ্ঞ।

আমি আপনাদের সাথে প্রভূ যীশুর আবৃত নীতি এবং কৌশলসমূহঃ স্থানান্তরযোগ্যতা এবং পুনরুৎপাদনযোগ্যতা সম্পর্কে বলতে চাই। প্রভূ যীশুর স্থানান্তরযোগ্য এবং পুনরুৎপাদনযোগ্য আবৃত কৌশলসমূহ অনুসরণের মাধ্যমে, স্বদেশী মণ্ডলীগুলি অসংখ্য আন্দোলনগুলির পূনরুৎপাদন করতে পারে। প্রভূ যীশু তাঁর সমগ্র পরিচর্য্যায় কয়েকটি মৌলিক কৌশল এবং নীতিগুলি প্রয়োগ করেছিলেন। এই বিষয়গুলি জানা আমাদেরকে মহান আদেশ পালন করতে এবং বিশ্বজুড়ে ইউইউপিজি-দের কাছে পৌঁছাতে ব্যাপকভাবে সাহায্য করে।

যেমন প্রভূ যীশু তাঁর মিশনে আড়ম্বরপূর্ণ প্রবেশ করেছিলেন, তাঁর পিতার কাছ থেকে তিনি একটি আদেশ পেয়েছিলেন। এমনকি শুরু হওয়ার আগেই তাঁর কাছে শেষ ছিল। তিনি অত্যন্ত কৌশলগতভাবে সহজে পুনরুৎপাদনযোগ্য আবৃত নীতি এবং কৌশলসমূহ সম্পর্কে চিন্তা করেছিলেন। তাদের মধ্যে রাজ্যের এবং ফসলের দর্শন ছিল। রাজ্যটির মধ্যে, তিনি বলেছিলেন, “মন পরিবর্তন করো, কারণ স্বর্গরাজ্য সন্নিকট” (মথি ৪:১৭)। প্রভূ যীশুর পরিচর্য্যার মধ্যে স্বর্গরাজ্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। তিনি চেয়েছিলেন তাঁর শিষ্যরা যেন রাজ্য কি তা স্পষ্টভাবে বুঝতে পারে, তাই তিনি প্রায়শই রাজ্যের বিষয়ে কথা বলতেন। 

এটি কোন ধর্মীয় সম্প্রদায়গত মিশন ছিল না। এটি কোন মণ্ডলীর মিশন ছিল না। এটি ছিল রাজ্যের মিশন। সুতরাং প্রভূ যীশু স্পষ্টভাবেই রাজ্যের নীতিগুলির প্রবর্তন করেছিলেন। যদি আমরা ইউইউপিজি-গুলির মধ্যে অসংখ্য আন্দোলনগুলি হতে দেখতে চাই, তবে আমাদের স্পষ্টভাবে রাজ্য সম্পর্কে শিক্ষাদান, প্রশিক্ষণ এবং প্রচার করতে হবে। রাজ্য কি তা যেন লোকেরা বুঝতে পারে। রাজ্যের দর্শনকে বোঝা কার্যটিকে সহজতর করে তোলে। লোকেদের জানতে হবে যে কার্যটি করার জন্য তাদের অনুপ্রেরণা অর্থ মূল্য প্রদান নয়। এটি শিরোনামের জন্যও নয়। এটি সমস্তই ঈশ্বরের রাজ্যের সম্পর্কে। তাই আমাদের রাজ্যের বিষয়ে খুবই স্পষ্টভাবে শেখানো প্রয়োজন।

প্রভূ যীশু ফসল সম্পর্কেও বলেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, “ফসল প্রচুর, কিন্তু কর্মী সংখ্যা অল্প। তোমরা ফসলের মালিকের কাছে প্রার্থনা করো, যেন তিনি তাঁর শস্যক্ষেত্রে কর্মচারীদের পাঠান” (মথি ৯:৭-৩৮)। যদি আমরা ইউইউপিজি-দের পৌঁছাতে দেখতে চাই, তাহলে আমাদের রাজ্যকে এবং ফসলকে স্পষ্টভাবে বুঝতে এবং উপস্থাপণ করতে হবে। আমরা যেই ব্যক্তিদের শিক্ষা এবং প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকি তাদের হৃদয়ে রাজ্য এবং ফসলের দর্শনকে প্রভাবিত করা প্রয়োজন। এটি সেই প্রলোভন এবং জালকে এড়াতে সাহায্য করবে যার মধ্যে বহু লোকেরা পড়ছে। যেমন, “এটি সমস্তই আমার ধর্মীয়-সম্প্রদায় সম্পর্কে।” “এটি সমস্তই আমার মণ্ডলীর সম্পর্কে।” “এটি সমস্তই আমার নিজস্ব সাম্রাজ্য সম্পর্কে।” এটি সমস্তই রাজ্য এবং ফসল সম্পর্কে!

পরবর্তী নীতি যা প্রভূ যীশু প্রতিপাদিত করেছিলেন তা ছিল অধিকমাত্রায় প্রার্থনা। প্রভূ যীশুর পরিচর্য্যায় প্রার্থনা খুবই মহত্বপূর্ণ ছিল; তিনি জানতেন যে প্রার্থনা হলো এমন একটি ইঞ্জিন যার মধ্যে আন্দোলনগুলি চলে। অধিকমাত্রায় প্রার্থনা ছাড়া, প্রার্থনার সংস্কৃতিটি, মণ্ডলীর কেবলই এক হাঁটা-চলা। প্রভূ যীশু নিজেও, এমনকি তাঁর পরিচর্য্যা শুরু করার আগে, অনেক প্রার্থনা করেছিলেন (লুক ৪:১-২)। তিনি তাঁর ১২জন শিষ্যদের মনোনীত করার আগেও প্রার্থনা করেছিলেন (লুক ৬:১২-১৩)। তিনি তাঁর প্রতিটি দিন শুরু করার আগেও প্রার্থনা করতেন (মার্ক ১:৩৫)। এবং তিনি প্রায়শই প্রার্থনা করতেন (লুক ৫:১৬)। প্রভূ যীশু একজন প্রার্থনার ব্যক্তি ছিলেন। তিনি লাসারকে জীবিত করার আগেও প্রার্থনা করেছিলেন। তিনি যোহন ১৭:১-২৫ পদে তাঁর শিষ্যদের জন্যও প্রার্থনা করেছিলেন। তিনি আশ্চর্য্যকর্ম করার আগেও প্রার্থনা করেছিলেন। তিনি তাঁর শিষ্যদেরকে তাদের শত্রুদের জন্যও প্রার্থনা করতে বলেছিলেন (মথি ৫:৪৪)। তিনি যখন মৃত্যুর সম্মুখীন ছিলেন তখনও তিনি তিনবার প্রার্থনা করেছিলেন। ক্রুশে তাঁর প্রথম বাক্যটি ছিল প্রার্থনা এবং ক্রুশে তাঁর শেষ বাক্যটিও ছিল প্রার্থনা।

তিনি একজন প্রার্থনার ব্যক্তি ছিলেন; প্রার্থনা প্রভূ যীশুর নীতির মধ্যে এক শক্তিশালী আবর্ত ছিল। এটি যেকোন সংস্কৃতির মধ্যে সহজেই স্থানান্তরিত এবং পুনরুৎপাদনযোগ্য হয়; এটি যেকোন সম্প্রদায়ের মধ্যে অসংখ্য মণ্ডলীগুলির নেতৃত্ব করতে পারে। ঈশ্বরের লোকেদের প্রার্থনা এবং উপবাসে সময় কাটানো প্রয়োজন। আমাদের শিষ্যদেরকে আমাদের প্রার্থনার জন্য প্রশিক্ষণ এবং শিক্ষা দেওয়া দরকার। আমাদেরকে এই বার্তাটি আমাদের শিষ্যদের মধ্যে দেওয়া দরকারঃ প্রার্থনা এবং উপবাস যেমন প্রভূ যীশু করেছিলেন। যদিও তিনি শারীরিকভাবে ঈশ্বর ছিলেন, তিনি তাঁর পরিচর্য্যা আরম্ভ করার আগে প্রার্থনা করেছিলেন। যদি ঈশ্বর এত বেশী প্রার্থনা করেছিলেন, তবে আমাদেরও ততবেশী প্রার্থনা করতে হবে। আমরা যদি ইউইউপিজি-দের মধ্যে উন্নতি দেখতে প্রত্যাশা করে থাকি, তাহলে আমাদের একটি প্রার্থনার পরিচর্য্যার প্রয়োজন। আমাদের প্রার্থনাশীল শিষ্যদের প্রয়োজন। যখন আমরা প্রার্থনা করি এবং শিষ্যদের উপবাস এবং প্রার্থনার জন্য তৈরী করি,  আমরা অসংখ্য আন্দোলনগুলি দেখতে পারার প্রত্যাশা করতে পারি। মনে রাখবেন প্রার্থনা হলো আন্দোলনের ইঞ্জিন। কেবলমাত্র যেমন প্রভূ যীশুর কাছে রাজ্য এবং ফসলের এক স্পষ্ট দর্শন ছিল, তাঁর কাছে অধিকমাত্রায় প্রার্থনার দর্শন ছিল।

প্রভূ যীশুর আবর্ত নীতিগুলির অপরটি হলো সাধারণ ব্যক্তিদের নীতি। প্রভূ যীশু লোকেদের ক্ষমতায়ণ করেন, প্রত্যেক বিশ্বাসীদের ক্ষমতায়ণ করেন। সেইভাবেই পরিচর্য্যা পরিমাপযোগ্য এবং পুনরুৎপাদনযোগ্য হয়ে ওঠেঃ সাধারণ ব্যক্তিদের মাধ্যমে। যখন আমরা মথি ৪:১৮, মথি ১০:২-৪, এবং প্রেরিত ৪:১৩ পড়ি, আমরা দেখতে পারি প্রভূ যীশু কিভাবে সাধারণ ব্যক্তিদের প্রতি জোর দিয়েছিলেন। সাধারণ ব্যক্তিরাই ছিল প্রভূ যীশুর পরিকল্পনা “ক” এবং একমাত্র পরিকল্পনা। এখনও পর্যন্ত তারা প্রভূ যীশুর পরিকল্পনা “ক” এবং একমাত্র পরিকল্পনা। সাধারণ লোকেরা কার্যটি সম্পাদন করতে চলেছেন। যখন আমরা লোকেদের প্রশিক্ষিত এবং শিষ্য করি, আমাদেরও সাধারণ ব্যক্তিদের প্রতি নজর রাখতে জোর দেওয়া প্রয়োজন। সারা বিশ্বে আপনি যেখানেও যান, আপনি সাধারণ ব্যক্তিদের খুঁজে পাবেন। আমাদের কাছে বিশাল সংখ্যায় সাধারণ ব্যক্তিরা বসে রয়েছে।

প্রভূ যীশু জানতেন তিনি পেশাগতদের খুঁজছিলেন না। তিনি সাধারণ ব্যক্তিদের খুঁজছিলেন। আমরা যখন প্রভূ যীশুর চারপাশের লোকেদের দেখি, তাদের মধ্যে প্রত্যেকেই সাধারণ ব্যক্তি ছিল। তিনি সাধারণ ব্যক্তিদের প্রতিই তাঁর জোর দিয়েছিলেন। তাদের প্রশিক্ষিত করে এবং তাদের প্রশিক্ষণ দিয়ে এবং তাদের সক্ষম করে তুলেছিলেন যেমন তিনি তাদের করতে চেয়েছিলেন। সুতরাং যদি আমরা বিশ্বজুড়ে আন্দোলনগুলি হতে দেখতে চাই, যদি ইউইউপিজি-দের কাছে পৌঁছোতে মনস্থ করে নিয়েছি, তাহলে আসুন সাধারণ ব্যক্তিদের সাথে করি। যেখানেও আমরা যাই – প্রত্যেক সম্প্রদায়ের মধ্যে, প্রত্যেক সংস্কৃতির মধ্যে – প্রভূ যীশুর মতো, কেবল সাধারণ ব্যক্তিদের খোঁজ করুন। সাধারণ ব্যক্তিদের আবর্ত নীতি এবং কৌশলসমূহ প্রভূ যীশুর পরিচর্য্যার মূল ছিল, এবং এটি বিশ্বজুড়ে অসংখ্য আন্দোলনগুলিকে নেতৃত্ব প্রদান করতে পারে। 

প্রভূ যীশুর বলা পরবর্তী আবর্ত নীতিটি ছিল এমন শিষ্য তৈরী করা যারা শিষ্য তৈরী করে। প্রভূ যীশু বলেছিলেন, তোমরা যাও ও সমস্ত জাতি থেকে শিষ্য তৈরি করো, …তাদের বাপ্তিষ্ম দাও। আর আমি তোমাদের যে সমস্ত আদেশ দিয়েছি, সেগুলি পালন করার জন্য তাদের শিক্ষা দাও” (মথি ২৮:১৯-২০)। প্রভূ যীশু তাঁর শিষ্যদের খুবই স্পষ্টভাবে বলেছিলেনঃ তাদেরকে জগতে যাওয়ার প্রয়োজন ছিল। তিনি তাদের যাওয়া চেয়েছিলেন! কিন্তু যখন আপনি যান, মূল বিষয়টি কি? মূল কৌশলটি কি? যখন আপনি যান, শিষ্য তৈরী করুন। শিষ্য তৈরী হলো প্রভূ যীশুর আবর্ত কৌশল এবং নীতিগুলির অত্যন্ত মূল বিষয়। তিনি সান্ত্বনায় আগ্রহী ছিলেন না; তিনি শিষ্যে আগ্রহী ছিলেন। কারণ তিনি জানতেন শিষ্য তৈরী হলো স্থানান্তরযোগ্য এবং পুনরুৎপাদনযোগ্য। শিষ্যেরা যারা শিষ্যদের তৈরী করে তারা বাধ্য হলে অসংখ্য আন্দোলনগুলির নেতৃত্ব করবে। তিনি শুধুমাত্র জ্ঞান-ভিত্তিক শিষ্যদের চান না। তিনি বাধ্যতা-ভিত্তিক শিষ্যত্ব চেয়েছিলেন। সেই কারণেই পৌল তিমথীকে লিখেছিলেনঃ “আর বহু সাক্ষীর উপস্থিতিতে তুমি আমাকে যেসব বিষয় বলতে শুনেছ, সেগুলি এমন নির্ভরযোগ্য ব্যক্তিদের হাতে অর্পণ করো, যারা আরও অন্যদের কাছে সেগুলি শিক্ষা দিতে সমর্থ হবে” (২তিমথী ২:২)। পৌল তিমথীকে যা লিখেছিলেন আমি তার প্রতি দৃষ্টিপাত করতে চাইঃ তোমার কাছে যেই শিক্ষা ছিল, যেই শিক্ষা আমি তোমাকে দিচ্ছি, যেই প্রশিক্ষণ আমি তোমাকে দিচ্ছি — এটি অতি গুরুত্বপূর্ণ যে সাক্ষীদের উপস্থিতিতে তুমি আমাকে এইসব বিষয় বলতে শুনেছ। এখন আপনাকে শিষ্য নির্মাণকারী শিষ্যে নিবেশ করা প্রয়োজন। আপনিও চারিদিকে ঘুরে বিশ্বাসযোগ্য শিষ্যদের প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হন যারা তারপরে অন্যদের সজ্জিত করবে। এটি সেই বহু-প্রজন্মগত শিক্ষণ এবং প্রশিক্ষণ যা পৌল তিমথীকে স্থানান্তরিত করেছিলেন, যিনি অন্যান্য বিশ্বাসযোগ্য শিষ্যদের প্রতিও প্রতিশ্রুতিবদ্ধ ছিলেন। প্রভূ যীশু বাধ্যতা-ভিত্তিক শিষ্য তৈরী করেছিলেন। যদি আমরা অসংখ্য আন্দোলনগুলি দেখতে কোনও সুযোগ চাই, তবে আমাদের শিক্ষা, প্রচার, প্রশিক্ষণ, এবং আদর্শ আনুগত্যের প্রয়োজন – ঠিক যেমন প্রভূ যীশু এটি করেছিলেন এবং তাঁর শিষ্যদের শিখিয়ে ছিলেন।

পরবর্তী নীতিটি ছিল শান্তির ব্যক্তি, যেমন আমরা মথি ১০:১১-১৪ পদে দেখি। যখন প্রভূ যীশু তাঁর শিষ্যদের প্রেরণ করেছিলেন, তিনি তাদের বলেছিলেনঃ “আর তোমরা যে নগরে বা গ্রামে প্রবেশ করবে, সেখানকার কোনো উপযুক্ত লোকের সন্ধান করে সেই স্থান ত্যাগ না করা পর্যন্ত তার গৃহেই থেকো। সেই গৃহে প্রবেশ করার সময়, তোমরা তাদের শুভেচ্ছা জানিয়ো। যদি সেই গৃহ যোগ্য হয়, তোমাদের শান্তি তার উপরে বিরাজ করুক; যদি যোগ্য না হয়, তাহলে তোমাদের শান্তি তোমাদেরই কাছে ফিরে আসুক। কেউ যদি তোমাদের স্বাগত না জানায়, বা তোমাদের কথা না শোনে, সেই গৃহ বা নগর ত্যাগ করার সময় তোমাদের পায়ের ধুলো ঝেড়ে ফেলো।” তিনি তাদের বলেছিলেনঃ “তোমরা যাও এবং উপযুক্ত লোকের সন্ধান করো।” আমরা এটিকে এক শান্তির ব্যক্তি বলে থাকিঃ সম্প্রদায়ের মধ্যে ঈশ্বর কাউকে আপনার আগে তৈরী করেছেন। শান্তির ব্যক্তি সম্প্রদায়ের মধ্যে একটি পুল স্বরূপ। একজন শান্তির ব্যক্তি হলেন একজন প্রভাবকারী ব্যক্তি যিনি স্বেচ্ছায় আপনাকে গ্রহণ করবেন এবং আপনার বার্তা শুনবেন, ও বেশীরভাগ সময় প্রভূ যীশুর এক অনুসারী হবেন। প্রভূ যীশু খুব ভালোভাবে জানতেন যে তাঁর আন্দোলন ইতিমধ্যেই প্রতিটি সংস্কৃতির মধ্যে এক ব্যক্তির আন্দোলন হয়ে উঠবে। শান্তির ব্যক্তি নীতিটি সেইসব বাধা এবং সংস্কৃতি এবং ধার্মিক লালফিতাধারী যা আজ আমাদের কাছে রয়েছে সংক্ষিপ্ত করে দেয়। যদি আমরা ইউইউপিজি-দের মধ্যে আন্দোলনগুলি হতে দেখতে চাই, তবে আমাদের এই শান্তির ব্যক্তি নীতিটি প্রয়োগ করতে হবে। এটি কমদামী। এটি খুবই সহজও। কারণ যখন আপনার কাছে কোন সাংস্কৃতিক অভ্যন্তর থাকে, তাদের গিয়ে সমস্ত ভাষাগুলি শেখার প্রয়োজন হয় না। তারা ইতিমধ্যেই ভাষাগুলি জানেন। আপনাদের অভ্যন্তরীণদের জন্য বেশী খরচ করার প্রয়োজন হয় না। কারণ সেটি তাদেরই সংস্কৃতি, তাদের কাছে এক আবেগ রয়েছে। তারা এলাকা সম্পর্কে জানেন এবং তারা সংস্কৃতি এবং বিশ্বদর্শনকে বুঝতে পারেন ও সহজেই তাদের সাথে সম্পর্কিত হতে পারেন। অভ্যন্তরীণদের আগের থেকেই সংস্কৃতির মধ্যে একটি সম্পর্ক রয়েছে। সেইজন্যই প্রভূ যীশু শান্তির ব্যক্তির নীতি এবং কৌশল সম্পর্কে ঘোষণাটিকে প্রেরণ করেছিলেন। এটি যেকোন সংস্কৃতির মধ্যে স্থানান্তরযোগ্য এবং পুনরুৎপাদনযোগ্য।

প্রভূ যীশুর আবর্ত নীতিগুলির মধ্যে অপরটি হলো পবিত্র আত্মার নীতি, যেমন আমরা যোহন ১৪:২৬; ২০:২২ এবং প্রেরিত ১:৮ পদে দেখি। পবিত্র আত্মা সারা বিশ্বজুড়ে হওয়া স্থায়ী আন্দোলনগুলির মধ্যে এক গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করেন। পবিত্র আত্মা শিষ্যদের এবং শিষ্য নির্মাণকারীদের জীবনে এক জীবন্ত জলস্রোত, যেমন যোহন ৭:৩৭-৩৮ পদে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ রয়েছে। ডি এম এম প্রক্রিয়ার মধ্যে পবিত্র আত্মা হলেন সহায়ক এবং শিক্ষক। আমরা যোহন ১৪:২৬; ১৬:১৪-১৫, ৩২ পদে পড়ি যে পবিত্র আত্মা হলেন অন্তর্নিহিত শক্তি যা আমাদের রাজ্যের সাক্ষী হওয়ার জন্য যোগ্য করে তোলে। প্রেরিত ১:৮ পদে প্রভূ যীশু তাঁর শিষ্যদের বলেছিলেনঃ  “তোমরা যেরুশালেম ছেড়ে যেয়ো না, যতক্ষণ না পবিত্র আত্মার শক্তি পাও, এবং তখন তোমরা আমার সাক্ষী হবে।” পবিত্র আত্মা অসাধারণ আশ্চর্যকর্ম করেছিলেন এবং সবচেয়ে সাহসী শিষ্যদেরও উৎসাহিত করেছিলেন, যেমন আমরা প্রেরিত ৪:১৮-২০; ৯:১৭ পদে দেখি। পবিত্র আত্মা এমনকি অতি সম্ভাবনাময় ব্যক্তিদেরও দ্রুত সংখ্যাবৃদ্ধির জন্য দ্বার উন্মুক্ত করতে ব্যবহার করতে পারেন। প্রেরিত ১০:৪৪-৪৮ পদে আমরা দেখি যে পবিত্র আত্মা কেবলমাত্র অতীতের ব্যক্তিদের নিমিত্তেই নন; কিন্তু তিনি আজকের আমাদের জন্য কার্য করেন। পবিত্র আত্মার স্থায়ী শক্তি ছাড়া আমরা কখনই এক স্থায়ী শিষ্য নির্মাণকারী আন্দোলনকে দেখতে পারব না। প্রভূ যীশু এই নীতির প্রতি জোর দিয়েছিলেন কারণ তিনি জানতেন বিশ্বজুড়ে আপনার অবস্থা বাস্তবিকভাবেই কিছু যায় আসে না। আপনি যেখানেও থাকুন না কেন পবিত্র আত্মা আপনার কাছে পৌঁছে যেতে পারেন। এই নীতিটি স্থানান্তরযোগ্য; আপনি এটিকে যেখানেও নিয়ে যেতে পারেন। আপনি এটিকে যেখানেও পুনরুৎপাদন করতে পারেন। যদি আমরা এই কার্য হতে দেখতে চাই, তাহলে আমাদের এটিকে প্রভূ যীশুর উপায়ে করতে হবে। এই কার্যের জন্য পবিত্র আত্মা অপরিহার্য। তিনি প্রত্যেকটি স্বদেশী মণ্ডলী, প্রত্যেকটি শিষ্য এবং প্রত্যেকটি শিষ্য নির্মাণকারীর জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

পরবর্তী নীতিটি হলো বাক্যের সরলতা। মথি ১১:২৮-৩০ এবং লুক ৪:৩২ পদে আমরা দেখি যে প্রভূ যীশু কেবলমাত্র তাঁর চরিত্রকে স্বাগতই করছেন না; তিনি তাঁর শিক্ষার মধ্যেও সরল। ভিড় সরলতার জন্যই তাঁর শিক্ষাকে ভালোবাসতো। প্রভূ যীশু জটিল বিষয়গুলিকে সরল করে তুলতেন এবং সরল বিষয়গুলিকে আরও সহজতর করতেন। যদি আমরা ইউইউপিজি-দের মধ্যে অগ্রগতি দেখতে চাই, তাহলে আমাদের প্রভূ যীশুর স্থানান্তরযোগ্য এই আবর্ত নীতিটিকে অনুসরণ করা প্রয়োজনঃ বিষয়গুলি অত্যন্ত সরল করে তোলা।

প্রভূ যীশুর ব্যবহৃত অপর আবর্ত নীতিটি ছিল প্রবেশাধিকার পরিচর্য্যা, বা অনেকে যা বলে থাকে আবেগপূর্ণ পরিচর্য্যা। আমরা তা মথি ৯:৩৫; ১৪:১৭; লুক ৯:১১; ১১:১; মার্ক ৬:৩৯-৪৪ পদে দেখতে পাই। প্রভূ যীশু আরোগ্যতাকে প্রবেশাধিকার স্বরূপ মথি ৯:৩৫ পদে ব্যবহার করেছিলেন। লুক ৯:১১ পদে প্রভূ যীশু পুনরায় আরোগ্যতাকে প্রবেশাধিকার পরিচর্য্যা স্বরূপ ব্যবহার করেছিলেন। তিনি খাবারকেও প্রবেশাধিকার পরিচর্য্যা (আবেগপূর্ণ পরিচর্য্যা) স্বরূপ ব্যবহার করেছিলেন। আমাদের রাজ্যের অগ্রগতির জন্য, প্রভূ যীশুর কাছ থেকে শেখা এবং ঈশ্বর যা কিছুর সাথে আমাদের আশীর্বাদ করেছেন তা উন্মুক্ত হাতে ধরে রাখা প্রয়োজন। 

প্রভূ যীশুর ব্যবহৃত পরবর্তী নীতিটি ছিল তাঁর শিষ্যদেরকে সংস্থানের জন্য ঈশ্বরের উপর নির্ভরশীলতা রাখতে বলা (মথি ১০:৯-১০; গীত সংহিতা ৫০:১০-১২)। আমাদের প্রত্যেককে এই আবর্ত নীতি গ্রহণ করা উচিত। এটি স্থানান্তরযোগ্য এবং পুনরুৎপাদনযোগ্য। যদি আমরা এটি গ্রহণ করি, এটি আন্দোলনকে নেতৃত্ব দান করবে। প্রভূ যীশুর বার্তা খুবই স্পষ্ট ছিলঃ “কিছুই না নিয়ে যাও এবং সংস্থানের জন্য ঈশ্বরের উপর নির্ভরশীল হও।” আমরা জানি যে ঈশ্বর বিগত দিনেও এই কার্যকে সমর্থন করেছেন, এবং ভবিষ্যত্বেও যদি এই কার্য তাঁর উপায়ে করা হয় তাহলে তিনি সর্বদা আমাদের সমর্থন করবেন। বিশ্বব্যাপী মণ্ডলী এক বিশ্বব্যাপী ঈশ্বরকে কোনো ভাবেই নিঃস্ব করতে পারে না। তাঁর সংস্থানগুলি সীমাহীন। আমরা ঈশ্বরের উপর তাঁর সংস্থানের জন্য নির্ভরশীল হতে পারি। যখন আমরা মুখ খুলে তাঁর কাছে যাচনা করি, তিমি সংস্থান সরবরাহ করবেন। প্রভূ যীশু জানতেন যদি তিনি এই নীতিটি প্রয়োগ করেন, তাহলে আমরা একটি বিস্ফোরণ দেখতে পাবো। আমরা সংখ্যাবৃদ্ধি এবং পুনরুৎপাদনযোগ্যতাকে দেখবো। যেকোন স্বদেশী মণ্ডলীর মধ্যে, যেকোন সংস্কৃতিতে – এটি অনেকটাই স্থানান্তরযোগ্য। যদি আমরা এটি প্রভূ যীশুর কৃত উপায়ে করে থাকি, তবে প্রেরিতদের কার্যবিবরণীতে যা দেখেছিলাম সেখানে ফিরে আসি। যা প্রারম্ভিক দিনের মণ্ডলীতে হতো তা পুনরায় আমাদের মণ্ডলীগুলিতেও শুরু হতে পারে। এটি ইউইউপিজি-দের মধ্যে নিশ্চয়ই শুরু হতে পারে। কিন্তু যদি আমরা এটি প্রভূ যীশুর উপায়ে না করি, তাহলে আমরা আমাদের সময় নষ্ট করছি। এটি ঈশ্বরের ব্যবসা, সুতরাং যদি আমরা সফল হতে চাই, তবে আমাদের অবশ্যই প্রভূ যীশুর উপায়ে এটি করতে হবে। এটি তাঁর আবর্ত নীতি। এটি তাঁর পরিকল্পনা এবং এটি তিনি কারও জন্য পরিবর্তন করবেন না।

সংক্ষিপ্তসার হিসাবে, আমি আপনাদের পুনরায় প্রভূ যীশুর ফসল এবং রাজ্যের দর্শনকে স্মরণ করাতে চাই। অধিকমাত্রায় প্রার্থনা সম্পর্কে। সাধারণ ব্যক্তি সম্পর্কে। আমি আপনাদের এই আবর্ত নীতিগুলি সম্পর্কে স্মরণ করাতে চাইঃ শিষ্য নির্মাণকারী শিষ্যদের যারা শিষ্যদের নির্মাণ করে, এবং শান্তির ব্যক্তি। আমি আপনাদের পবিত্র আত্মা এবং বাক্যের সরলতার আবর্ত নীতি সম্পর্কেও স্মরণ করাতে চাই। এবং প্রবেশাধিকার পরিচর্য্যা (আবেগপূর্ণ পরিচর্য্যা) ও সংস্থানের জন্য ঈশ্বরের উপর নির্ভরশীলতা-কে ভুলবেন না। এগুলি আমাদেরকে মনে রাখা দরকার।

আমি আপনাদের আশ্বস্ত করতে পারি যে যদি আমরা বিষয়গুলি ঈশ্বরের উপায়ে করি, তিনি সর্বদা বিশ্বাসযোগ্য, যেমন তিনি অতীতে সর্বদা বিশ্বাসযোগ্য ছিলেন। জগৎ পরিবর্তন হচ্ছে এবং এটি পরিবর্তন হতে থাকবে, কিন্তু আমাদের ঈশ্বর কখনও পরিবর্তন হবেন না। আপনি ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনায় কোনকিছু চেয়ে তাঁকে নিঃস্ব করতে পারবেন না। আমি বিশ্বাস করি কোন আন্দোলনের মধ্যে দেখার জন্য ঈশ্বর আপনাকে মহানভাবে ব্যবহার করতে পারেন। আসুন ফসলের প্রভূর কাছে প্রার্থনা করি যাতে তিনি শস্যক্ষেত্রে শ্রমিকদের প্রেরণ করবেন। আসুন এও প্রার্থনা করি যেখানেও লোকেরা সুসমাচারের জন্য যাক না কেন তাদের জন্য দ্বার উন্মুক্ত থাকবে। যেন তারা হারিয়ে যাওয়া এবং মৃতপ্রায় লোকেদের কাছে সুসমাচার নিয়ে যেতে সক্ষম হয়। আসুন আমরা সেই কার্যের সংস্থানে জন্যও ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করি। আসুন আমরা শান্তির ব্যক্তির জন্য প্রার্থনা করি — যেন ঈশ্বর দ্বার উন্মুক্ত করে শান্তির ব্যক্তিকে সনাক্ত করেন।

এই আবর্ত কৌশলসমূহ যেকোন সংস্কৃতির মধ্যে স্থানান্তরযোগ্য এবং পুনরুৎপাদনযোগ্য। স্বদেশী মণ্ডলীগুলি তাদের অসংখ্য আবর্ত আন্দোলনগুলিকে নেতৃত্ব প্রদান করতে ব্যবহার করতে পারে। এটি তত্ত্ব নয়। এটিই, যার জন্য আমি জীবন যাপন করি, যার জন্য আমি কার্য করছি এবং যার জন্য (যদি প্রয়োজন হয়) আমি মারা যাব। আমি আমাদের সকলকে উৎসাহিত করতে চাই যে এটি করা যেতে পারে। এই বিষয়গুলি আপনার হৃদয়ে রেখে তার জন্য প্রার্থনা করুন। শুরুতে এটি কঠিন হতে পারে। কিন্তু বিশ্বাস রাখুন ঈশ্বর আপনাকে প্রগতি দিবেন। এটি তিনি আমাদের জন্যও করেছেন যেমন আমরা সর্বত্র অসংখ্য মণ্ডলীগুলিকে দেখেছি। আপনার জন্যেও এটি ঘটতে পারে। সুতরাং আমি আপনাকে দৃঢ় হতে উৎসাহিত করি। আমেন।

Categories
আন্দোলন সম্পর্কে

বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের মধ্যে আন্দোলনগুলির উদ্বোধনঃ সেরা পন্থাগুলির বিষয়গত অধ্যয়ন

বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের মধ্যে আন্দোলনগুলির উদ্বোধনঃ সেরা পন্থাগুলির বিষয়গত অধ্যয়ন

– স্টিভ পার্লাটো  দ্বারা লিখিত – 

গ্লোবাল অ্যাসেম্বলি অফ পাষ্টার্স ফর ফিনিশিং দ্য টাস্ক এর জন্য একটি ভিডিও থেকে গৃহিত

ভাগ ২: ফলপ্রসূ উপকরণ এবং পদ্ধতিগুলি

বৌদ্ধ বিশ্বদর্শনে কথা বলার জন্য, বাস্তবিকতার এই বিরাট ভিন্ন বোঝাপড়ায়, আমি এবং অন্যরা কিছু উপকরণগুলির বিকাশ করেছিলাম। এই উপকরণগুলি এমনভাবে সুসমাচারে যোগাযোগ করে, বার্তাকে প্রাসঙ্গিক করে তোলে, যা বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের মধ্যে অনেক অধিক কর্ষণ কেড়ে নেয়। সেই উপকরণগুলির মধ্যে একটি হলো “নির্ণয়ের জন্য সৃষ্টি।” এক দ্বিতীয় উপকরণ যাকে আমি “প্রভূ যীশুর চারটি মহৎ সত্য” বলে থাকি। এই উপকরণটি মায়ানমারে এক বৌদ্ধ-পটভূমিগত বিশ্বাসী এবং এক প্রবাসী সুসমাচারের অর্থ এবং স্থানীয় বামার বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী লোকেদের কাছে যোগাযোগের প্রয়োজনীয় অর্থ নিয়ে লড়াই করার জন্য একত্র হয়ে কাজ করেছিলেন, দ্বারা বিকাশপ্রাপ্ত হয়। “প্রভূ যীশুর চারটি মহৎ সত্য” বহু কর্ষণকে দেখেছেঃ প্রচুর বৌদ্ধ-পটভূমিগত বিশ্বাসীরা বিশ্বাসে আসেন। তারপর উপকরণটিকে থাইল্যান্ড এবং কম্বোডিয়া-তে নিয়ে যাওয়া হয়। আমরা কম্বোডিয়া-তে কিছু কর্ষণ দেখেছি, কিন্তু থাইল্যান্ডে ততটা নয়, (আংশিকভাবে কারণ বহু লোকে এর ব্যবহার করে নি)। থাইল্যান্ডে এর নিজস্ব প্রভাবকে বাস্তবে দেখতে এটি ব্যাপকভাবে পর্যাপ্তরূপে প্রয়োগ করা হয় নি। কিন্তু থাই প্রসঙ্গে আমার নিজস্ব অনুভবে, বহু বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের সাথে আমি কথা বলেছি যারা শর্তগুলি জানত না। তারা উপকরণটির ব্যবহার করে তৈরী হওয়া বৈপরীত্যগুলির সাথে পরিচিত ছিল না। আমি বার্তাবাহকরূপে তাদের বৌদ্ধিক ধারণাগুলি যার সঙ্গে তারা মোটেই পরিচিত ছিল না বোঝাতে শুরু করি।

মায়ানমার প্রসঙ্গের মধ্যে, মনে হয় যে গড়পড়তার ব্যক্তি এই শর্তাবলীর সাথে খুবই পরিচিত এবং অবিলম্বে বোঝাপড়ার জালিয়াতি করা যেতে পারে। বুদ্ধের চারটি মহৎ সত্যের মধ্যে, খ্রীষ্টানরা সম্পূর্ণরূপে একমত যে জীবন দুঃখভোগে পূর্ণ। এটি শুধুমাত্র দুঃখে পূর্ণ নয়, আমরা জানি এটি ঠিক কোথায় থেকে এসেছে। আপনি আদিপুস্তকের প্রথম তিনটি অধ্যায়্গুলি থেকে বিষয়গুলি উদ্ধৃত করতে পারেন। আপনি সম্পূর্ণরূপে একমত হতে পারেন যে থুনহা (ইচ্ছা) রয়েছে। আমরা মাংস দেখি — মানুষের বাহ্যিক মন্দ চরিত্র — একত্রে এসে এবং এমন সমাজ সৃষ্টি করছে যেগুলি ভগ্নঃ দুঃখে পূর্ণ এবং দুঃখের সৃষ্টি করে। সুতরাং দুঃখ পাপ এবং অবাধ্যতা, এবং আমাদের সৃষ্টিকর্তার সাথে এক ভগ্ন সম্পর্ক থেকে আসে। আমরা একই পর্যবেক্ষণ করতে পারি যে জীবন পাপে পূর্ণ এবং এর উৎসগুলি আকাঙ্খায় অধিক রয়েছে। অবশেষে, দুঃখবিহীন একটি স্থান আছে। তারা একে নির্বাণ বলেন, আমরা একে বলি ঈশ্বরের রাজ্য।

আপনি যদি স্বর্গ শব্দটি ব্যবহার করেন, তৎক্ষনাত আপনার যোগাযোগের সমস্যা হবে। বৌদ্ধদের কাছে আগের থেকেই স্বর্গের সাতটি স্তর রয়েছে, সুতরাং তাদের কোন খ্রীষ্টান স্বর্গের প্রয়োজন নেই; ইতিমধ্যেই তারা স্বর্গ পেয়ে গেছে। স্বর্গ হলো বৌদ্ধ বিশ্বদর্শনের সম্পূর্ণ বাহ্যিক কিছু বলতে আমরা যা বুঝি। এটি কর্ম থেকে মুক্ত হওয়াঃ আপনার পাপ, কর্ম এবং এর প্রভাব। প্রভূ যীশুর মধ্যে সু-খবরটি হলো যে আপনার পাপ এবং আপনার কর্ম থেকে আপনি মুক্তি পেতে পারেন এবং তাঁর সাথে অনন্ত জীবনের আনন্দ উপভোগ করতে পারেন। চারটি মহৎ সত্যের চতুর্থ বিষয়টি হলো যে আপনি অষ্টাঙ্গিক মার্গের পূর্ণ বাস্তবায়নের মাধ্যমে পরিত্রাণ লাভ করেছেন। খ্রীষ্টত্বের মধ্যে, আমাদের কাছে কেবলমাত্র একটি পথ রয়েছেঃ প্রভূ যীশুর অনুসরণ করুন, প্রভূ যীশুই পথ, সত্য, এবং জীবন; তাঁর মাধ্যমে না এলে কেউই পিতার কাছে আসতে পারে না। জীবনে প্রবেশ করার দ্বার সংকীর্ণ ও পথ দুর্গম; সেই দ্বার এবং সেই দুর্গম পথটি হলেন প্রভূ যীশু। সুতরাং আমাদের কাছে একটিই পথ আছে আটটি নয়। অন্য উপকরণটি, “নির্ণয়ের জন্য সৃষ্টি,” আমি ব্যক্তিগতভাবে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের সাথে যোগাযোগ সাধনকারী অর্থে খুবই কার্যকর হতে দেখেছি। আমি এই উপকরণটি ব্যবহার করতে কয়েকশত অন্যান্যদের প্রশিক্ষণ দিয়েছি এবং পরিবর্তে তারাও অন্যদের প্রশিক্ষিত করেছেন। তাদের মধ্যে অনেকেই নির্ণয়ের জন্য সৃষ্টি বিশ্লেষণটি প্রয়োগ করে উত্তম সাফল্যাতার প্রতিবেদন প্রদান করছেন। থাইল্যান্ডে, আমাদের নির্ণয়ের জন্য সৃষ্টি উপকরণ বলতে প্রায় সাড়ে তিন মিনিট সময় লাগে এবং এটি এমন হয়ঃ

শুরুতে ঈশ্বর স্বর্গগুলি সৃষ্টি করলেন ও তিনি পৃথিবী সৃষ্টি করলেন। স্বর্গে তিনি স্বর্গদূতদের সৃষ্টি করলেনঃ বহু, বহু স্বর্গদূতেরা যারা ঈশ্বরের সেবা এবং উপাসনা করার জন্য সেখানে ছিল। তিনি একজন পুরুষ এবং একজন স্ত্রীকে তাঁর সাদৃশ্যে তাঁর সাথে থাকার জন্য বানিয়েছিলেন। এবং একটি ভালো পরিবারের মতো ঈশ্বর এবং মানুষের মধ্যে এক ঘনিষ্ট সম্পর্ক ছিল। ঈশ্বরের বানানো সমস্তকিছুই সত্যিই ভালো ছিল। কিন্তু একটি সমস্যা হয়েছিল। স্বর্গে, একটি দূত এবং তার দল ঈশ্বরের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করে। তারা ঈশ্বরের মতো হতে চেয়েছিল, তাই ঈশ্বর তাদের স্বর্গ থেকে বের করে নীচে পৃথিবীতে ফেলে দেন, যা অন্য সমস্যার সৃষ্টি করেছিল। ঈশ্বরের তৈরী লোকেরা ঈশ্বরের বাধ্য হয় নি, তাই ঈশ্বর এবং মনুষ্যত্বের মধ্যেকার ঘনিষ্ট পারিবারিক সম্পর্ক ভেঙ্গে যায়। সেই মুহুর্তেই, মৃত্যু জগতে এসেছিল; দুঃখ জগতে এসেছিল এবং আজকের এই সময় পর্যন্ত অব্যাহত রয়েছে। সবকিছুই ছিল এক ভয়াবহ গণ্ডগোল। কিন্তু ঈশ্বর, যিনি মানুষদের প্রেম করেন, বিষয়গুলিকে এই পরিস্থিতিতেই ছেড়ে দেন নি। তিনি প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন যে একজন মুক্তিদাতা, একজন সহায়ক আসবেন এবং মানুষ ও ঈশ্বরের মধ্যেকার সম্পর্ককে পুনর্স্থাপন করবেন৷ সেই সহায়ক, সেই মুক্তিদাতা, হলেন প্রভূ যীশু। প্রভূ যীশু একটি নিখুঁত জীবন যাপন করেছিলেন; তিনি কখনই পাপ করেন নি। তাঁর কাছে অসুস্থতা নিরাময়ের, অন্ধ লোকেদের দেখতে, এবং বধিরদের শুনতে সাহায্য করার ক্ষমতা ছিল। যদি লোকেদের মধ্যে মন্দ আত্মা থাকতো, তবে তিনি তাদের তাড়িয়ে দিতে সক্ষম ছিলেন। এমনকি তিনি মৃত ব্যক্তিদেরও জীবিত করেছিলেন। কিন্তু এত ভালো জীবন যাপনের সত্বেও, প্রভূ যীশুর সময়কার ধর্মীয় নেতারা প্রভূ যীশুকে মেরে ফেলার পরিকল্পনা করেছিলেন, একটি ক্রুশে বিদ্ধ করে মেরে ফেলার পরিকল্পনা। তারা প্রভূ যীশুকে বন্দী করে এবং তাঁকে ক্রুশে বিদ্ধ করে। তিনি মারা যাওয়ার পর তারা তাঁর দেহটি নীচে নামিয়ে একটি গুহার মধ্যে, কবরে রেখে দেয়। ঈশ্বর নীচে তাকিয়ে প্রভূ যীশুর ত্যাগকে দেখেন এবং তিনি প্রসন্ন হন। তাঁর প্রসন্নতা প্রকাশ করার জন্য, তিনি প্রভূ যীশুকে তৃতীয় দিনে মৃতদের মধ্যে থেকে পুনরুত্থিত করেছিলেন। বাইবেলে এমন বলে যে কেউ তাদের পাপ থেকে ফিরে এবং তাদের বিশ্বাস এবং ভরসাকে এই সহায়ক প্রভূ যীশুর উপর রাখে, তারা তাদের পাপ — কর্মফল থেকে মুক্ত হতে সক্ষম হবে। তাদের ঈশ্বরের সন্তান হবার এবং সর্বদা জীবিত থাকার অধিকার প্রদান করা হবে। এবং তারা পবিত্র আত্মা গ্রহণ করবে যাতে তারা এক ঈশ্বরকে সন্তুষ্টকারী জীবন যাপন করার ক্ষমতা অর্জন করে। প্রভূ যীশু মৃতদের মধ্য থেকে পুনরুত্থিত হবার পর, তিনি প্রায় ৪০ দিন তাঁর শিষ্যদের সাথে কাটিয়েছিলেন। তারপর তিনি আরোহণ করে স্বর্গে গেলেন। কিন্তু প্রভূ যীশু বলেছিলেন তিনি ফিরে আসবেন। যখন তিনি ফিরে আসবেন, সমস্ত স্থানের, সমস্ত প্রজন্মের, সমস্ত লোকেরা যারা কখনও বেঁচে ছিলেন, ঈশ্বরের ন্যায় সিংহাসনের সম্মুখে উপস্থিত হবে। প্রত্যেক ব্যক্তি একে একে করে, তাদের কৃতকর্মের, তাদের ভাল এবং মন্দ কাজের জন্য দায়বদ্ধ হতে এগিয়ে যাবে। যারা প্রভূ যীশুর উপর তাদের বিশ্বাস এবং ভরসা রেখেছে তারা তাঁর রাজ্যে তাঁর সাথে সদা জীবিত থাকবে। যারা এখনও প্রভূ যীশুর উপর বিশ্বাস এবং ভরসা রাখেনি তারা সদাকালের জন্য তাঁর থেকে আলাদা হয়ে যাবে। [ব্যক্তির নাম], আমি ঈশ্বরের পরিবারের একজন সদস্য এবং ঈশ্বর আপনাকে প্রেম করেন এবং তিনি চান আপনিও তাঁর পরিবারের সদস্য হন। আপনি কি আজ তেমন কিছু করতে চান?”

বাস্তবিক ক্ষেত্র অনুশীলনে আমরা এই উপকরণটি বহু, বহু লোকেদের সাথে ভাগ করে নিয়েছি। আমরা সম্ভবত সমস্ত পথ পাড়ি দিতে পারি না। লোকেরা আমাদের থামিয়ে প্রশ্ন জিজ্ঞেস করে। তারা স্পষ্টিকরণ চানঃ এর দ্বারা আমরা কি বোঝাতে চাই? এইটি কি তেমনই? এইটি কি অন্য কিছুর মতো? সব সময় বিরতি নিয়ে তাদের প্রশ্নের সম্মুখীন হওয়া প্রয়োজন। যদি আপনাকে সম্পূর্ণ বিষয়টি বুঝতে আধ ঘন্টা বা দু’ঘন্টা সময় লাগে, সেটি একটি ভালো চিহ্ন।

এই দুটি উপকরণ – “প্রভূ যীশুর চারটি মহৎ সত্য” এবং “নির্ণয়ের জন্য সৃষ্টি” – এগুলি প্রসঙ্গযুক্ত উপকরণ যা পুরো বার্তাটি গ্রহণ করতে সাহায্য করে। বৌদ্ধিক জগতের মণ্ডলী প্রাথমিকভাবে পাশ্চাত্য অনুশীলনগুলি অনুসরণ করে এবং এমন মণ্ডলীর পরিকাঠামোগুলি সৃষ্টি করেছে যার গঠন অত্যন্ত পশ্চিমী। বৌদ্ধিক জগতের যেখানেও মণ্ডলী স্থাপণ ফলপ্রসূ হয়েছে, আপনি সেখানে এক প্রাসঙ্গিকরণের স্তর দেখতে পাবেন। আমরা হয়তো সাধারণ বিষয় ব্যবহার করে থাকি, মায়ানমারের এক গিজি ঘন্টার মতো আমাদের প্রার্থনাগুলি স্বর্গে পাঠানোর জন্য, বা আমেনের জন্য কিছু স্থানীয় শর্তাদি। এই বিষয়গুলি সাহায্য করে। স্থানীয় দেশীয় সঙ্গীত ব্যবহার করে এবং পছন্দের মৌখিক শিক্ষার্থীদের জন্য মৌখিক বাইবেলের কাহিনীগুলি ব্যবহার করাঃ এইগুলি বাস্তবিকভাবেই গুরুত্বপূর্ণ উপাদান যে আমরা কিভাবে একসাথে মণ্ডলী করি, যাতে মণ্ডলীটি সেই সাস্কৃতিক পরিবেশের মতো পরিচিত এবং স্বাভাবিক দেখায়। স্থানীয় পরিবেশের জন্য উপযুক্ত মণ্ডলীর পরিকাঠামোগুলির সাথে আসা এক কথোপকথন যার সেই সংস্কৃতির বৌদ্ধিক-পটভুমির বিশ্বাসীদের সাথে থাকা প্রয়োজন। তারা, বাক্যের সাথে কুস্তি লড়ে, সম্ভবত একজন বহিরাগত বা বাহ্যিক ধর্ম প্রচারকের সহায়তায়, সেই গঠনের সাথে আসে।

আমাদের জগৎ, আমাদের সংস্কৃতিগুলি, বিশাল পরিবর্তনের মধ্যে রয়েছে। কোন সংস্কৃতি স্থির নয়, তাই দেশীয় মণ্ডলীর পরিকাঠামোগুলি সৃষ্টির অর্থ ইতিহাসের কিছু ছবি বা কিছু আদর্শ প্রাচীন সঙ্গীতের ধরণ সংরক্ষিত রাখা নয়। এই সকল বৌদ্ধ দেশগুলিতে, তারা বিভিন্ন ধরনের সঙ্গীতের দিকে যায়, তাই আপনি সেই গঠনগুলিতে স্বদেশীকরণ করেন যা আজ বোধগম্য হয়। এই ভাবে মণ্ডলীর গঠন তাদের জাতি বা তাদের জাতীয়তায় লোকেদের পরিচয় ধ্বংস করেনি। তারা তাদের জাতীয় প্রসঙ্গে সম্পূর্ণরূপে খ্রীষ্টান হতে পারে। স্থানীয় বৌদ্ধ-পটভূমির বিশ্বাসীদের ব্যবহার করা প্রকৃত গঠন এবং শর্তাদি সম্পর্কে সমালোচনামূলকভাবে ভেবে দেখা প্রয়োজন। তাদের সাবধানে ভেবে দেখা দরকার, যাতে তারা কেবলমাত্র বিদ্যমান মণ্ডলীগুলি না দেখে এবং বলে, “ওহ, তারা এটি সেইভাবে করেছে; আমাদের এটি সেইভাবে করা প্রয়োজন।” অথবা “আমি এটি ইউটুবে দেখেছিলাম; আমাদেরও এটি সেইভাবেই করতে হবে।”

বাহ্যিক কর্মীদের এক মহান এবং সহায়ক ভূমিকা স্থানীয় বৌদ্ধ-পটভূমির বিশ্বাসীদের ধ্যানপূর্বক চিন্তা করতে সাহায্য করে যে তারা কেমন যোগাযোগ সাধন করছেন এবং যে তারা অজান্তে কোন পাশ্চাত্য রূপের নির্মাণ করছেন না। এডোনিরাম জুডসন মায়ানমারে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের প্রতি এক ফলপ্রসূ ধর্ম প্রচারক ছিলেন। তার স্মৃতিকথায় আমরা কিছু বিষয়গুলি দেখতে পাই যা তার এবং তার পরিচর্য্যার বৈশিষ্ট্য এবং এর ফলস্বরূপ। প্রথমত, তার কাছে হারিয়ে যাওয়াদের জন্য আবেগ ছিল। তিনি বাইবেলকে বর্মী ভাষায় অনুবাদ করার জন্য পরিচিত ছিলেন, এবং সেটিই ছিল তার পরিচর্য্যা জীবনের অন্যতম মূল পরিণতি। কিন্তু এটি তার জন্য বিশাল সংঘর্ষ ছিল যে হারানোদের খ্রীষ্টের বার্তার সাথে সংযুক্ত না করে, এবং কেবল বাইবেলের অনুবাদ করা। তবে তিনি সেটিকে তার আহ্বান স্বরূপ গ্রহণ করেন এবং তিনি বাইবেলের অনুবাদ করেন। তথাপি তাকে হারিয়ে যাওয়াদের প্রতি আবেগপূর্ণ রূপেই চিত্রিত করা হয়েছিল। তিনি চেয়েছিলেন সবাই যাতে শুনতে পায়; তার দর্শন ছিল গোটা দেশের সকল বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা যেন খ্রীষ্টকে জানতে পারে। এই “কোন স্থান অবশিষ্ট নেই” দর্শনটি তার হৃদয় এবং প্রাণে অনেক বেশী ছিল। 

তিনি স্থানীয় লোকেদেরও খুব শীঘ্রই নেতৃত্ব দিতে মুক্ত করেছেন। তিনি মণ্ডলীর নেতাদের, উদীয়মান মণ্ডলীর নেতাদের, বাপ্তিস্ম প্রদান এবং তারপর তাদের মণ্ডলীর পরিষেবাগুলি পরিচালনার জন্য অনুমতি দিয়েছিলেন। তার কাছে স্থানীয় লোকেদের তাদের মণ্ডলীগুলিতে নেতৃত্ব দিতে মুক্তির জন্য কার্যকর ব্যবস্থা ছিল। তার কাছে পুরো পরিবারকে শিষ্য করারও দর্শন ছিল। আপনি তার স্মৃতিচারনগুলিতে দেখতে পারেনঃ সম্পূর্ণ পরিবারকে একত্রিত করা, যেখানে তিনি পারিবারিক একতায় একজনকে প্রধান নেতাকে চিহ্নিত করেন। সেই ব্যক্তির মাধ্যমে, তারা তাদের বর্ধিত পরিবারকে একত্রিত করে এবং সুসমাচার উপস্থাপনের জন্য দীর্ঘ কথোপকথন করতো। 

পরিশেষে, আমি বিশ্বাস করি কিছু আত্মীক যুদ্ধের বিষয়গুলি বৌদ্ধিক জগতের মধ্যে অনন্য। প্রথমটি যার সাথে আমি স্বয়ং এবং অন্যরা মুখোমুখি হয়েছিলাম তা হলো ভুল যোগাযোগ সাধন। প্রায়শই যখন কোনও দলের সদস্য অন্য দলের সদস্যকে কিছু ব্যাখ্যা করে, শ্রোতা দলের সদস্য যা বলা হয়েছিল বা বোঝানো হয়েছিল, তার চেয়ে বিপরীত কিছু শুনে থাকে। যখন আমরা কোন বৌদ্ধ পরিস্থিতিতে যাই আমি পারিবারিক দ্বন্দ্বকে দেখেছি, যেমন আমরা দেখেছিলাম যখন সর্বপ্রাণবাদী বা বিশ্বের অন্যান্য অংশে কর্মরত ছিলাম তেমন নয়। এমন মনে হয় যেন সম্ভবত এক মন্দাত্মা থেকে অনুপ্রেণিত বাধা যা সূ-যোগাযোগকে বাধা দেয়। আমরা বার্তাটি প্রাসঙ্গিক করে তুলতে ব্যর্থতার সাথে সেই বিষয়ে কিছু কথা বলেছিলাম, কিন্তু যদিও বার্তাটি স্পষ্টভাবে বলা হয়েছিল, সেখানে এক ধরনের প্রাচীর রয়েছে – প্রায় যা বলা হচ্ছে তা শোনার পথে সাধা স্বরূপ। এক দ্বিতীয় বিষয় যা আমরা দেখে ছিলাম তা হলো প্রচুর মিশ্র-সাংস্কৃতিক কর্মীরা ভয়াভহ দুঃস্বপ্ন দেখছেনঃ মৃত্যুর হিংসাত্মক দুঃস্বপ্ন। এমন মনে হয় যেন বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের কাছে পৌঁছনোদের সাথে মৃত্যুর আত্মা জড়িত রয়েছে।

আমি প্রার্থনা করি যে যা কিছু বলেছি তা আপনাদের বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের মধ্যে এক শিষ্য-নির্মাণকারী আন্দোলনকে উত্তমরূপে শুরু করতে তৈরী করবে, আপনি এই জগতের যেখানেই থাকুন না কেন। আপনি যেই ধরনের লোকেদের কাছে পৌঁছে যাচ্ছেন, তাদের মাঝে যাই সংস্করণ, যাই বৌদ্ধ দর্শনের মিশ্রণ বর্তমান থাকুক না কেন, তারা যেমন ঠিক তেমনই গ্রহণ করুন। তাদের প্রভূ যীশুতে নিহিত সত্য মুক্তি এবং চূড়ান্ত সত্যকে সম্পূর্ণ বুঝতে প্রেমের সার্বভৌমিক ভাষাকে ব্যবহার করুন। নিজেকে কখনই কোনও ধর্মের বার্তাবাহক হিসেবে উপস্থাপন করবেন না। আমাদের বিশ্বাসই হলো চূড়ান্ত সত্য, আমাদের সকলের ভবিষ্যতের সমস্ত বাস্তবিকতাকে ব্যাখ্যা করে। এটিই সর্বত্র সমস্ত মানুষের চূড়ান্ত আশা। এটি কখনই পিছপা হওয়া বা বিব্রত হওয়ার বিষয় নয়।

আমি বুঝতে পারি যে বিভিন্ন কারণে বৌদ্ধ জগতে ন্যূনতম প্রগতি হয়েছেঃ বোধগম্যতার বিশাল উপসাগর, বৌদ্ধিক এবং খ্রীষ্টান শিক্ষার মধ্যে বিরাট পার্থক্য, বার্তাকে প্রাসঙ্গিক করতে ব্যর্থতা, আমাদের পদ্ধতি এবং মণ্ডলীর রূপগুলিকে প্রাসঙ্গিক রূপ দিতে ব্যর্থতা, বাইবেল-ভিত্তিক সংখ্যাবৃদ্ধির নীতিকে অনুসরণ করতে ব্যর্থতা, এবং বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের কাছে পৌঁছানোর মধ্যে জড়িত কিছু আত্মীক যুদ্ধের সমস্যা সম্পর্কে সচেতনতার অভাব। যখন আপনি আপনার যাত্রায় যাবেন, আপনি সেই বার্তা যোগ করতে সক্ষম হতে পারেন। আমি বিশ্বাস করি আপনি যাবেন, এবং আপনি বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের কাছে পৌঁছানোর এই ছোট নম্র ভিত্তিটি গড়ে তুলবেন এবং একে পরবর্তী প্রজন্মের জন্য আরও উত্তম করে তুলবেন। ঈশ্বর আপনার সমস্ত কর্মে আশির্বাদ করুক।

Buddhist missionaries went to Central Asia: places like Pakistan and Iran where they started a version of Mahayana Buddhism. Nowadays, Buddhism only remains in this region in archaeological digs. When Buddhism entered China it overlaid onto Taoist philosophy and ancestor worship. Buddhist missionaries who went to Sri Lanka started the Theravada school of Buddhism. The Theravada school were the first to write down the teachings of Buddha, about 30 AD. The first Theravada school temple was started in Myanmar in 228 BC. The Theravada school spread from Sri Lanka to Thailand, Cambodia and then to Laos. Lastly, Ashoka sent Buddhist missionaries into Nepal, who then went on to Bhutan, Tibet, Mongolia and up into the Buryat peoples in Siberia. Buddhism in these regions overlaid itself onto the animistic Bon religion. This resulted in the Vajrayana or Tibetan school of Buddhism.

As Buddhism spread historically, it acted as an overlay on the pre-existing culture, philosophy and religion of various area. Like a cloth, it took on the landscape of philosophies that existed when it came. As in this picture, you know there’s a chair underneath the cloth. Because Buddhism readily incorporates all beliefs into its system, it is difficult for Buddhists to accept any fixed exclusive claims of Christianity.

Here is a personal example. I shared Christ over a two-year period with a Thai policeman who was a good friend of mine. One day he came to me and said, “Hey Steve, I’m a Christian like you now.” 

Being a little more than skeptical I asked, “What do you mean by that?” 

He pulled out his necklace, filled with amulets and talismans, and said, “See, here I’ve tied on the cross and now it’s one of my protective spiritual amulets.” 

So you can see how easily a Buddhist can say: “Oh, I believe that,” but really all they’ve done is syncretized some of what you’ve said into what they already believe.

PROBLEM OF APOLEGETICS

When Christian missionaries first witnessed to Buddhists, they took an apologetic approach. They attacked logical inconsistencies in the Buddhist system, hoping to win Buddhists over to a more cohesive and (as some would argue) logical set of truth. For example, a missionary might argue: “You Buddhists believe in reincarnation but then you also say that people are nothingness (anata). So if my ultimate reality is nothingness, then what’s being reincarnated into the next life?” Missionaries would try to find what seemed to be logical fallacies in the system, then present Christ as the better system. This has been a massive failure throughout history, and almost always led to conflicts.

WORLDVIEW GULF

Cristianity and Buddhism. Sinclaire Thompson Memorial Lectures, fifth series. Chiang Mai Thailand.

In the 1960s, a number of interfaith dialogues took place between Buddhists and Christians in Chiang Mai, Thailand. Much of those dialogues were apologetic presentations. After those Buddhist-Christian dialogues, a very famous Thai monk of the time wrote a book to explain Christianity to Buddhists. In it he said that God is ignorance (avijjā)

and that God is the source of the broken world of suffering that we are caught in. Very clearly, even after dialogue between Christian and Buddhist scholars, massive misunderstanding remained concerning the most basic concept: Who is God? and What is the source of suffering?

So let’s take a look at the worldview of Buddhists to further understand the vast difference between Buddhist and Christian thinking. The Thervada Buddhist worldview has seven levels of heaven and different levels of hell. Here on earth, Gautama was born as a prince in the 6th century BC and at age 29 he left his protected palace life to go on a journey to seek spiritual truth. Gautama noticed that we live in a world of suffering. Specifically he noticed that people are born, then as their life proceeds they get old. He next observed that people get sick. They face various kinds of illnesses, then as their life goes on they die. He didn’t stop there; he also said that people, after they die, are born into another life. That is, they are reincarnated. This whole system is called samsara. Samsara simply means wandering. People are caught in this cycle of being born, getting old, getting sick, and dying. Reincarnated, around and around, wandering, like lost souls caught in an endless cycle. So you may have a life here on this earth and maybe it doesn’t go so well. It’s discovered that you’re an adulterer so you have to go down to hell, a hell specifically set up for adulterers. Maybe things go well for you as you live out a lifetime in hell, then you’re born back as a person on this earth again. You get old, you get sick, you die. Maybe things go well and you make it up to one of the levels of heaven, then back down to earth, then up to a higher level of heaven, then maybe back down to earth, then back down to hell. This cycle could carry on for potentially thousands of lifetimes. 

So we can see that Buddhists have their own concept of eternal life. It is sadly an eternal life of suffering. The goal in Buddhism is to break out of this cycle of suffering, to somehow escape out of it to a place where there is no suffering. Given the many traditions of Buddhism in the world, you might get very different explanations what nirvana means. Some will explain it’s like a drop of water that flows back into the sea, losing its identity. Others will say it’s the golden celestial city and a place of great joy. But one thing is similar in all the traditions of Buddhism: nirvana is a place with no suffering.

The Buddhist worldview can be summarized in the Four Noble Truths and the Eightfold Path. The first noble truth is that all of life is suffering (tuk). From birth, to getting old, the process of dying, and everything in the middle: it’s all suffering. The source of suffering, the second noble truth, is desire – like internal lust from inside (thunha). The third noble truth is that there is a way out of suffering (nirot). The fourth noble truth is that if people want to break out of this cycle of suffering, they need to perfectly live out the Eightfold Path (mak).

Buddha discovered the Eightfold Path. Each of these eight paths are described with the word “right,” like “right understanding.” But the word “right” could also be translated “perfect” or “complete.” So if you have the perfect or right understanding, then you have the perfectly correct view of reality. The second pathway is having right intent: That is you have a complete or perfect commitment to the path. Third, you have right or perfect speech: you have total care with all your words all the time. Fourth, you have right or perfect actions: you live a completely moral life. Christians and Buddhists find many similarities in right speech and right action. Fifth, you have the right livelihood. The profession you choose needs to respect all life. For example, a good Buddhist cannot be a butcher, nor could they manufacture and sell weapons. Sixth is right effort: being steady and cheerful in all things. Seventh, you have right or perfect mindfulness: perfect awareness, able to live in the moment perfectly. The final pathway is right concentration: you have a perfect and focused life of meditation. If somehow you could do all eight pathways perfectly, you may experience enlightenment. 

The Mahayana school holds a belief in reincarnated Buddhas. Buddhas are people who have reached enlightenment and then are reborn on this earth for the specific task of helping certain people along, to succeed in their journey. In the Theravada school, there are no reincarnated Buddhas; each individual is entirely on their own to do this. These are some of the huge differences in the teaching of Christians and Buddhists. 

Now in comes the Christian messenger and things are exceedingly ripe for misunderstanding. Let’s take the most simple, seemingly safe explanation of the gospel: John 3:16, “For God so loved the world that he gave his only Son, that whosoever should believe in Him would not perish but have everlasting life.” Virtually every word in that sentence will need additional explanation if your Buddhist friend is going to understand its meaning. You may get the words right, but you still need to get the meaning across. 

First of all, they believe there is no God. So if you say “God so loved the world,” your Buddhist friend is already suspicious of you; you’re deluded because there is no god. And if God loves the world (all the people in the world), he must have desire. Therefore this god is caught in the samsara cycle; he’s caught in the cycle of death and birth and rebirth. “Whosoever believes,” so you’re saying that through faith one can be saved. But for the Buddhists, it’s all about what you do; religion is all about the practices and things you do. So there’s already a disagreement: it is not through faith; only self-effort can save. “Will have everlasting life”: in their mind that means samsara. They think: “I don’t want that. As a Buddhist, I’m trying to get out of the eternal cycle (samsara) of suffering. So why would I follow Jesus, to just be caught in the cycle of birth, aging and dying?”

None of them will tell you all that analysis out loud. All you’ll hear is, “It’s irrelevant.” Or something like, “All religions teach people to be good,” which means “I’ve got my religion; you’ve got yours. Yours is irrelevant; I don’t need that. End of discussion.” Buddhists are very tolerant, so they may politely say, “Yes, Jesus is good and we’re all exactly the same,” but they can’t see any unique claim there. The whole conversation is dismissed as irrelevant.

This gulf between Buddhist and Christian teachings and worldview has been one of the major contributing factors to little response to the gospel among Buddhists. But in our day, the Lord has allowed his children to discover some tools that can help bridge the gulf. We will look at those in Part 2 of this case study.

Categories
আন্দোলন সম্পর্কে

ঈশ্বর কিভাবে সমগ্র দক্ষিণ এশিয়া জুড়ে সুদূরপ্রসারী হয়েছেন – ভাগ ২

ঈশ্বর কিভাবে সমগ্র দক্ষিণ এশিয়া জুড়ে সুদূরপ্রসারী হয়েছেন – ভাগ ২

– “ওয়াকার” পরিবার দ্বারা লিখিত –

ভাগ ১-এ আমরা প্রবাসী হিসাবে আমাদের অনুকূল অবস্থান, এবং আমাদের মূখ্য অংশীদার সঞ্জয়ের অনুকূল অবস্থান থেকে, দক্ষিণ এশিয়ার একটি সি পি এম-এর উদ্ঘাটন আলোচনা করেছি। এখানে রইল প্রক্রিয়ার মধ্যে আমাদের শেখা আরো বেশ কয়েকটি পাঠঃ

এই সময়ে আমরা বেশকিছু শিক্ষা লাভ করিঃ 

১) হারিয়ে যাওয়া লোকদের সঙ্গে যুক্ত হবার জন্য মথি ১০, লূক ৯ এবং ১০ অধ্যায় থেকে আমরা অত্যন্ত কার্যকারীকার্যকারী কৌশল লাভ করি।

২) অলৌকিক ঘটনাগুলি (সুস্থতা এবং / অথবা মন্দশক্তি থেকে উদ্ধার) ঈশ্বরের রাজ্যে প্রবেশকারী লোকদের মধ্যে একটি ধারাবাহিক উপাদান হিসাবে দেখা যায়।

৩)  ডিসকভারি প্রক্রিয়া যত সহজ হবে, তত এটি কার্যকারীকার্যকারী হবে। সেই কারণে, আমরা এই বিষয়টিকে বিভিন্ন সময়ে আরো সহজতর করার প্রচেষ্টা করেছি।

৪) মানুষের বানানো পুস্তক এবং পদ্ধতির তুলনায় ঈশ্বরের বাক্য থেকে প্রশিক্ষণ দেওয়া অধিক শক্তিশালী, কার্যকারী এবং অনুকৃতিযোগ্য।

৫) অনেক সংখ্যক প্রশিক্ষণ চালু না করে, সেই সমস্ত লোকদের গভীরভাবে সামর্থ্যযুক্ত করা অধিক জরুরী যারা নিজেদের জীবনে সি পি এম নীতিগুলি পালন করে চলেছেন।

৬) প্রত্যেককে প্রেমের সাথে যীশুর আজ্ঞাবহ হতে হবে, এবং প্রত্যেককে এই প্রশিক্ষণ অন্যদের ব্যক্তিদের কাছে হস্তান্তর করতে হবে।

৭) এটি খুঁজে বের করা অত্যন্ত জরুরী যে কেউ ঈশ্বরের বাক্যের তুলনায় স্থানীয় প্রথাকে অধিক অনুসরণ করছে কিনা, কেবলমাত্র সাংস্কৃতিক সংবেদনশীলতা এবং ক্রমবর্ধমান বিশ্বাসের বৃদ্ধি হচ্ছে, কিন্তু তাদের কাজ আক্রমনাত্বক নয়।

৮) কেবলমাত্র ব্যক্তিগতভাবে নয়, সম্পূর্ণ পরিবারের কাছে ঈশ্বরের বাক্য পৌঁছানো প্রয়োজন।

৯) মণ্ডলীর পূর্বের আলোচনা এবং মণ্ডলীতেও ডিসকভারি বাইবেল স্টাডি ব্যবহার করুন।

১০) অধিক ফল উৎপাদন করার জন্য অশিক্ষিত এবং স্বল্প-শিক্ষিত শিষ্যদেরও শক্তিপ্রদান করতে হবে। সেকারণে, যারা পাঠ করতে পারে না তাদের জন্য আমরা রিচার্জযোগ্য এবং, স্বল্প দামের স্পীকার দিয়ে থাকি, যেগুলির মধ্যে বিভিন্ন কাহিনী রেকর্ড করা থাকে। মোট মণ্ডলীর প্রায় অর্ধেক আরম্ভ করা সম্ভব হয়েছে কেবলমাত্র এই স্পীকারগুলির মাধ্যমে। শিষ্যেরা একত্রে বসে, কাহিনী শ্রবণ করে এবং নিজেদের জীবনে সেগুলি ব্যবহার করে।

১১) নেতৃত্বের বৃত্তগুলি নেতাদের টেকসই এবং পুনরুৎপাদনযোগ্য পারস্পরিক পরামর্শ প্রদান করে।

১২) মধ্যস্থতাকারী প্রার্থনা এবং প্রার্থনা শ্রবণ করা অত্যন্ত জরুরী।

এই আন্দোলন বিভিন্ন স্থানে ৪র্থ প্রজন্ম পর্যন্ত বিস্তৃত হয়েছে। কিছু কিছু অঞ্চলে এটি ২৯ প্রজন্ম পর্যন্ত বিস্তৃত হয়েছে। বাস্তবে, এটি কেবলমাত্র একটি আন্দোলন নয়, কিন্তু একাধিক আন্দোলন, ৬টির অধিক ভৌগলিক অঞ্চলে, বিভিন্ন ভাষায় এবং বিভিন্ন ধর্মের লোকদের মধ্যে এটি বিস্তৃত হতে থাকে। কেবলমাত্র হাতেগোনা কয়েকটি মণ্ডলী বিশেষ বিল্ডিং অথবা কোন স্থান ভাড়া নিয়ে উপাসনা করছিল; কিন্তু প্রায় সমস্তই ছিল গৃহ-মণ্ডলী, যারা বাড়ীর উঠানে বা গাছের নীচে জমায়েত করত।

বহিরাগত অনুঘটক হিসাবে আমাদের ভূমিকা (পূর্বসূরী)

  • আমরা সহজ, পুনরুৎপানকারী, বাইবেল ভিত্তিক পরিকাঠামোর পরিবর্তন প্রদান করেছিলাম।
  • আমরা দল হিসাবে শক্তিশালী প্রার্থনার দ্বারা তাদের সমর্থন করতাম, এবং বিদেশ থেকে কৌশলপূর্ণ প্রার্থনার দলকে সচল রাখতাম।
  • আমরা প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করতাম।
  • আমরা স্থানীয় লোকদের প্রশিক্ষণ দিতাম যেন তারা অন্যদের প্রশিক্ষণ দিতে পারে।
  • যদি পরবর্তী পদক্ষেপ স্পষ্ট না থাকে, তাহলে আমরা তাদের পথ প্রদর্শন করতাম।
  • আমরা সেই সমস্ত বিষয়গুলি সম্পর্কে অত্যন্ত সতর্ক থাকতাম যে বিষয়গুলিতে আমরা হয়ত সঞ্জয় এবং জনের সঙ্গে একমত হতামনা। আমরা তাদেরকে নিজেদের থেকেও অধিক গুরুত্বপূর্ণ হিসাবে বিবেচনা করতাম। তারা আমাদের কর্মী ছিলেন না, কিন্তু সহকর্মী ছিলেন এবং আমরা একত্রে ঈশ্বরের আজ্ঞাবহ হবার চেষ্টা করছিলাম। সেই কারণে, আমরা তাদেরকে উৎসাহিত করতাম যেন তারা আমাদের কোন কথাকে মান্য করতেই হবে এমন চিন্তা না করে কিন্তু ব্যক্তিগতভাবে ঈশ্বর কি বলছেন সেই বিষয়ে সচেষ্ট থাকেন।
  • আমরা কোন কোন সময়ে আমাদের ডি এম এম প্রশিক্ষক সঞ্জয় এবং জনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করাতাম যেন তারা তার কাছ থেকে শিখতে পারে যিনি আমাদের থেকেও অনেক বেশী অভিজ্ঞ এবং এই অনেক বেশী কাজ করেছেন। 
  • আমরা আমাদের উপর তাদের নির্ভরতার অনুভূতি হ্রাস করার চেষ্টা করতাম। আমরা সক্রিয়ভাবে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তাদের পথ থেকে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করতাম।
  • নেতাদের শৃংখলাপূর্ণ করার জন্য (বাইবেল প্রশিক্ষণ এবং নেতৃত্বের প্রশিক্ষণ) এবং মণ্ডলীকে শিষ্য করার জন্য (ডিসকভারি স্টাডি) প্রয়োজনীয় পাঠ্য সরবরাহ করতাম। 

এই আন্দোলনে স্ত্রীলোকদের ভূমিকা

মহিলা নেতৃবৃন্দ পুরুষ নেতাদের দ্বারা সহজতর শিষ্য নির্মাণের প্রবাহে আত্মপ্রকাশ করেছেন। মহিলা নেতারা আরো মহিলা নেতাদের বৃদ্ধি করেছেন । বাস্তবে, মহিলা নেতারা সমস্ত কাজের একটি বিশেষ স্থান দখল করে রেখেছে, সম্ভবত মূখ্য নেতাদের মধ্যে প্রায় ৩০-৪০% মহিলা নেতা, এমন কি যুবতীরাও আছেন, যারা গৃহ-মণ্ডলী পরিচালনা করেন, নতুন মণ্ডলী স্থাপন করেন এবং অন্যান্য স্ত্রীলোকদের বাপ্তিষ্ম দেন।

মূখ্য আভ্যন্তরীন নেতাদের ভূমিকা

স্থানীয় লোকেরাই “আসল” কাজটি সম্পূর্ণ করে থাকেন। তারা ধূলাপূর্ণ রাস্তায় ঘুরে বেড়ান, বিভিন্ন গৃহেতে প্রবেশ করেন, এবং উদ্ধার ও অলৌকিক কাজের জন্য প্রার্থনা করেন। তারাই সাধারণ কৃষক, এবং কৃষকের পরিবারের সাথে সহজ উপায়ে বাইবেল স্টাডি শুরু করেন, তাদের বাড়িতে থাকেন, তাদের সঙ্গে খাদ্য গ্রহণ করেন, এমন কি তখনও যখন গরম ১০০ ডিগ্রী (ফারেনহাইট) ছাড়িয়ে যায় এবং সেখানেই লেক্ট্রিকও থাকেনা। তারা কাজ করেন এবং তারা যে ফল উৎপন্ন করেন সেই বিষয়ে রোমাঞ্চিত থাকেন! তাদের কাহিনীগুলিই আমাদের এই কাজে এগিয়ে যেতে সাহস যোগায়।

অগ্রগতির মূল কারণগুলি

১. প্রার্থনা শ্রবণ করা। প্রার্থনা করা আমাদের দায়িত্ব। ঈশ্বর বিভিন্ন সময়ে প্রার্থনার মাধ্যমে আমাদের পদ্ধতিগুলিকে পরিবর্তন করেছেন। প্রার্থনার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হল শ্রবন করা। আমাদের যাত্রাপথে বিভিন্ন পরিবর্তন এসেছে। বিভিন্ন প্রশ্ন এসেছেঃ এরপরে কি হবে? আমরা কি এই ব্যক্তির সঙ্গে একত্রে কাজ করব? আমরা বিভিন্ন ক্ষেত্রে “বন্ধ রাস্তা” দেখেছি; পরের প্রশিক্ষণের জন্য আমরা কোন বাক্যটি ব্যবহার করব? আমাদের অর্থ খরচ করার জন্য এই কারণটি কি যোগ্য? এই ভ্রাতাকে পরিত্যাগ করার সময় কি এসে গেছে যে এই মডেলকে আর ব্যবহার করছে না, অথবা আমাদের উচিত তাকে আরেকটি বার সুযোগ দেওয়া? আমরা কি এই শহরে প্রশিক্ষণ অনবরত রাখব না এখানেই শেষ করব? প্রশ্ন যাই হোক না কেন, আমরা, সমস্ত দল, শিখেছি প্রার্থনায় বসতে এবং ঈশ্বরের উত্তরের জন্য অপেক্ষা করতে।

২. অলৌকিক কাজ। আন্দোলগুলি মূলত অলৌকিক চিহ্নগুলির সাহায্যে প্রাথমিক সম্পর্ক গড়ে তুলতে সাহায্য করেছে। আমরা দেখেছি অনেকে সুস্থতা লাভ করেছে এবং মন্দশক্তি থেকে উদ্ধার পেয়েছে। অলৌকিক কাজ কেবলমাত্র ডি বি এস-এর জন্য একটি উন্মুক্ত দ্বার নয় কিন্তু, এই অলৌকিক ঘটনা একটি গৃহ থেকে অন্য গৃহে খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে এবং এটি অন্যান্য গৃহগুলির দ্বারও আমাদের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়। উদাহরণস্বরূপ, একজন শিষ্য হয়ত একজন মন্দ শক্তিগ্রস্ত মানুষের জন্য প্রার্থনা করার সুযোগ পান। যখন সেই ব্যক্তি উদ্ধার লাভ করে, এই বিষয়টি তার সমস্ত পরিবারের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে, এমন কি তাদের আত্মীয় যারা অন্য গ্রামেতে থাকে তাদের মধ্যেও। সেই দূরের আত্মীয়রাও সেই শিষ্যকে তাদের গৃহেতে প্রার্থনা করার জন্য আমন্ত্রণ জানায়। যখন এই শিষ্য এবং উদ্ধারপ্রাপ্ত ব্যক্তি সেখানে যায় এবং প্রার্থনা করে, অধিকাংশ ক্ষেত্রে সেখানেও অলৌকিক কাজ হয় এবং সেখানেও একটি ডি বি এস শুরু হয়। এইভাবে, খুব সহজেই, স্বল্প শিক্ষিত লোকেরাও – যারা ঈশ্বরের রাজ্যের বিষয়ে জানতই না – তারা ঈশ্বরের রাজ্যের বৃদ্ধিতে কাজ করতে থাকে।

৩. মূল্যায়ণ। আমরা বিভিন্ন প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করে থাকিঃ “আমরা কেমন কাজ করছি? আমাদের বর্তমান কাজ কি আমাদের কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যের দিকে আমাদের নিয়ে যেতে পারবে? আমরা যদি এটি ________ করি, স্থানীয় লোকেরা কি এটি আমাদের সঙ্গে করতে একমত হবে? তারা কি এর পুনরুৎপাদন করতে পারবে?”

৪. আমরা অর্থ ব্যবহারের ক্ষেত্রে অত্যন্ত সতর্ক থাকতাম।

৫. আমরা আমাদের পাঠ্য বিষয়গুলি অভিযোজন করতাম। আমরা খুবই নির্বাচিত পাঠ্যপুস্তক ব্যবহার করতাম। যদি কোন নতুন বিষয় আমাদের দেওয়া হত, যা আমাদের জন্য প্রযোজ্য নয়, আমরা সেটির সঙ্গে সমন্বয় করতাম। এমন কোন সূত্র ছিল না যা প্রত্যেকের জন্য কার্যকারী হবে।

৬. আমরা ঈশ্বরের বাক্যের প্রতি কেন্দ্রভূত ছিলাম। কোন ‘উত্তমশিক্ষা’ই এতটা প্রভাব ফেলতে পারে না যে ভাবে পবিত্র আত্মা কার্যকারীভাবে একজন মানুষের হৃদয়কে প্রভাবিত করতে পারে। সেই কারণে আমাদের প্রত্যেকটি প্রশিক্ষণ দৃঢ়ভাবে ঈশ্বরের বাক্যের উপরে নির্ভরশীল থাকত। প্রশিক্ষণের সময়ে, প্রত্যেকে পর্যবেক্ষণ করত, প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করত, এবং গভীরভাবে অধ্যয়ন করত।

৭. প্রত্যেকে সেই বিষয়গুলি অন্যদের সাথে ভাগ করে নেয় যা তারা ব্যক্তিগতভাবে শিখেছে। এখানে কেউ পুকুর নয়; আমরা প্রত্যেকেই নদী। প্রত্যাশা করা হত যেন প্রত্যেক শিষ্য তাদের প্রত্যেকটি প্রশিক্ষণ নিজেদের শিষ্যদের কাছে পাস করে দেয়।

আমরা যখন থেকে সমস্ত দলকে সমস্ত জাতির শিষ্য নির্মাণ করার কাজে পুরোপুরি মনোনিবেশ করতে প্রচেষ্টা করি, তখন থেকে ঈশ্বর যে মহান কাজ করে চলেছেন তার জন্য আমরা ঈশ্বরের প্রশংসা করি।

“ওয়াকার” পরিবার ২০০১ সালে ভিন্ন সংস্কৃতির মধ্যে কাজ করতে শুরু করে। ২০০৬ সালে, তারা বেয়ন্ড-এর (www.beyond.org) সাথে যোগদান করেন এবং ২০১১ সালে তারা সি পি এম-এর নীতিগুলি ব্যবহার করতে শুরু করেন। “ফোয়েব” ২০১৩ সালে তাদের সঙ্গে যোগদান করেন। ফোয়েব এবং ওয়াকার ২০১৬ সালে অন্য দেশে যাত্রা করেন এবং দূর থেকে সেই আন্দোলনকে চালিয়ে যাবার জন্য সমর্থন করতে থাকেন।

এটি  মিশন ফ্রন্টীয়ার্স –এর ২০১৮ সালের জানুয়ারী – ফেব্রুয়ারী সংস্করণ থেকে সংকলন করা হয়েছে, www.missionfrontiers.org, এবং অবশিষ্ট তথ্য নেওয়া হয়েছে ডিয়ার মম অ্যান্ড ড্যাডঃ অ্যান অ্যাডভেঞ্চার ইন ওবিডিয়েন্স, আর. রেকেডাল স্মিথের রচনা। ২৪:১৪ পুস্তকের পৃষ্ঠা ১২১-১২৯-এ সম্পূর্ণ সম্পাদিত হয় – সমস্ত লোকেদের পক্ষে একটি সাক্ষ্য, ২৪:১৪ থেকে বা অ্যামাজন-এ উপলব্ধ৷

Categories
আন্দোলন সম্পর্কে

ঈশ্বর কিভাবে সমগ্র দক্ষিণ এশিয়া জুড়ে সুদূরপ্রসারী হয়েছেন

ঈশ্বর কিভাবে সমগ্র দক্ষিণ এশিয়া জুড়ে সুদূরপ্রসারী হয়েছেন

– “ওয়াকার” পরিবার দ্বারা লিখিত –

আমাদের দলের মধ্যে অন্তর্ভূক্ত ছিল একটি বিবাহিত দম্পত্তি, একজন প্রবাসী ব্যক্তি, এবং দুইজন জাতীয় সহকর্মী, সঞ্জয়* এবং জন* (সঞ্জয়ের ছোটভাই)। আমরা ছিলাম সহকর্মী। সেখানে কোন “আমাদের” বা “তোমাদের” ধারণা ছিল না। আমরা প্রত্যেকেই কেবলমাত্র প্রভূ যীশুর শিষ্য ছিলাম, যারা ঈশ্বরকে শোনার এবং তা পালন করার চেষ্টা করছিলাম। যখনই আমাদের মধ্যে কেউ কাজের মধ্যে কোন নতুন পরিবর্তনের প্রয়োজন অনুভব করত, আমরা এটি অন্যান্য সহকর্মীদের সামনে নম্রভাবে পেশ করতাম, এবং ঈশ্বরের কাছে যাচ্ঞা করতাম যেন তিনি আমাদের সিদ্ধান্তকে তাঁর বাক্য দ্বারা নিশ্চিত করেন।

 আমরা প্রবাসীরা এই ধরনের কোন চিন্তা নিয়ে পরিচর্য্যার ক্ষেত্রে আসিনি। আমরা বহু বছর সেখানে সময় কাটিয়েছি। আমরা কাজে ব্যস্ত ছিলাম কিন্তু আমাদের কাজের কোন ফল ছিল না। ২০১১ সালে, আমরা একটি শিষ্য নির্মাণের প্রশিক্ষণে যোগদান করি যার উদ্যোক্তা ছিল আমাদের এজেন্সী। এই প্রশিক্ষণ আমাদের জীবনে আমূল পরিবর্তন নিয়ে আসে। দুই সপ্তাহ ধরে, আমরা ঈশ্বরের বাক্য অধ্যয়ন করি। আমরা কোন মিশন বিষয়ক পুস্তক অথবা আধুনিক মিশনের ধরন জানার পুস্তক পাঠ করিনি। আমরা কেবলমাত্র আমাদের বাইবেল খুলে কিছু প্রশ্নের উত্তর খুঁজে পাবার চেষ্টা করেছি, যেমন, “হারিয়ে যাওয়া লোকদের কাছে পৌঁছানোর জন্য প্রভূ যীশু কি কোন কৌশল ব্যবহার করতেন?”

ঈশ্বর এই প্রশিক্ষণকে ব্যবহার করলেন যেন আমাদের চিন্তাধারাকে পরিবর্তন করতে পারেন। গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল, আমরা যে প্রশ্নের মুখোমুখী হয়েছিলামঃ “কেমন হয় যদি আমরা কি করতে পারি (ইঞ্জিনিয়ারিং, শিক্ষা, পরিচালনা, কথোপকথন) সেই বিষয়ের উপরে গুরুত্ব না দিয়ে, আমাদের কি করা উচিত সেই বিষয়ের উপরে গুরুত্ব দিই?” বিগত বছর ধরে আমরা ক্ষেত্রে কাজ করছি, আমরা কেবলমাত্র নিজেদের তালন্ত এবং কৌশলের উপরে গুরুত্ব দিয়েছি। কি হবে যদি এমন হয়, আমাদের কাজ কখনই আমাদের কৌশলের উপরে নির্ভরশীল ছিল না, কিন্তু, আমাদের প্রশ্ন হওয়া উচিত ছিল “হারিয়ে যাওয়া লোকদের উদ্ধার করার জন্য কি করা উচিত?” এই প্রশ্নের উত্তরে আমরা এমন কিছু বিষয় খুঁজে পাব যার কৌশল আমাদের জানা নেই (যেমন অপরিচিত লোকদের সঙ্গে বন্ধুত্ব করা, অবিশ্বাসীদের সঙ্গে প্রার্থনা করা, এবং লূক ১০ অধ্যায়ে প্রদত্ত নির্দেশগুলি পালন করা)। এটি উপলব্ধি করে কতটা স্বস্তি লাভ করা যায় যে প্রভূ যীশুর শিষ্য তৈরি করার (মথি ২৮:১৯) আদেশের প্রতি বাধ্য থাকা আমাদের পদ্ধতি, ব্যক্তিত্ব অথবা বুদ্ধিমত্বার উপর নির্ভর করে না। প্রভূ যীশু তাঁর প্রথম শিষ্যদেরকে এই জন্য নির্বাচন করেন নি যে তারা সর্বশ্রেষ্ঠ ছিল বা প্রখর বুদ্ধিসম্পন্ন ছিল। তারা ছিলেন অশিক্ষিত জেলে, নীচ করগ্রাহী এবং নিপীড়িত লোকেরা। কিন্তু তারা প্রভূ যীশুর বাধ্য হয়েছিলেন।

আমরা অত্যন্ত উত্তেজনাপূর্ণ ছিলাম। পরিচর্য্যা ক্ষেত্রে প্রথম বার আসার পরে, আমরা নিজেদের তালন্তের উপরে নির্ভর না করে কোন মানুষ যেন ধ্বংস না হয়, ঈশ্বরের সেই ইচ্ছাকে পূর্ণ করার জন্য কাজ করতে চেয়েছিলাম। আমরা নতুন নতুন পদ্ধতি ব্যবহার করতে শুরু করি, যার মধ্যে অন্তর্গত ছিলঃ

(ক) ব্যক্তিগত আনুগত্য (সেই সমস্ত লোকদের খুঁজে বের করা যারা সুসমাচারের জন্য নিজেদের গৃহ খুলে দেবে),

(খ) প্রার্থনার বৃদ্ধি (কেবলমাত্র ব্যক্তিগত, আরাধনার একটি বিশেষ সময় নয়; প্রার্থনা আমাদের কাজের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে ওঠে),

(গ) পূর্ব বিদ্যমান বিশ্বাসীদের কাছে নিজেদের দর্শনকে তুলে ধরা,

(ঘ) আগ্রহী খ্রীষ্টীয়ানদের প্রশিক্ষণ প্রদান করা, এবং

(ঙ) তাদের থেকে শিক্ষালাভ করা যারা ইতিমধ্যেই আমাদের থেকে এগিয়ে আছে।

প্রশিক্ষণ লাভ করার কিছু মাস পরে, আমরা সঞ্জয় নামে একজন পরিচিত ব্যক্তির কাছে দৌড়ে গেলাম, যার সঙ্গে বহু বছর

ধরে আমাদের কোন সাক্ষাৎ হয়নি। পরবর্তী অংশে সঞ্জয়ের সঙ্গে সেই সাক্ষাৎকারের বিষয়গুলি উল্লেখ করা হল।

——————————

 আমি একটি খ্রীষ্টিয়ান পরিবারে জন্মগ্রহন করেছিলাম। আমরা সমস্ত খ্রীষ্টধর্মের প্রথাগুলি পালন করতাম। যখন আমি প্রাপ্তবয়স্ক হই, আমরা চার বছরের বাইবেল প্রশিক্ষণ গ্রহণ করি, এবং তারপরে আমি বাইবেলের শিক্ষক হিসাবে নিযুক্ত হই। পরবর্তী সময়ে, আমার দেশের বিস্তীর্ণ ভৌগলিক অঞ্চল জুড়ে আমি ১৭টি মণ্ডলী শুরু করি।

২০১১ সালের ডিসেম্বর মাসে, দিল্লীর পথে ভাই ওয়াকারের সাথে আমার সাক্ষাৎ হয়। তিনি আমাকে জিজ্ঞাসা করেন আমি মণ্ডলী স্থাপনের প্রশিক্ষণ লাভের জন্য তার গৃহেতে যেতে আগ্রহী কি না। আমার জীবনের সেই সময়ে, আমি অত্যন্ত দাম্ভিক মানুষ ছিলাম। আমার ইতিমধ্যেই বড় একটা পরিচর্য্যা কাজ চলছিল। আমি বিদ্যালয় এবং বাইবেল প্রশিক্ষণ কেন্দ্র শুরু করেছি। আমি ভাবলাম, “এই লোকটা আমাকে আর কি শেখাবে?” আমি সেখানে না যাবার সিদ্ধান্ত নিই।

যদিও, প্রায় এক মাস পরে আমি তাকে শুভ নববর্ষের শুভেচ্ছা জানানোর জন্য টেলিফোনে সংযোগ করি। যখন আমি তাকে ফোন করেছিলাম, তিনি বললেন, “আমি তোমাকে পূর্বে মণ্ডলী স্থাপনের প্রশিক্ষণের বিষয়ে বলেছিলাম। তুমি কেন আসলে না?”

এই সময়ে, আমি আত্ম-সমর্পন করি। আমি বলেছিলাম আমি আসব এবং আমার কয়েকজন বন্ধুকেও নিয়ে আসব।

আমরা সেখানে পৌঁছালে, তিনি আমাদের জল পান করতে দিলেন এবং সেখানে যাওয়ার জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করলেন। এরপরে তিনি আমাদের কাগজ ও কলম দিলেন এবং বললেন, “আজকে, আমরা ঈশ্বরের বাক্য ধ্যান করব। আমি সবার জন্য চা বানাতে যাচ্ছি। যখন আমি চা বানাচ্ছি, আপনারা প্রত্যেকে মথি ২৮:১৬-২০ বাইবেল থেকে এই কাগজে লিখে নিন। পরের পৃষ্ঠায় লিখুন আপনি কিভাবে এটি নিজের জীবনে ব্যবহার করবেন”।

আমি ভাবলাম, “এটা কি ধরনের প্রশিক্ষণ? তিনি কেবলমাত্র একটি কাগজ কলম দিয়ে চলে গেলেন!” আমি ইতিমধ্যেই বাইবেল কলেজ থেকে প্রশিক্ষণ নিয়েছি। আমি ১২ বছর ধরে অত্যন্ত সফলভাবে পরিচর্য্যা কাজ করে চলেছি। কিন্তু, ১০ মিনিটের মধ্যে, আমি সম্পূর্ণভাবে পালটে গেলাম।

মথি ২৮ অধ্যায়ে আমি পাঠ করলাম আমাদেরকে যেতে হবে এবং শিষ্য তৈরি করতে হবে। আমি সেটা লিখলামআমার কাগজে লেখা বিষয়টি পাঠ করার পরে, সেই ভাই আমাকে জিজ্ঞাসা করল “সঞ্জয়, তোমার তো অনেক বড় পরিচর্য্যা কাজ আছে, কিন্তু তোমার কি কোন শিষ্য আছে?”

আমি ভাবলাম, “আমার তো একটাও শিষ্য নেই। ১০ বছরে, আমি প্রভূ যীশুর জন্য কিছুই করিনি। তিনি আমাকে শিষ্য তৈরি করতে বলেছেন, কিন্তু আজ পর্যন্ত, আমার একটিও শিষ্য নেই”

পরের মাসে, আমি আবার ভাই ওয়াকারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে যাই। আমরা একত্রে বসে ঈশ্বরের বাক্য অধ্যয়ন করি। সেই সময় থেকে আমি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করি, আমি অন্যান্য সমস্ত কাজ সরিয়ে রাখব। আমি কেবলমাত্র একটি সঙ্কল্প নিয়ে বাড়িতে ফিরে আসি, আর কিছু নয়, কেবলমাত্র শিষ্য তৈরি করা। আমি যে বিদ্যালয় শুরু করেছিলাম সেখান থেকে আমি পদত্যাগ করি, আন্তর্জাতিক পরিচর্য্যা কাজে আমার পদ ছেড়ে দিই, যেখান থেকে আমি যথেষ্ট অর্থ উপার্জন করতাম, বাইবেল প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের সভাপতি পদ থেকেও আমি পদত্যাগ করি। আমি সমস্ত কিছু পরিত্যাগ করি, সেই সময় থেকে, কেবলমাত্র প্রভূ যীশুর আদেশ পালনের লক্ষ্যে এগোতে শুরু করি। এবং ঈশ্বর বিশ্বস্তভাবে আমাদের সমস্ত প্রয়োজন মেটাতে থাকেন।

———————-

আমরা মাসে প্রায় একবার করে সঞ্জয় এবং বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা সঞ্জয়ের আরো ১৫ জন বন্ধুর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে শুরু করি। তাদের মধ্যে অধিকাংশই খ্রীষ্টীয় পরিবারে জন্মেছিলেন, খুব কম সংখ্যক মানুষ যারা হিন্দু পরিবার থেকে খ্রীষ্টকে জেনেছিলেন। যারা সি পি এম-এর নীতিগুলি ব্যবহার করছিলেন তারা প্রত্যেকেই দ্রুত ফল লাভ করতে শুরু করলেন। সঞ্জয় ছিল এই দলের প্রধান কোচ এবং দলের উৎসাহদাতা।

  • ২০১২ সালের ডিসেম্বর মাসের মধ্যে, সেখানে ৫৫টি ডিসকভারি বাইবেল স্টাডি দল শুরু হয়, যেখানে প্রত্যেকেই ছিলেন হারিয়ে যাওয়া মানুষ।
  • ২০১৩ সালের ডিসেম্বর মাসের মধ্যে, সেখানে ২৫০টি দল শুরু হয়, (মণ্ডলী এবং ডিসকভারি দল)।
  • ২০১৪ সালের ডিসেম্বর মাসের মধ্যে, সেখানে ৭০০টি মণ্ডলী শুরু হয়, এবং প্রায় ২৫০০ জন বাপ্তিষ্ম গ্রহণ করে।
  • ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসের মধ্যে, সেখানে ২০০০টি মণ্ডলী শুরু হয়, এবং প্রায় ৯০০০ জন বাপ্তিষ্ম গ্রহণ করে।
  • ২০১৬ সালের ডিসেম্বর মাসের মধ্যে, সেখানে ৬৫০০টি মণ্ডলী শুরু হয়, এবং প্রায় ২৫০০০ জন বাপ্তিষ্ম গ্রহণ করে।
  • ২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাসের মধ্যে, সেখানে ২১,০০০টি মণ্ডলী শুরু হয় এবং বাপ্তিষ্মের সঠিক সংখ্যা গননা করা অসম্ভব হয়ে যায়।

২০১৮ সালের ডিসেম্বর মাসের মধ্যে, সেখানে ৩০,০০০টি মণ্ডলী শুরু হয়।

ভাগ ২-এ আমরা এই প্রক্রিয়া চলাকালীন যা শিখেছি তার বেশ কিছু পাঠগুলির আলোচনা করবো, বিভিন্ন ধরনের জড়িত লোকের ভূমিকা, এবং অগ্রগতির মূল কারণগুলি

“ওয়াকার” পরিবার ২০০১ সালে ভিন্ন সংস্কৃতির মধ্যে কাজ করতে শুরু করে ২০০৬ সালে, তারা বেয়ন্ড-এর (www.beyond.org) সাথে যোগদান করেন এবং ২০১১ সালে তারা সি পি এম-এর নীতিগুলি ব্যবহার করতে শুরু করেন “ফোয়েব” ২০১৩ সালে তাদের সঙ্গে যোগদান করেন ফোয়েব এবং ওয়াকার ২০১৬ সালে অন্য দেশে যাত্রা করেন এবং দূর থেকে সেই আন্দোলনকে চালিয়ে যাবার জন্য সমর্থন করতে থাকেন


এটি  মিশন ফ্রন্টীয়ার্স –এর ২০১৮ সালের জানুয়ারী – ফেব্রুয়ারী সংস্করণ থেকে সংকলন করা হয়েছে, www.missionfrontiers.org, এবং অবশিষ্ট তথ্য নেওয়া হয়েছে ডিয়ার মম অ্যান্ড ড্যাডঃ অ্যান অ্যাডভেঞ্চার ইন ওবিডিয়েন্স, আর. রেকেডাল স্মিথের রচনা।

Categories
আন্দোলন সম্পর্কে আন্দোলন সম্পর্কে

ঈশ্বর কিভাবে সমগ্র দক্ষিণ এশিয়া জুড়ে সুদূরপ্রসারী হয়েছেন

ঈশ্বর কিভাবে সমগ্র দক্ষিণ এশিয়া জুড়ে সুদূরপ্রসারী হয়েছেন

– “ওয়াকার” পরিবার দ্বারা লিখিত –

এটি  মিশন ফ্রন্টীয়ার্স –এর ২০১৮ সালের জানুয়ারী – ফেব্রুয়ারী সংস্করণ থেকে সংকলন করা হয়েছে, www.missionfrontiers.org, এবং অবশিষ্ট তথ্য নেওয়া হয়েছে ডিয়ার মম অ্যান্ড ড্যাডঃ অ্যান অ্যাডভেঞ্চার ইন ওবিডিয়েন্স, আর. রেকেডাল স্মিথের রচনা।

আমাদের দলের মধ্যে অন্তর্ভূক্ত ছিল একটি বিবাহিত দম্পত্তি, একজন প্রবাসী ব্যক্তি, এবং দুইজন জাতীয় সহকর্মী, সঞ্জয়* এবং জন* (সঞ্জয়ের ছোটভাই)। আমরা ছিলাম সহকর্মী। সেখানে কোন “আমাদের” বা “তোমাদের” ধারণা ছিল না। আমরা প্রত্যেকেই কেবলমাত্র প্রভূ যীশুর শিষ্য ছিলাম, যারা ঈশ্বরকে শোনার এবং তা পালন করার চেষ্টা করছিলাম। যখনই আমাদের মধ্যে কেউ কাজের মধ্যে কোন নতুন পরিবর্তনের প্রয়োজন অনুভব করত, আমরা এটি অন্যান্য সহকর্মীদের সামনে নম্রভাবে পেশ করতাম, এবং ঈশ্বরের কাছে যাচ্ঞা করতাম যেন তিনি আমাদের সিদ্ধান্তকে তাঁর বাক্য দ্বারা নিশ্চিত করেন।

 আমরা প্রবাসীরা এই ধরনের কোন চিন্তা নিয়ে পরিচর্য্যার ক্ষেত্রে আসিনি। আমরা বহু বছর সেখানে সময় কাটিয়েছি। আমরা কাজে ব্যস্ত ছিলাম কিন্তু আমাদের কাজের কোন ফল ছিল না। ২০১১ সালে, আমরা একটি শিষ্য নির্মাণের প্রশিক্ষণে যোগদান করি যার উদ্যোক্তা ছিল আমাদের এজেন্সী। এই প্রশিক্ষণ আমাদের জীবনে আমূল পরিবর্তন নিয়ে আসে। দুই সপ্তাহ ধরে, আমরা ঈশ্বরের বাক্য অধ্যয়ন করি। আমরা কোন মিশন বিষয়ক পুস্তক অথবা আধুনিক মিশনের ধরন জানার পুস্তক পাঠ করিনি। আমরা কেবলমাত্র আমাদের বাইবেল খুলে কিছু প্রশ্নের উত্তর খুঁজে পাবার চেষ্টা করেছি, যেমন, “হারিয়ে যাওয়া লোকদের কাছে পৌঁছানোর জন্য প্রভূ যীশু কি কোন কৌশল ব্যবহার করতেন?”

ঈশ্বর এই প্রশিক্ষণকে ব্যবহার করলেন যেন আমাদের চিন্তাধারাকে পরিবর্তন করতে পারেন। গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল, আমরা যে প্রশ্নের মুখোমুখী হয়েছিলামঃ “কেমন হয় যদি আমরা কি করতে পারি (ইঞ্জিনিয়ারিং, শিক্ষা, পরিচালনা, কথোপকথন) সেই বিষয়ের উপরে গুরুত্ব না দিয়ে, আমাদের কি করা উচিত সেই বিষয়ের উপরে গুরুত্ব দিই?” বিগত বছর ধরে আমরা ক্ষেত্রে কাজ করছি, আমরা কেবলমাত্র নিজেদের তালন্ত এবং কৌশলের উপরে গুরুত্ব দিয়েছি। কি হবে যদি এমন হয়, আমাদের কাজ কখনই আমাদের কৌশলের উপরে নির্ভরশীল ছিল না, কিন্তু, আমাদের প্রশ্ন হওয়া উচিত ছিল “হারিয়ে যাওয়া লোকদের উদ্ধার করার জন্য কি করা উচিত?” এই প্রশ্নের উত্তরে আমরা এমন কিছু বিষয় খুঁজে পাব যার কৌশল আমাদের জানা নেই (যেমন অপরিচিত লোকদের সঙ্গে বন্ধুত্ব করা, অবিশ্বাসীদের সঙ্গে প্রার্থনা করা, এবং লূক ১০ অধ্যায়ে প্রদত্ত নির্দেশগুলি পালন করা)। এটি উপলব্ধি করে কতটা স্বস্তি লাভ করা যায় যে প্রভূ যীশুর শিষ্য তৈরি করার (মথি ২৮:১৯) আদেশের প্রতি বাধ্য থাকা আমাদের পদ্ধতি, ব্যক্তিত্ব অথবা বুদ্ধিমত্বার উপর নির্ভর করে না। প্রভূ যীশু তাঁর প্রথম শিষ্যদেরকে এই জন্য নির্বাচন করেন নি যে তারা সর্বশ্রেষ্ঠ ছিল বা প্রখর বুদ্ধিসম্পন্ন ছিল। তারা ছিলেন অশিক্ষিত জেলে, নীচ করগ্রাহী এবং নিপীড়িত লোকেরা। কিন্তু তারা প্রভূ যীশুর বাধ্য হয়েছিলেন।

আমরা অত্যন্ত উত্তেজনাপূর্ণ ছিলাম। পরিচর্য্যা ক্ষেত্রে প্রথম বার আসার পরে, আমরা নিজেদের তালন্তের উপরে নির্ভর না করে কোন মানুষ যেন ধ্বংস না হয়, ঈশ্বরের সেই ইচ্ছাকে পূর্ণ করার জন্য কাজ করতে চেয়েছিলাম। আমরা নতুন নতুন পদ্ধতি ব্যবহার করতে শুরু করি, যার মধ্যে অন্তর্গত ছিলঃ

(ক) ব্যক্তিগত আনুগত্য (সেই সমস্ত লোকদের খুঁজে বের করা যারা সুসমাচারের জন্য নিজেদের গৃহ খুলে দেবে),

(খ) প্রার্থনার বৃদ্ধি (কেবলমাত্র ব্যক্তিগত, আরাধনার একটি বিশেষ সময় নয়; প্রার্থনা আমাদের কাজের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে ওঠে),

(গ) পূর্ব বিদ্যমান বিশ্বাসীদের কাছে নিজেদের দর্শনকে তুলে ধরা,

(ঘ) আগ্রহী খ্রীষ্টীয়ানদের প্রশিক্ষণ প্রদান করা, এবং

(ঙ) তাদের থেকে শিক্ষালাভ করা যারা ইতিমধ্যেই আমাদের থেকে এগিয়ে আছে।

প্রশিক্ষণ লাভ করার কিছু মাস পরে, আমরা সঞ্জয় নামে একজন পরিচিত ব্যক্তির কাছে দৌড়ে গেলাম, যার সঙ্গে বহু বছর

ধরে আমাদের কোন সাক্ষাৎ হয়নি। পরবর্তী অংশে সঞ্জয়ের সঙ্গে সেই সাক্ষাৎকারের বিষয়গুলি উল্লেখ করা হল।

——————————

 আমি একটি খ্রীষ্টিয়ান পরিবারে জন্মগ্রহন করেছিলাম। আমরা সমস্ত খ্রীষ্টধর্মের প্রথাগুলি পালন করতাম। যখন আমি প্রাপ্তবয়স্ক হই, আমরা চার বছরের বাইবেল প্রশিক্ষণ গ্রহণ করি, এবং তারপরে আমি বাইবেলের শিক্ষক হিসাবে নিযুক্ত হই। পরবর্তী সময়ে, আমার দেশের বিস্তীর্ণ ভৌগলিক অঞ্চল জুড়ে আমি ১৭টি মণ্ডলী শুরু করি।

২০১১ সালের ডিসেম্বর মাসে, দিল্লীর পথে ভাই ওয়াকারের সাথে আমার সাক্ষাৎ হয়। তিনি আমাকে জিজ্ঞাসা করেন আমি মণ্ডলী স্থাপনের প্রশিক্ষণ লাভের জন্য তার গৃহেতে যেতে আগ্রহী কি না। আমার জীবনের সেই সময়ে, আমি অত্যন্ত দাম্ভিক মানুষ ছিলাম। আমার ইতিমধ্যেই বড় একটা পরিচর্য্যা কাজ চলছিল। আমি বিদ্যালয় এবং বাইবেল প্রশিক্ষণ কেন্দ্র শুরু করেছি। আমি ভাবলাম, “এই লোকটা আমাকে আর কি শেখাবে?” আমি সেখানে না যাবার সিদ্ধান্ত নিই।

যদিও, প্রায় এক মাস পরে আমি তাকে শুভ নববর্ষের শুভেচ্ছা জানানোর জন্য টেলিফোনে সংযোগ করি। যখন আমি তাকে ফোন করেছিলাম, তিনি বললেন, “আমি তোমাকে পূর্বে মণ্ডলী স্থাপনের প্রশিক্ষণের বিষয়ে বলেছিলাম। তুমি কেন আসলে না?”

এই সময়ে, আমি আত্ম-সমর্পন করি। আমি বলেছিলাম আমি আসব এবং আমার কয়েকজন বন্ধুকেও নিয়ে আসব।

আমরা সেখানে পৌঁছালে, তিনি আমাদের জল পান করতে দিলেন এবং সেখানে যাওয়ার জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করলেন। এরপরে তিনি আমাদের কাগজ ও কলম দিলেন এবং বললেন, “আজকে, আমরা ঈশ্বরের বাক্য ধ্যান করব। আমি সবার জন্য চা বানাতে যাচ্ছি। যখন আমি চা বানাচ্ছি, আপনারা প্রত্যেকে মথি ২৮:১৬-২০ বাইবেল থেকে এই কাগজে লিখে নিন। পরের পৃষ্ঠায় লিখুন আপনি কিভাবে এটি নিজের জীবনে ব্যবহার করবেন”।

আমি ভাবলাম, “এটা কি ধরনের প্রশিক্ষণ? তিনি কেবলমাত্র একটি কাগজ কলম দিয়ে চলে গেলেন!” আমি ইতিমধ্যেই বাইবেল কলেজ থেকে প্রশিক্ষণ নিয়েছি। আমি ১২ বছর ধরে অত্যন্ত সফলভাবে পরিচর্য্যা কাজ করে চলেছি। কিন্তু, ১০ মিনিটের মধ্যে, আমি সম্পূর্ণভাবে পালটে গেলাম।

মথি ২৮ অধ্যায়ে আমি পাঠ করলাম আমাদেরকে যেতে হবে এবং শিষ্য তৈরি করতে হবে। আমি সেটা লিখলামআমার কাগজে লেখা বিষয়টি পাঠ করার পরে, সেই ভাই আমাকে জিজ্ঞাসা করল “সঞ্জয়, তোমার তো অনেক বড় পরিচর্য্যা কাজ আছে, কিন্তু তোমার কি কোন শিষ্য আছে?”

আমি ভাবলাম, “আমার তো একটাও শিষ্য নেই। ১০ বছরে, আমি প্রভূ যীশুর জন্য কিছুই করিনি। তিনি আমাকে শিষ্য তৈরি করতে বলেছেন, কিন্তু আজ পর্যন্ত, আমার একটিও শিষ্য নেই”

পরের মাসে, আমি আবার ভাই ওয়াকারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে যাই। আমরা একত্রে বসে ঈশ্বরের বাক্য অধ্যয়ন করি। সেই সময় থেকে আমি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করি, আমি অন্যান্য সমস্ত কাজ সরিয়ে রাখব। আমি কেবলমাত্র একটি সঙ্কল্প নিয়ে বাড়িতে ফিরে আসি, আর কিছু নয়, কেবলমাত্র শিষ্য তৈরি করা। আমি যে বিদ্যালয় শুরু করেছিলাম সেখান থেকে আমি পদত্যাগ করি, আন্তর্জাতিক পরিচর্য্যা কাজে আমার পদ ছেড়ে দিই, যেখান থেকে আমি যথেষ্ট অর্থ উপার্জন করতাম, বাইবেল প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের সভাপতি পদ থেকেও আমি পদত্যাগ করি। আমি সমস্ত কিছু পরিত্যাগ করি, সেই সময় থেকে, কেবলমাত্র প্রভূ যীশুর আদেশ পালনের লক্ষ্যে এগোতে শুরু করি। এবং ঈশ্বর বিশ্বস্তভাবে আমাদের সমস্ত প্রয়োজন মেটাতে থাকেন।

———————-

আমরা মাসে প্রায় একবার করে সঞ্জয় এবং বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা সঞ্জয়ের আরো ১৫ জন বন্ধুর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে শুরু করি। তাদের মধ্যে অধিকাংশই খ্রীষ্টীয় পরিবারে জন্মেছিলেন, খুব কম সংখ্যক মানুষ যারা হিন্দু পরিবার থেকে খ্রীষ্টকে জেনেছিলেন। যারা সি পি এম-এর নীতিগুলি ব্যবহার করছিলেন তারা প্রত্যেকেই দ্রুত ফল লাভ করতে শুরু করলেন। সঞ্জয় ছিল এই দলের প্রধান কোচ এবং দলের উৎসাহদাতা।

  • ২০১২ সালের ডিসেম্বর মাসের মধ্যে, সেখানে ৫৫টি ডিসকভারি বাইবেল স্টাডি দল শুরু হয়, যেখানে প্রত্যেকেই ছিলেন হারিয়ে যাওয়া মানুষ।
  • ২০১৩ সালের ডিসেম্বর মাসের মধ্যে, সেখানে ২৫০টি দল শুরু হয়, (মণ্ডলী এবং ডিসকভারি দল)।
  • ২০১৪ সালের ডিসেম্বর মাসের মধ্যে, সেখানে ৭০০টি মণ্ডলী শুরু হয়, এবং প্রায় ২৫০০ জন বাপ্তিষ্ম গ্রহণ করে।
  • ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসের মধ্যে, সেখানে ২০০০টি মণ্ডলী শুরু হয়, এবং প্রায় ৯০০০ জন বাপ্তিষ্ম গ্রহণ করে।
  • ২০১৬ সালের ডিসেম্বর মাসের মধ্যে, সেখানে ৬৫০০টি মণ্ডলী শুরু হয়, এবং প্রায় ২৫০০০ জন বাপ্তিষ্ম গ্রহণ করে।
  • ২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাসের মধ্যে, সেখানে ২১,০০০টি মণ্ডলী শুরু হয় এবং বাপ্তিষ্মের সঠিক সংখ্যা গননা করা অসম্ভব হয়ে যায়।

২০১৮ সালের ডিসেম্বর মাসের মধ্যে, সেখানে ৩০,০০০টি মণ্ডলী শুরু হয়।

ভাগ ২-এ আমরা এই প্রক্রিয়া চলাকালীন যা শিখেছি তার বেশ কিছু পাঠগুলির আলোচনা করবো, বিভিন্ন ধরনের জড়িত লোকের ভূমিকা, এবং অগ্রগতির মূল কারণগুলি

“ওয়াকার” পরিবার ২০০১ সালে ভিন্ন সংস্কৃতির মধ্যে কাজ করতে শুরু করে ২০০৬ সালে, তারা বেয়ন্ড-এর (www.beyond.org) সাথে যোগদান করেন এবং ২০১১ সালে তারা সি পি এম-এর নীতিগুলি ব্যবহার করতে শুরু করেন “ফোয়েব” ২০১৩ সালে তাদের সঙ্গে যোগদান করেন ফোয়েব এবং ওয়াকার ২০১৬ সালে অন্য দেশে যাত্রা করেন এবং দূর থেকে সেই আন্দোলনকে চালিয়ে যাবার জন্য সমর্থন করতে থাকেন

Categories
আন্দোলন সম্পর্কে

ঈশ্বরের জন্য আসক্তি, মানুষের জন্য সমবেদনা

ঈশ্বরের জন্য আসক্তি, মানুষের জন্য সমবেদনা

– শোডানকে জনসন দ্বারা লিখিত –

ঈশ্বরের প্রেমের বাস্তব প্রদর্শনগুলি মণ্ডলী স্থাপনের আন্দোলনগুলির ক্ষেত্রে এক অখণ্ড ভূমিকা পালন করে। তারা শুভ বার্তার প্রবেশদ্বার এবং মানুষের জীবনে ও সম্প্রদায়সমূহে রাজ্যের ফলস্বরূপ, এই উভয় ক্ষেত্রেই পরিচর্য্যা করে।

 

প্রবেশাধিকারের পরিচর্য্যার কাজগুলি নিউ হারভেস্ট মিনিস্ট্রিস (এন এইচ এম)-এর স্তম্ভগুলির মধ্যে একটি। যখন থেকে নিউ হারভেস্ট শুরু হয়েছিল, ৪,০০০-এরও বেশী সম্প্রদায়ে এবং ১২টি দেশে শিষ্যনির্মাণ, এবং মণ্ডলী স্থাপন করতে তারা ঈশ্বরের সমবেদনা প্রকাশ করতে মুখ্য ভূমিকা পালন করেছিলমণ্ডলী। এই সমবেদনাপূর্ণ ব্যস্ততা শত সহস্র নতুন শিষ্যদের, এবং দশ সহস্রেরও বেশী খ্রীষ্টিয় নেতাদের গঠন করতেমূল অনুঘটক হিসেবে কাজ করেছে।

সমবেদনা হচ্ছে প্রত্যেকটি শিষ্য নির্মাণের আন্দোলনের ডি এন এ-তে পাওয়া একটি অপরিহার্য রাজ্যের মূল্যবোধশিষ্য নির্মাণেরশিষ্য নির্মাণের। আমাদের বিভিন্ন ধরনের ডজন ডজন প্রবেশাধিকারের পরিচর্য্যার কর্মগুলি রয়েছে। প্রত্যেকটিই আফ্রিকায় ঈশ্বরের রাজ্যের বিস্তারের জন্য আমাদের সাহায্য করতে অনুপম ভুমিকা পালন করছে। বেশিরভাগই ব্যয়বহুল নয়, কিন্তু ঈশ্বরের সাহায্যে, তারা দারুন প্রভাব সৃষ্টি করে। আমরা প্রত্যেকটি পরিচর্য্যা কাজের স্থানীয় মানুষের সাথে অংশীদার হই। তারা প্রায়ই নেতৃত্ব, শ্রম এবং জিনিসপত্রগুলি সরবরাহ করে – সমাজে বিদ্যমান জিনিসপত্রগুলি সেই প্রয়োজনগুলি মেটাতে সাহায্য করে।

বীরোচিত সমবেদনা

নিউ হারভেস্ট সিয়েরা লিওন-এ স্থিত আমাদের কেন্দ্রীয় দফতর থেকে অনেক দেশে পরিচর্য্যা করেছে। যখন ২০১৪ সালে ইবোলা আঘাত হেনেছিল, আমরা  নিরাপদ স্থানে থাকতে পারিনি এবং আমাদের চতুর্দিকের বিপর্যয়ে জড়াতেও পারিনি। এই সঙ্কট অনেক মুসলমান গ্রামগুলিকে অত্যন্ত শোচনীয়ভাবে আঘাত করল, যেন সমাধির আচার-অনুষ্ঠান মহামারীর বিস্ফোরিত হওয়ার কারণ হয়েছিল। হঠাৎ করেই ইবোলার কারণে, লোকেরা মৃতপ্রায় বাবা, মা বা সন্তানদের স্পর্শও পর্যন্ত্য করত না। সেই প্রসঙ্গে, নিউ হারভেস্টের অনেক নেতারা স্বেচ্ছাসেবী হিসাবে অধিকাংশ বিপজ্জনক এলাকায় কাজ করেছিলেন। কয়েকজন বেঁচে গিয়েছিলেন, কিন্তু অনেকেই অন্যদের সেবা করতে গিয়ে তাদের প্রাণ হারিয়েছিলেন – বেশিরভাগ মুসলমানেরা।

কোন একটি সম্প্রদায়ের মুসলমান প্রধান তার পরিত্যক্ত গ্রাম থেকে পালাতে গিয়ে লোকেদের দ্বারা নিরুৎসাহিত হয়েছিলেন। খ্রীষ্টানরা সেবা করতে আসতে দেখে তিনি অভিভূত হয়েছিলেন। তিনি ব্যক্তিগতভাবে এই প্রার্থনা করেছিলেনঃ “হে ঈশ্বর, তুমি যদি এর থেকে আমাকে রক্ষা কর, তুমি যদি আমার পরিবারকে রক্ষা কর, আমি চাই আমরা সকলেই এই লোকগুলির মত হই, যারা আমাদের প্রেম প্রদর্শন করছে এবং খাদ্য জুগিয়েছে।” প্রধান ও তার পরিবার বেঁচে গিয়েছিলেন এবং নিজের প্রতিশ্রুতি রক্ষা করেছিলেন। বাইবেলের ঘটনাগুলি মুখস্থ করে, তিনি মসজিদে তা প্রচার করতে শুরু করে দিয়েছিলেন, যেখানে তিনি একজন প্রবীন ব্যক্তি ছিলেন। সেই গ্রামে একটি মণ্ডলীর জন্ম হয়েছিল, এবং সেই প্রধান গ্রাম থেকে গ্রামান্তরে গিয়ে ঈশ্বরের প্রেমের শুভ বার্তা প্রচার করতে থাকেন।

দরদি অপরিহার্যতার আবিষ্কার, হারানোদের সংযুক্তি

এন এইচ এম-এর জন্য, প্রবেশাধিকারের পরিচর্য্যা শুরু হয় একটি সম্প্রদায়ের দরদি অপরিহার্যতা মূল্যায়ন-এর দ্বারা। যখন আমরা চাহিদার মূল্যায়ন সম্পন্ন করি, সম্প্রদায়ের সাথে অংশীদারত্ব অবশ্যই পারস্পরিক সম্মান ও বিশ্বাসেরউন্নয়ন ঘটাবে। কিছু সময় পরে, এই সম্পর্ক গল্প কথন এবং ডিসকভারি বাইবেল স্টাডিতে (ডি বি এস) পরিচলনা করে। প্রবেশাধিকারের পরিচর্য্যা তাদের খ্রীষ্টের প্রেমকে দেখতে এবং পরাক্রমের সাথে তাদের হৃদয়গুলি স্পর্শ করতে দেয়।

রাজ্য আন্দোলনগুলিতে আরোহণ

আমরা যা কিছুই করি, প্রার্থনাই হচ্ছে তার ভিত্তি। সুতরাং যখন কোন কিছু মূল্যায়ন করা হয়ে যায়, আমাদের মধ্যস্থকারীরা প্রার্থনা করতে শুরু করেনঃ

  • উন্মুক্ত দ্বার ও উন্মুক্ত হৃদয়ের জন্য
  • প্রকল্পের নেতৃবৃন্দের মনোনয়নের জন্য
  • স্থানীয়দের দ্বারা হস্ত উন্মুক্তির জন্য
  • ঈশ্বরের এক অলৌকিক শক্তির চালনার জন্য
  • আত্মার নেতৃত্বের জন্য
  • ঈশ্বর প্রয়োজনীয় রসদ সরবরাহ করবেন তার জন্য

আমাদের প্রার্থনার কেন্দ্রগুলি যে সম্প্রদায়গুলির মধ্যে কাজ করছে, তাদের সম্বন্ধে তারা অবগত থাকে। তারা তাদের প্রত্যেকটির জন্য উপবাস ও প্রার্থনা করে, এবং ঈশ্বর সব সময় সঠিক প্রবন্ধের সাথে, সঠিক সময়ে, সঠিক দ্বার খুলে দেন।

প্রবেশাধিকারের পরিচর্য্যার মহা-শক্তিশালী এবং কার্যকারী উপায় হচ্ছে প্রার্থনা। সমস্ত উদ্যোগের মধ্যে এটি এক জলপ্রপাতের কার্যকারিতা ঘটায়। কোন প্রকার সন্দেহের উর্দ্ধে আমরা দৃঢ় প্রত্যয় প্রাপ্ত হই যে কৌশলী উপবাস ও প্রার্থনা অন্ধকারের শক্তিগুলিকে পরাভূত করতে ধারাবাহিকভাবে নেতৃত্ব দেবে। কখনও কখনও পীড়িতদের জন্য প্রার্থনা প্রবেশের প্রশস্ত দ্বারউন্মুক্ত করে দেয়। আমরা ধারাবাহিক প্রার্থনার দ্বারা, খুব হিংস্র সম্প্রদায়্গুলিকে উন্মুক্ত হতে, শান্তির অনুপোযুক্ত লোকেদের চিহ্নিত হতে, এবং সমস্ত পরিবারগুলিকে উদ্ধার পেতে দেখেছি। সমস্ত গৌরব ঈশ্বরের প্রাপ্য, যিনি প্রার্থনা শোনেন এবং উত্তর দেন।

আমাদের সকল কাজকে প্রার্থনা তা পরিবেষ্টন করে রাখে। আমি লোকেদের বলি যে প্রবেশাধিকারের পরিচর্য্যার তিনটি গুরুত্বপূর্ন উপাদানগুলি হচ্ছেঃ প্রথম – প্রার্থনা, দ্বিতীয় – প্রার্থনা এবং তৃতীয় – প্রার্থনা।

প্রত্যেকটি প্রকল্প আমাদের রাজাকে বিখ্যাত করেছে

আমরা মানুষের কাছে সুসমাচার নিয়ে যাওয়ার জন্য যা কিছু করি তাতে খ্রীষ্ট মহিমান্বিত হন। আমাদের কাজ কখনও আমাদের বিষয়ে নয়। এটা তাঁর বিষয়ে। আমরা একটি কৌশলী মনোযোগের সাথে সুসমাচার অপ্রাপ্ত জনগোষ্ঠীগুলির উপর তাঁকে পরিচিত করি।

শিক্ষাদানের কর্মীদল

শিক্ষা যখন একটি সুস্পষ্ট আবশ্যিক বিষয়, আমাদের মধ্যস্থতাকারীরা প্রার্থনার মাধ্যমে ঈশ্বরের কাছে সেই আবশ্যিক বিষয়টি নিয়ে যান৷ আমরা যখন প্রার্থনা করি, আমরা সম্প্রদায়কে তাদের কাছে কোন রসদগুলি আছে তার খোঁজ করতে যুক্ত করি। কেই  যোগান তাদের নিজেদের চাহিদা মেটানোর জন্য তারা কি সরবরাহ করতে পারবে আমরা তা খুঁজে বের করি। প্রায়ই সম্প্রদায়টি একটি অস্থায়ী পরিকাঠামো গড়ে তোলার জন্য জমি, সাম্প্রদায়িক ভবন বা নির্মাণ সামগ্রীর যোগান দেয়।

আমরা সাধারণত সম্প্রদায়কে শিক্ষকের বেতনের  অংশটি দেওয়ার জন্য উৎসাহিত করি। শিক্ষক হচ্ছেন একজন শংসাপত্র প্রাপ্ত ব্যক্তি এবং তিনি (পুরুষ এবং মহিলা) হচ্ছেন একজন প্রবীণ শিষ্য নির্মাণকারী বা মণ্ডলীস্থাপক। বিদ্যালয়গুলি শুরু হয় কয়েকটি বেঞ্চ, পেন্সিল বা পেন, এক বাক্স চক, এবং একটি ব্ল্যাকবোর্ড নিয়ে। বিদ্যালয় গাছের নীচে, একটি সমাজগৃহে বা একটি পুরানো বাড়িতে শুরু হতে পারে। আমরা ধীর গতিতে শুরু করি, এবং বিদ্যালয়কে শিক্ষাগতভাবে এবং আত্মিকআত্মিক ভাবে উন্নত করি।

যখন একজন শান্তির ব্যক্তি তার (পুরুষ বা নারী) ঘর উন্মুক্ত করে দেয়, তখন তা ডি বি এস মিটিং এবং পরে মণ্ডলী চালু করার কেন্দ্র হিসাবে পরিগণিত হয়। আমরা ১০০ টিরও বেশী প্রাথমিক বিদ্যালয় চালু করেছি, তাদের বেশীরভাগই এখন সম্প্রদায়ের মালিকাধীন।

এই সাধারণ কর্মসূচী থেকে ঈশ্বর খাড়া করেছেন ১২টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ২টি কারিগরি যন্ত্রবিদ্যা সংক্রান্ত বিদ্যালয় এবং প্রত্যেকটি দেশে কলেজ। এই কলেজের একটি স্বীকৃত ব্যবসায়িক বিদ্যালয় এবং আত্মিক বিদ্যালয় আছে। এছাড়াও যা প্রত্যাশা করা যেতে পারে, তা হল শিষ্য নির্মাণেরশিষ্য নির্মাণেরনির্মাণের আন্দোলনগুলির জন্য মজবুত শিক্ষাস্থান।

চিকিৎসা, দন্তচিকিৎসা, স্বাস্থ্যবিধি

যখন আমরা কোন স্বাস্থ্যগত প্রয়োজন সনাক্ত করি, আমরা ঔষুধপত্র, যন্ত্রপাতি এবং সরঞ্জাম সমেত সুশিক্ষিত চিকিৎসকদের দল পাঠাই, ঔষুধপত্র। আমাদের দলের সব সদস্যই নিপুণ শিষ্য প্রস্তুতকারক এবং ডি বি এস-এর অগ্রগমণের প্রণালী সহজতর করার বিষয়ে নিপুণ। অনেকেই দক্ষ মণ্ডলীস্থাপক। যখন কর্মীদল পীড়িতদের চিকিৎসা করে, তারা একজন শান্তির ব্যক্তিরও অন্বেষণ করে। যদি তারা তাদের প্রথম পরিদর্শনে কাউকে খুঁজে না পায়, তারা দ্বিতীয়বার পরিদর্শন করে। যখন তারা একজন শান্তির ব্যক্তিকে খুঁজে পায়, তখন সে (পুরুষ বা নারী) সেতুবন্ধন এবং ডি বি এস-এর জন্য ভাবী তত্ত্বাবধায়ক হিসাবে কাজ করে। যদি তারা কোন শান্তির ব্যক্তিকে খুঁজে না পায়, তখন কর্মীদল পূর্ববর্তী স্থানে উন্মুক্ত প্রবেশদ্বারের জন্য প্রার্থনা করতে করতে অন্য সম্প্রদায়ের কাছে যাবে।

দশজন মণ্ডলীস্থাপকদের দন্তচিকিৎকদের মত সুসজ্জিত হতে ভালো প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। তারা ঘুরে ঘুরে দাঁত তোলা এবং ভরাট করবার স্বীকৃতি পায় স্বাস্থ্য অধিকার্ত্তাদের কাছ থেকে। তাদের মধ্যে একজন চক্ষুরোগ বিশেষজ্ঞের জুড়ি হিসাবে কাজ করেন। তিনি চক্ষু পরীক্ষা করেন এবং উপযুক্ত চশমার পরামর্শ দেন। স্বাস্থ্য কর্মীদলের অন্য সদস্যরা স্বাস্থ্যবিধি, মাতৃদুগ্ধ ভোজন, পুষ্টিবিধান, শিশু টীকাকরণ এবং গর্ভবতী মহিলাদের শিশুর জন্মের পূর্ববর্তী যত্নের উপরে প্রশিক্ষন প্রদান করেন।

একটি অতি অস্বাভাবিক প্রবেশাধিকারের পরিচর্য্যা

এটার সমস্ত কিছুই আমরা খ্রীষ্ট-সদৃশ আচরণে, ঈশ্বরের রাজ্য প্রতিষ্ঠাপ্রতিষ্ঠা দর্শনসাধ্য করবার সন্ধানে করি। ঈশ্বর গমনাগমন করেন এবং তাঁর উপস্থিতি জানান। এটা প্রায়ই একটি পরিবারকে বা একজন অনুপযোগী সমাজপতিকে নিয়ে শুরু হয়। এইভাবে আমরা ধারাবাহিকভাবে শিষ্যদের, ডিসকভারি বাইবেল গোষ্ঠীগুলির এবং মণ্ডলীগুলির চলমান সংখ্যাবৃদ্ধি প্রত্যক্ষ করি।

সিয়েরা লিওনের দক্ষিণপ্রান্তের এবং বৃহৎ সম্প্রদায়ের মধ্যে প্রবেশ করা আমাদের পক্ষে খুব কঠিন ব্যাপার ছিল। তারা খ্রীষ্টানদের প্রতি অত্যন্ত নির্দয়ী ছিল। খ্রীষ্টান বলে চিহ্নিত লোকদের সেই স্থানে প্রবেশ করা পর্যন্ত্যও কঠিন ছিল। সুতরাং আমরা সেই শহরের জন্য প্রার্থনা করলাম। কিন্তু সময় চলে গেল এবং আমাদের কোন কৌশল কার্যকারী হল না।

তারপর হঠাৎ করে কিছু একটা ঘটল! জাতীয় সংবাদের বিবরণে পেশ করা হল সেই শহরের স্বাস্থ্য সমস্যা সম্বন্ধে। যুবকেরা অসুস্থ হয়ে পড়ছিল এবং মারা যাচ্ছিল। এটা খুঁজে পাওয়া গেল যে সেই বিষয়ের সাথে সংক্রমণ জড়িত, যেটা হচ্ছে সেই গ্রাম তাদের বালকদের কখনও লিঙ্গাগ্রের ত্বকচ্ছেদ করে নি। যখন আমি এই সমস্যার বিষয়ে প্রার্থনা করলাম, আমি অনুভব করলাম যে প্রভু আমাকে দায়ী করছেন যে শেষ পর্যন্ত্য এই শহরকে সেবা করার জন্য এটাই ছিল আমাদের উন্মুক্ত দ্বার।

আমরা স্বেচ্ছাসেবী চিকিৎসামূলক কর্মীদল সংগ্রহ করলাম এবং যথাযথ যন্ত্রপাতি এবং ঔষুধপত্র নিয়ে সম্প্রদায়ের কাছে গেলাম। আমরা জিজ্ঞাসা করলাম যদি তারা আমাদেরকে তাদের সাহায্য করতে সুযোগ দেয়। যখন শহরের নেতারা সম্মতি দিলেন আমরা আনন্দিত হলাম। প্রথম দিন তারা ৩০০জনেরও বেশী যুবকের ত্বকচ্ছেদ করালেন।

তার কয়েকদিন পরেই সেই পুরুষেরা সুস্থ হতে শুরু করল। সেটাই সুস্থতার দিনগুলির মধ্যে আমাদের ডিসকভারি বাইবেল গোষ্ঠীগোষ্ঠীগুলি শুরু করে দেওয়ার জন্য সুযোগ করে দিল। আমরা দূর্দান্ত প্রতিক্রিয়া পেলাম, এবং শীঘ্রই মণ্ডলী স্থাপন সহযোগে রাজ্যের সংখ্যাবৃদ্ধির কাজ শুরু হয়ে গেল । মাত্র কয়েক বছরের মধ্যে যে স্থানে খ্রীষ্টানরা প্রবেশ করতে পারত না, তা রূপান্তরিত হল এমন এক স্থানে যেখানে ঈশ্বরের মহিমা ঊজ্জ্বলভাবে প্রদর্শিত হল। ঈশ্বরের লোকদের সমবেদনা, আরো বেশী প্রার্থনার শক্তি এবং ঈশ্বরের রূপান্তরকারী বাক্য সব কিছুকে বদলে দিল।

কৃষি সংক্রান্ত কর্মীদল

আমাদের প্রথম প্রবেশাধিকারের পরিচর্য্যা ছিল কৃষিকাজ। সেই সমস্ত জায়গায়, যেখানে কৃষিকাজ সঙ্কটপূর্ণ,  সেখানে লোকদের পরিচর্য্যা করবার ব্যাপারে কৃষিবিদ্যাই প্রধান প্রবেশপথ হয়ে উঠেছে। বেশিরভাগ কৃষিকাজই হচ্ছে জীবিকার কৃষিকাজ, মূলত পরিবারের প্রয়োজন মেটানোর জন্য। পরবর্তী চাষ করবার জন্য প্রায়ই কোন বীজ সঞ্চয় করে রাখা হয় না।

এই সমস্ত পরিস্থিতিগুলি আমাদের কৃষকদের জন্য বীজ সঞ্চয় স্থান গড়ে তুলতে প্রেরণা দিল। যেমন আমাদের অন্য কর্মীদলগুলির সঙ্গে, আমরা নয় জন কৃষিবিদদের প্রশিক্ষণ দিলাম, যারা আবার মণ্ডলী স্থাপক রূপেও প্রশিক্ষিত। এই সমস্ত কৃষিবিদরা / শিষ্য নির্মাণকারীরা চাষীদের শিক্ষিত করল। তাদের প্রশিক্ষণ ও পরামর্শ আত্মীয়তায় পর্য্যবশিত হল, যা ডি বি এস গোষ্ঠীগুলিতে, বাপ্তিষ্মে এবং পরিণামস্বরূপ মণ্ডলীতে ফলপ্রসূ হল। আজকে অনেক চাষীরা খ্রীষ্টের অনুসরণকারী হয়েছে……

শিষ্য নির্মাণেরশিষ্য নির্মাণেরপ্রতিষ্ঠা

মণ্ডলীগুলি স্থাপন

আমাদের প্রবেশাধিকারের পরিচর্য্যা কাজের প্রচেষ্টার প্রায় ৯০% একটি মণ্ডলীতে পরিণত হয়েছে। প্রায় একটি কর্মযুদ্ধের পরিণতি স্বরূপ অনেকগুলি মণ্ডলীর প্রতিষ্ঠা হয়েছে। যখন আমরা পুনর্বার সম্প্রদায়গুলির পরিদর্শন করি, অনেক ব্যক্তির, পরিবারের এবং সমাজের রূপান্তরের সাক্ষী শুনতে পাই। লোকদের জন্য সমবেদনা ঈশ্বরকে সুপরিচিত করে।

শোডানকে জনসন, সান্টা’র স্বামী এবং ৭ সন্তানের পিতা, হচ্ছেন সিয়েরা লিওন-স্থিত নিউ হারভেস্ট মিনিস্ট্রীস (এন এইচ এম)-এর নেতা। ঈশ্বরের করুণায় ও শিষ্য নির্মাণের উদ্যোগের প্রতি দায়বদ্ধতার জন্য, এন এইচ এম জাঁক জমকহীন শত শত মন্ডলীর প্রতিষ্ঠা, ৭০টিরও বেশী বিদ্যালয়ের স্থাপন, এবং অন্যান্য অনেক প্রবেশাধিকারের পরিচর্য্যা, যা সিয়েরা লিওনে বিগত ১৫ বছরে শুরু হতে দেখেছে। এর মধ্যে অন্তর্ভূক্ত ১৫টি মুসলমান জনগোষ্ঠীর মন্ডলী। তারা আফ্রিকার ১৪টি দেশে দীর্ঘমেয়াদী কর্মীদের পাঠিয়েছে, যার অন্তর্ভূক্ত সাহেল ও মাঘরেবের ৮টি দেশ। শোডানকে সম্পাদন করেছেন প্রশিক্ষণ, আফ্রিকা, এশিয়া, ইউরোপ এবং আমেরিকায় প্রার্থনা এবং শিষ্য নির্মাণের অনুঘটন, তিনি সিয়েরা লিওনে ইভানজেলিকাল এশোশিয়েশান-এর প্রেসিডেন্ট ও নিউ জেনারেশনস-এর আফ্রিকান ডিরেক্টর হিসাবে কাজ করেছেন। তিনি বর্তমানে নিউ জেনারেশনস এর বিশ্বব্যাপী প্রশিক্ষন ও প্রার্থনা সচল করবার দায়িত্বে আছেন। আফ্রিকা এবং সারা বিশ্বে ২৪:১৪ জোটের একজন প্রধান নেতা।


মিশন ফ্রন্টিয়ার্স-এর নভেম্বর-ডিসেম্বর ২০১৭ সালের প্রকাশনায়, একটি প্রবন্ধ থেকে সংকলিত, http://www.missionfrontiers.org, পৃষ্ঠা ৩২-৩৫, এবং ২৪:১৪ পুস্তকের পৃষ্ঠা ২৬-৩৩-এ সম্পাদিত – সমস্ত লোকেদের পক্ষে একটি সাক্ষ্য ২৪:১৪ থেকে বা অ্যামাজন-এ উপলব্ধ৷

Categories
আন্দোলন সম্পর্কে

সুসমাচার অপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের কাছে পৌঁছানোর জন্য পূর্ব-বিদ্যমান মণ্ডলীর জন্য দ্বি-রেলগাড়ীর নমুনা – ভাগ ২

সুসমাচার অপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের কাছে পৌঁছানোর জন্য পূর্ব-বিদ্যমান মণ্ডলীর জন্য দ্বি-রেলগাড়ীর নমুনা – ভাগ ২

– ট্রেভর লারসেন এবং একটি ফলবন্ত ভ্রাতাদের দল দ্বারা লিখিত –

এই পোস্টের ভাগ ১-এ আমরা দ্বি-রেলগাড়ী মডেলের উন্নয়ন এবং চালক প্রকল্পটি আলোচনা করেছি। এখানে ঈশ্বর কিভাবে এই পদ্ধতি প্রয়োগের মধ্যে কার্য করেছিলেন, তা দেখবো।

৩. প্রথম বর্ষঃ অংশগ্রহণকারীদের প্রশিক্ষণ এবং বাছাইকরণ

প্রথম বর্ষে, আমরা প্রায় ১৬টি ভিন্ন বিষয়ের প্রশিক্ষণ শুরু করি। মাসে দুটি করে পূর্ণদিন-ব্যপী প্রশিক্ষণ চলতে থাকে। আমি সম্মত হই যে প্রশিক্ষণের অর্ধেক শিরোনামগুলি ১ম রেলগাড়ীবৃদ্ধি করতে সাহায্য করবে। এটি তাদের বুঝতে সাহায্য করে যে আমরা দৃশ্যমান মণ্ডলীও বৃদ্ধি হতে দেখতে চাই। কিন্তু আমাদের মূল লক্ষ্য ছিল অবশিষ্ট অর্ধেক বিষয়গুলি, যা প্রস্তুত করা হয়েছিল ২য় রেলগাড়ীপ্রস্তুত করার জন্য। এই রেলগাড়ীর মূল লক্ষ্য ছিল মণ্ডলীর বাইরের মুসলিমদের মধ্যে পরিচর্য্যা করা এবং শান্তভাবে তাদের ক্ষুদ্র দলের মাধ্যমে শিষ্য হিসাবে প্রস্তুত করা।

প্রশিক্ষণের প্রথম বছরের মূল লক্ষ্য ছিল তাদের চরিত্র গঠন করা এবং নেতৃত্ব সম্পর্কে আটটি প্রাথমিক কৌশল শিক্ষা দেওয়া। এই কৌশলগুলির মধ্যে একটি ছিল এগ ম্যানেজমেন্ট (Egg Management)। এই নাম ছিল আমাদের রিপোর্টের যেখানে ডিম্বাকার উপবৃত্তাকারের সাহায্যে ক্ষুদ্র দলগুলিকে বৃদ্ধির হিসাব রাখা হত। আমরা ফলাফলের উপরে ভিত্তি করে সমস্তকিছু পরিচালনা করতাম, ক্রিয়াকর্মের উপরে ভিত্তি করে নয়। পরিচর্য্যা ক্ষেত্রে, আমরা এমন ধরনের কর্মী অন্বেষণ করতাম যারা বিভিন্ন ধরনের কৌশল এবং পন্থা ব্যবহার করত। তবে আমরা মূলত তাদের উৎপাদিত ফলের মূল্যায়ণ করতাম যা তারা নিজেদের কার্যকলাপ দ্বারা উৎপন্ন করেছে। সেই কারনে আমরা কর্মীদেরকে অগ্রগতির চিহ্নিতকারীগুলিকে ব্যাখ্যা করতাম। তারা যখন এই চিহ্নিতকারী বিষয়গুলির সঙ্গে সম্মত হয়, তখন আমরা নিয়মিত তাদের সাথে মূল্যায়ন করি।

"ডিম ব্যবস্থাপনা"

মুসলিমদের কাছে পৌঁছানোর জন্য এই আটটি প্রাথমিক কৌশল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ছিল। প্রত্যেকটি মূল্যায়নের সময়, আমরা যাচাই করতে ইচ্ছুক থাকতাম যে কোন প্রশিক্ষণার্থী এই আটটি কৌশলকে ব্যবহার করেছে। যারা এই কৌশলগুলি ব্যবহার করছে, তারা এক একজন সক্রিয় প্রশিক্ষণার্থী হিসাবে উত্থাপিত হচ্ছে। যদি তারা সেগুলি ব্যবহার করছে না, তাহলে কেন করছে না? এই আটটি কৌশলের উপরে বিচার করে আমরা তাদেরকে পরিচালনা করি, উৎসাহিত করি এবং তাদের কাজের মূল্যায়ন করি।

মণ্ডলীতে ৫০জন প্রাপ্তবয়স্ক বিশ্বাসীদের মধ্যে, ২৬ জন রেলগাড়ী পদ্ধতি এবং ষোলোটি বিশেষ বিষয়ে প্রশিক্ষণ লাভ করেছিল। এর কয়েক মাস পরে, এদের মধ্যে কেবলমাত্র ১০ জন অনুভব করেছিল যে ঈশ্বর তাদেরকে মণ্ডলীর বাইরের মুসলিমদের কাছে সুসমাচার প্রচার করার এবং তাদেরকে শিষ্য বানানোর জন্য আহূত হয়েছে। এই ১০ জন (এটি মণ্ডলীর মোট জনসংখ্যার প্রায় ২০%) নিজেদেরকে নির্বাচন করে মুসলিমদের মধ্যে কাজ করার জন্য।

আমাদের ত্রৈমাসিক মূল্যায়নের সময়ে, আমরা দেখেছিলাম যে এই ১০ জনের মধ্যে ৬ জন মণ্ডলীর ভিতরে ঈশ্বরের সেবা করাকে বেছে নেয় (১ম রেলগাড়ী)। তারা মূল লক্ষ্য হয় মণ্ডলীর পরিচর্য্যা কাজ, বিশ্বাসীদের প্রশিক্ষণ দেওয়া, এবং অন্যান্য মণ্ডলীর সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন করা। মাত্র ৪ জন লোক সক্রিয় থাকে সেই বিশাল সংখ্যক  সুসমাচার অপ্রাপ্ত মানুষদের মধ্যে কাজ করার জন্য। কিছু প্রশিক্ষকেরা এই পরিস্থিতি দেখে হতাশ হয়ে যেতেপারে, কিন্তু এই ৪ জন ছিল মণ্ডলীর মোট জনসংখ্যার প্রায় ৮ শতাংশ, যা অনেক মণ্ডলীর সুসমাচার প্রচারকের সংখ্যা থেকে অনেক বেশী। এই ৪ জন ব্যক্তি, মুসলিমদের বৃহৎ জনসংখ্যার মধ্যে কাজ করার জন্য নিজেদের জীবনের একটি বিশেষ আহ্বান প্রদর্শন করেছিল।

৪. দ্বিতীয় বর্ষ থেকে চতুর্থ বর্ষঃ উদীয়মান কর্মীদের জন্য প্রশিক্ষণ এবং সহায়তা

 

আমরা কেবলমাত্র ৪ জনকেই পরামর্শ দিতে থাকি যারা পরিচর্য্যা কাজে সক্রিয়ভাবে কাজ করছিল। এদেরকে পরামর্শ দেবার কাজ করছিল আমাদের মিশন দলের অন্তর্গত একটি ক্ষুদ্র দলের তৃতীয় প্রজন্মের বিশ্বাসীরা। এরা ছিলেন মুসলিম সম্প্রদায় থেকে আসা বিশ্বাসী এবং যারা পার্শবর্তী অঞ্চলেই বাস করতেন।

কাছাকাছি একটি অঞ্চলে মুসলিমদের মধ্যে পরিচর্য্যা কাজ শুরু করার জন্য এই ৪ জনকে প্রেরণ করা হয়। তারা প্রত্যেকেই নিজেদের জন্য একটি করে স্থান চয়ন করে, যেখানে তারা নিজেদের কাজ শুরু করবে, প্রত্যেকটি স্থান মণ্ডলী থেকে ২৫-৩০ কিলোমিটারের মধ্যে। মণ্ডলীর ২৫ টি পরিবার এই ৪টি পরিবারকে আর্থিকভাবে সাহায্য করতে শুরু করে যারা মুসলিমদের মধ্যে কাজ করার জন্য নিজেদের সমর্পণ করেছিল। নিজেদের দান ছাড়াও, মণ্ডলীর লোকেরা মণ্ডলীর বাইরে থেকেও অর্থ সংগ্রহ করতে থাকে, এই পরিবারগুলিকে সাহায্য করার জন্য। তারা প্রাক্তন বিশ্বাসীদের সঙ্গে যোগাযোগ করে, যাদের আর্থিক আয় যথেষ্ট আছে এবং কোন কারণে অন্য শহরে বসবাস করতে শুরু করেছে। আমরা মূল লক্ষ্য ছিল এই চারজনকেই প্রশিক্ষণ দেওয়া। এই পরিচর্য্যার কাজের মূল বিষয় প্রাথমিক প্রশিক্ষণ নয়, কারণ অধিকাংশ লোকেরাই প্রশিক্ষণে প্রাপ্ত শিক্ষা ব্যবহার করার আগেই ভুলে যান। প্রাথমিক প্রশিক্ষণটি একটি ফিল্টার হিসাবে কাজ করে সেই সমস্ত লোকদের বাছাই করার জন্য যারা মুসলিমদের মধ্যে সক্রিয়ভাবে কাজ করার জন্য আহ্বান-প্রাপ্ত। প্রশিক্ষণে উত্তম ফল লাভের চাবিকাঠি হল পরামর্শদাতা এবং সক্রিয় কর্মীদের মধ্যে নিয়মিত আলোচনা। কর্মীরা পরিচর্য্যা ক্ষেত্রে কি কি বিষয়ের সম্মুখীন হচ্ছে তা সেগুলি নিয়ে আলোচনা করা পরামর্শদাতার কাজ। তারা সেই সমস্ত “ফলপ্রসূ অভ্যাসগুলি”ও আলোচনা করেন যেগুলি প্রশিক্ষণের সময়ে শেখানো হয়েছিল, এবং এটি কর্মীদের সাহায্য করত যে তারা সেই বিষয়গুলি নিজেদের পরিচর্য্যা ক্ষেত্রে ব্যবহার করতে পারে। প্রশিক্ষণগুলি আরো ভালোভাবে ব্যবহার করার জন্য অনেকের নিয়মিত সহায়তার প্রয়োজন হয়।

এই চারজন ব্যক্তির অঙ্গীকারের দ্বারা উৎসাহিত হয়ে, মণ্ডলী এই “দ্বি-রেলগাড়ী” প্রকল্পের জন্য নিজেদের অঙ্গীকার বৃদ্ধি করে। পরে তারা সম্মত হয় যে এই চারজনকে সামাজিক উন্নয়নমূলক কাজের জন্যে ও অর্থ সংগ্রহ করা হবে। সামাজিক উন্নয়নের কাজ একটি গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম যার দ্বারা সেই সমস্ত মুসলিমদের সাহায্য করা যায়, যাদের আর্থিক উপার্জন অত্যন্ত সামান্য। এর ফলে সুসমাচার প্রচারকের কাছে ক্ষুদ্র দল শুরু করার জন্য একটি দরজা খুলে যায়। মণ্ডলী এবং চারজন সক্রিয় কর্মীর সাথে সুরক্ষা সম্পর্কিত সমস্যাগুলি নিয়ে আমরা অনেক সময় ব্যয় করতে থাকি। এটি সকলকে আরো বিচক্ষণ হতে সাহায্য করেছিল।

৫. চার বছরের পর্যাপ্ত ফল

 

এখন, চার বছরের পর, এই ৪ জন বিশ্বাসীর পরিচর্য্যা কাজের ফলে প্রায় ৫০০ জন্য নতুন বিশ্বাসীদের তৈরি করা সম্ভব হয়। এখন লুক্কায়িত ২য় রেলগাড়ীমণ্ডলীর (ক্ষুদ্র দলগুলিতে) আয়তন দৃশ্যমান ১ম রেলগাড়ীমণ্ডলীর (একটি গীর্জাঘরে) ৫০ জন প্রাপ্ত বয়স্ক বিশ্বাসী থেকে অনেক অধিক ছিল।

তারা ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র শিষ্য-প্রস্তুতকারী দল শুরু করেছিল যেখানে মুসলিম লোকেরা খ্রীষ্টকে গ্রহণ করতে শুরু করেছিল। পরবর্তীকালে এই ক্ষুদ্র দলগুলির লোকেরা নতুন দল শুরু করে এবং নতুন মুসলিমদের খ্রীষ্টের পথে পরিচালনা করতে থাকে। পালক এই আনন্দময় ফলাফলের সংবাদটি খুব শান্তভাবে নিজের কাছে গুপ্ত রেখেছিল।

৬. প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখী হওয়া এবং দর্শন পুনঃনিশ্চিত করা

 

এই ৪ জন কর্মী এখন ৪টি অঞ্চলের বেশিরভাগ ফলের অধ্যক্ষ হয়েছিলেন। আমি সম্প্রতি সেই চারজন ব্যক্তি এবং পালকের সঙ্গে সাক্ষাৎ করি। আই এস আই এস দ্বারা অনুপ্রাণিত ক্রমবর্ধমান মৌলবাদীদের সাথে যদি এই বিষয়ে কোন দ্বন্দ্ব হয়, তাহলে সেই জরুরী অবস্থায় আমরা কি করতে পারি, সে নিয়ে আমরা আলোচনা করেছিলাম। আমরা একমত হই যে ক্ষুদ্র দলের সমস্ত বিশ্বাসীরা অন্য কোন দলের সাথে নিজেদের সংযোগ উল্লেখ না করেই সমস্যাগুলির সমাধান করার চেষ্টা করবে। তবে যদি সমস্যাটি খুব কঠিন হয় এবং অন্য কাউকে বলিদান করতেই হয়, তবে পালক নিজেদের দৃশ্যমান মণ্ডলীর সাথে যোগাযোগের বিষয়ে উল্লেখ করে বলিদানকরতেও প্রস্তুত ছিলেন। সেই দেশের মধ্যে এটি একটি অনন্য বলিদান ছিল যেখানে মণ্ডলীগুলি সমস্যা এড়িয়ে চলার জন্য মুসলিমদের মধ্যে কাজ করার কোন প্রয়াস গ্রহণ করেনি। দৃশ্যমান মণ্ডলীর বলিদান দেবার অঙ্গীকার করার ফলে, সমস্ত ঝুঁকি চলে আসবে মণ্ডলীর উপরে এবং এটি২য় রেলগাড়ীমণ্ডলীর বিশ্বাসীদের উপরে কোনরকম প্রভাব ফেলবে না। একটি নিবন্ধিত মণ্ডলী স্থানীয় আইনের সুরক্ষা লাভ করতে পারে, কিন্তু লুক্কায়িত মণ্ডলীগুলি তা  নাও পেতে পারে।

সেই কারণে যতটা সম্ভব, ক্ষুদ্র দলগুলি স্বনির্ভর দলহয়ে নিজেদের সমস্যাগুলির সমাধান করার প্রচেষ্টা করবে, এবং অন্য কোন বিশ্বাসীকে বিপদের মধ্যে নিয়ে আসবে না। তৃণমূল স্তরের বিশ্বাসীদের এই বিষয়ে শিক্ষা প্রদান করতে সেই চারজন কর্মী যে কি পদ্ধতিতে এই সমস্ত বিপদগুলির মোকাবিলা করা যায়। তারা কখনই (১ম রেলগাড়ী) মণ্ডলীর সদস্য হিসাবে চিহ্নিত হবে না। এর ফলে তারা বিপদের বাইরে থাকবে। প্রবীন পালকদের পরিবর্তে যে সমস্ত নবীন পালকেরা দায়িত্ব গ্রহণ করেছিলেন, তারা এই ঝুঁকি বহন করার জন্য প্রস্তুত ছিলেন, যেন লুক্কায়িত মণ্ডলীগুলিকে সুরক্ষা প্রদান করা যায়।

দ্বি-রেলগাড়ীপদ্ধতির প্রশিক্ষণ প্রদান করার সময়ে আমরা প্রত্যেকটি বিষয়ে মণ্ডলীগুলির প্রতি সৎ ছিলাম। শুধুমাত্র সুবিধাগুলি নয়, মুসলিমদের মধ্যে ঈশ্বরের কাজ করার ঝুঁকিও তাদের অবগত থাকার প্রয়োজন ছিল। যে সমস্ত মণ্ডলীকে আমরা প্রশিক্ষণ প্রদান করি, তাদেরকে এই বিষয়ে সম্মত হতেই হবে যে তারা কখনও নিজেদের রিপোর্ট প্রকাশ্যে আনবে না। এটি কখনই মণ্ডলীর বিশ্বাসী অথবা অন্যান্য খ্রীষ্টীয়ানদের সমক্ষে আনা যাবে না। এর কারণে, এই বিষয়ে আমরা অত্যন্ত যত্নবান ছিলাম যে কোন মণ্ডলীকে এবং কোন বিশ্বাসীদের আমরা প্রশিক্ষণ প্রদান করব।

 

এই দ্বি-রেলগাড়ীপদ্ধতিতে আমাদের সুরক্ষা প্রতিকূল পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে পারে, কিন্তু কিন্তু আমাদের জন্য প্রধান প্রতিকূলতা ছিল কিছু মণ্ডলীর নেতাদের আক্রমণ। তারা আমাদের ব্যঙ্গ করে, এটি ভেবে যে আমরা সেই সমস্ত মেষদের যত্ন নিতে সক্ষম হব না যদি না নতুন বিশ্বাসীরা মণ্ডলী-গৃহে উপস্থিত হয়। তবে আমরা প্রত্যেকটি ক্ষুদ্র দলের মেষদের যত্ন নেবার জন্য বহু বয়স্কদের প্রশিক্ষণ প্রদান করেছিলাম। আমরা চেয়েছিলাম যে ক্ষুদ্র দলগুলি এমন একটি পরিবেশে বেড়ে উঠবে যেখানে তারা পরস্পর পরস্পরের যত্ন নিতে সক্ষ হবে, সেকারণে তারা একে অপরের যত্ন নিতে শুরু করে। কিছু মণ্ডলীর নেতারা এই বিষয়েও ব্যঙ্গ করে কারণ আমরা আমাদের ফলগুলি সম্পর্কে কোন তথ্য পুলিশকে প্রদান করি নি, কারণ এটি আমাদের মণ্ডলীকে আনুষ্ঠানিক হিসাবে প্রকাশ করবে। কারণ আমরা কখনই একটি আনুষ্ঠানিক মণ্ডলী হিসাবে আত্ম-প্রকাশ করতে চাইনি। কিন্তু আমাদের মূল লক্ষ্য ছিল বিশ্বাসীদের দেহকে এমনভাবে বৃদ্ধি করা যেন এটি নতুন নিয়মের মণ্ডলীগুলির ন্যায় কার্যকরী হয়। নতুন নিয়মের মণ্ডলীগুলির কোন আনুষ্ঠানিক পরিচয় ছিল না, কিন্তু এটি বাইবেল-ভিত্তিক ভাবে এবং সংগঠিত উপায়ে বৃদ্ধি লাভ করেছিল। এটিই আমাদের দর্শন।

দ্বি-রেলগাড়ী মণ্ডলীতে তিনটি মূল বিষয় বর্তমান থাকেঃ

১) প্রশিক্ষণকে একটি বাছাইকরণ পদ্ধতি হিসাবে ব্যবহার করা যেন সু-নির্বাচিত একটি কার্যকারী দল প্রস্তত করা যায়;

২) সেই দলকে উন্নত করার জন্য সময়ের পূর্বেই প্রয়োজনীয় শর্তাবলী সম্পর্কে মণ্ডলীর সঙ্গে আলোচনা করা, যেন মণ্ডলী নতুন পরিচর্য্যা কাজের পদ্ধতি ব্যবহারের সময়ে কোনরূপ হস্তক্ষেপ না করে;

৩) যারা মুসলিমদের মধ্যে প্রবেশ করে পরিচর্য্যা কাজ চালিয়ে যাচ্ছে তাদেরকে অনবরত পরামর্শ প্রদান করা।

ট্রেভর লারসেন একজন শিক্ষক, কোচ, এবং গবেষক। তিনি ঈশ্বরের মনোনীত এবং প্রেরিত প্রতিনিধিদের খুঁজে বের করতে এবং ভ্রাতৃ-নেতৃত্ববর্গের দলগুলিকে ফলপ্রসূ অভ্যাস স্থাপনের মাধ্যমে তাদের কার্য্যের ফলকে সর্বাধিক করে তুলতে সহায়তা করে আনন্দ পান। তিনি এশিয়ান এপোস্টোলিক এজেন্সির সাথে ২০ বছর ধরে অংশীদার হিসাবে কাজ করেছেন এবং যার ফলে অগম্য মানুষদের মধ্যে বিভিন্ন আন্দোলন শুরু হয়েছে।

 

ফোকাস অন ফ্রুট! মুভমেন্ট কেস স্টাডিস অ্যান্ড ফ্রুটফুল প্র্যাকটিসেস পুস্তক থেকে উদ্ধৃত এবং সংক্ষিপ্ত করে এখানে লেখা হয়েছে। এই লিঙ্ক থেকে ক্রয় করতে পারেনঃ www.focusonfruit.org.